বিজ্ঞাপন

হিন্দুদের সুরক্ষা ও সহিংসতার নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান জাতিসংঘের

October 18, 2021 | 11:31 pm

সারাবাংলা ডেস্ক

দেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘু সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর চলমান হামলা বন্ধ করে তাদের সুরক্ষা দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি মিয়া সেপ্পো। একইসঙ্গে তিনি চলমান সহিংসতার ঘটনাগুলোর নিরপেক্ষ তদন্তেরও দাবি জানিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১৮ অক্টোবর) নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক টুইটে তিনি এ দাবি জানান। টুইটে তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য ছড়ানোর মাধ্যমে সাম্প্রতিক হামলাগুলো প্রতিরোধেরও আহ্বান জানিয়েছেন।

টুইটে মিয়া সেপ্পো বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য ছড়ানোর মাধ্যমে সম্প্রতি বাংলাদেশে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া এ ধরনের বক্তব্য সংবিধানের মূল্যবোধের পরিপন্থী। এগুলো বন্ধ করা প্রয়োজন।

বিজ্ঞাপন

মিয়া সেপ্পো বলেন, আমরা সরকারের প্রতি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার আহ্বান জানাই। একইসঙ্গে এসব ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তেরও আহ্বান জানাচ্ছি।

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বন্ধে সবার অংশগ্রহণ জরুরি বলে মন্তব্য করেন মিয়া সেপ্পো। তিনি বলেন, সবার অন্তর্ভুক্তি ও সহনশীলতার পরিবেশ শক্তিশালী করতে সবাইকে হাতে হাত রেখে একত্রিত হতে আমরা আহ্বান জানাই।

বিজ্ঞাপন

এর আগে, গত ১৩ অক্টোবর কুমিল্লায় কোরআন শরিফ অবমাননার অভিযোগ এনে বেশকিছু মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয়। ওই ঘটনার জের ধরে নোয়াখালী, চট্টগ্রাম, ফেনী, চাঁদপুরসহ বেশ কয়েকটি জেলায় মন্দির ও মণ্ডপে হামলা-ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। সহিংস পরিস্থিতি মোকাবিলায় পুলিশের গুলিতে চাঁদপুরে চার জনের মৃত্যুর ঘটনাও ঘটে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এর পরের কয়েকদিনেও দেশের বিভিন্ন স্থানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলা চলে। সবশেষ গতকাল রোববার (১৭ অক্টোবর) ফেসবুকে কাবা শরিফ অবমাননার অভিযোগে রংপুরের একটি জেলেপল্লিতে অন্তত ২০টি ঘরে আগুন দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

চলমান এসব সহিংসতা নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, ‘রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু ধর্মালম্বীদের ঘর-বাড়িতে যারা হামলা চালিয়েছে, আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছে, তারা দুষ্কৃতিকারী। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৫ জনকে আটক করা হয়েছে এবং আরও আটকের চেষ্টা চলছে।’ কুমিল্লা-চাঁদপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বাড়িঘর, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান, মন্দির-মণ্ডপে হামলার ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করতে ‘একটু সময়’ চেয়েছেন তিনি।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন