বিজ্ঞাপন

‘উসকানি’ ছড়ানোর অভিযোগে কুমিল্লায় গোলাম মাওলা গ্রেফতার

October 15, 2021 | 1:35 am

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: কুমিল্লায় কোরআন শরিফ অবমাননার অভিযোগ তুলে সামাজিক মাধ্যমে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ গোলাম মওলা নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ান (র‌্যাব)। ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

বিজ্ঞাপন

গোলাম মওলাকে বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) রাত ১০টার দিকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে সারাবাংলাকে জানিয়েছেন র‌্যাব সদর দফতরের সহকারী পরিচালক এএসপি ইমরান হেসেন।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, কুমিল্লায় পূজা মণ্ডপের ঘটনাকে কেন্দ্র করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালিয়ে আসছিলেন গোলাম মাওলা। তিনি নামে-বেনামে ফেসবুক-ইউটিউবে ছবি ও ভিডিও এডিট করে জনমনে নেতিবাচক মনোভাব তৈরি করছিলেন। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে, বুধবার (১৩ অক্টোবর) সকালে কুমিল্লার নানুয়ার দীঘি পূজা মণ্ডপে কোরআন শরিফ অবমাননার একটি খবর ছড়িয়ে পড়ে। এরপর সেখানকার কয়েকটি পূজা মণ্ডপে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়। পরে এলাকায় বাড়তি পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

বুধবার রাতেই ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের এক তথ্যবিবরণীতে জানানো হয়, কুমিল্লায় কোরআন শরিফ অবমাননার খবরটি সরকারের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্ট করার উদ্দেশ্যে যেই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকুক না কেন, তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেনসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আশপাশের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে অপরাধীদের শনাক্ত করার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এর আগে, একই অভিযোগে রঘুরামপুরের ফয়েজ আহমেদ নামে এক ব্যক্তিকে আটক করার কথা এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন কুমিল্লার জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান ও পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ। এছাড়া আরও প্রায় ৪০ জনকে আটকের তথ্যও জানিয়েছিল পুলিশ। এই চারটি মামলার তিনটি মন্দিরে হামলা নিয়ে, আরেকটি করা হয়েছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে।

বিজ্ঞাপন

কুমিল্লার ঘটনায় এরই মধ্যে চারটি মামলা দায়ের হয়েছে। এর মধ্যে তিন মামলা হয়েছে মন্দিরে হামলার অভিযোগে, আরেকটি মামলা হয়েছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে।

এদিকে, কুমিল্লায় কোরআন শরিফ অবমাননার খবরটি ছড়িয়ে পড়লে বুধবার ও বৃহস্পতিবার চাঁদপুর, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম, কুড়িগ্রামসহ বিভিন্ন জেলায় মন্দির ও মণ্ডপে হামলা ও প্রতিমা ভাঙচুরের বেশকিছু ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে চাঁদপুরে হাজীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে হামলাকারীদের সংঘর্ষে চার জনের প্রাণহানিও ঘটেছে। এ ঘটনা তদন্তে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। বুধবার রাত থেকেই স্থানীয় প্রশাসন হাজীগঞ্জে অনির্দিষ্টকালের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/ইউজে/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন