বিজ্ঞাপন

‘দীর্ঘতম’ গ্রহণ লাগছে চাঁদে, বাংলাদেশে দেখা যাবে কখন

November 19, 2021 | 10:17 am

সারাবাংলা ডেস্ক

৫৮০ বছরের মধ্যে দীর্ঘতম আংশিক চন্দ্রগ্রহণের সাক্ষী হতে যাচ্ছে বিশ্ব। স্বাভাবিকভাবেই এটি বর্তমান শতাব্দীরও সবচেয়ে দীর্ঘতম আংশিক চন্দ্রগ্রহণ। পূর্ণগ্রাস না হলেও বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এদিন চাঁদের সর্বোচ্চ ৯৭ শতাংশেরও বেশি ঢাকা পড়বে পৃথিবীর ছায়ায়। আর বাংলাদেশ থেকেও কিছুটা দেখা যাবে এই চন্দ্রগ্রহণ।

বিজ্ঞাপন

আজ শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) আকাশ পরিষ্কার থাকলে বাংলাদেশে চন্দ্রোদয়ের পর থেকেই গ্রহণটি আংশিক দেখা যাবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। মূল চন্দ্রগ্রহণ শুরু হবে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার দুপুর ১টা ১৮ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে। তবে ঢাকায় বিকেল ৫টা ১৩ মিনিট ৪২ সেকেন্ড থেকে ৬টা পাঁচ মিনিট ৩০ সেকেন্ড পর্যন্ত দেখা যাবে এই গ্রহণ।

রাতকে আলোকিত করে রাখলেও সেই আলোর উৎস সূর্য। সেই সূর্যের আলো তাই যদি আটকে যায়, চাঁদ হারায় ঔজ্জ্বল্য। পৃথিবী, চাঁদ ও সূর্য একই সরলরেখায় আসার সময় যদি পৃথিবী চলে আসে সূর্য ও চাঁদের মাঝখানে, তখনই এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনাকেই বলা হয় চন্দ্রগ্রহণ। তবে এই সময়েও পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল ভেদ করে কিছুটা আলো গিয়ে পড়ে চাঁদের গায়ে। সে কারণে চাঁদ একেবারে অদৃশ্য না হয়ে লালচে রঙ ধারণ করে।

বিজ্ঞাপন

নাসার তথ্য বলছে, ছয় ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে চলবে এই চন্দ্রগ্রহণ। গত ৫৮০ বছরের মধ্যে এত দীর্ঘ সময় ধরে আর কোনো চন্দ্রগ্রহণ দেখা যায়নি। আর এই ছয় ঘণ্টার মধ্যে সর্বোচ্চ গ্রহণের সময় থাকবে তিন ঘণ্টা ২৮ মিনিট ২৩ সেকেন্ড। এই সময়ে চাঁদ লাল বর্ণ ধারণ করবে।

নাসা বলছে, এবারের চন্দ্রগ্রহণ সবচেয়ে বেশি দৃশ্যমান হবে উত্তর আমেরিকা অঞ্চলে। এছাড়া দক্ষিণ আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া ও এশিয়া থেকেও কিছুটা দেখা যাবে এই চন্দ্রগ্রহণ।

বিজ্ঞাপন

কোন বিভাগে কখন দেখা যাবে চন্দ্রগ্রহণ

আকাশ পরিষ্কার থাকলে বাংলাদেশের আট বিভাগ থেকে যে সময়ে এবারের এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে, সেই সময় জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। ঢাকা বিভাগে বিকেল ৫টা ১৩ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ৫ মিনিট ৩ সেকেন্ডে। ময়মনসিংহ বিভাগে বিকেল ৫টা ১১ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ৩ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে।

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রাম বিভাগে বিকেল ৫টা ১০ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ৩ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে। সিলেট বিভাগে বিকেল ৫টা ৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে ৫টা ৫৪ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে।

এদিকে, খুলনা বিভাগে বিকেল ৫টা ১৮ মিনিট ৫৪ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ১১ মিনিট ১৬ সেকেন্ডে। বরিশাল বিভাগে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ৮ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে।

বিজ্ঞাপন

রাজশাহী বিভাগে বিকেল ৫টা ১৯ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিট ৬ সেকেন্ডে। আর রংপুর বিভাগে বিকেল ৫টা ১৪ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে গ্রহণ শুরু হয়ে শেষ হবে সন্ধ্যা ৬টা ৬ মিনিটে।

গ্রহণের শুরু ও শেষ

আবহাওয়া অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চন্দ্রগ্রহণের সূচনা ঘটবে বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টা বেজে ১২ সেকেন্ডে। মেক্সিকোর ভেরাক্রুজ শহর থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে মেক্সিকো উপসাগর এসময় থাকবে কেন্দ্রীয় গতিপথে। আর প্রচ্ছায়ায় চাঁদের প্রবেশ গটবে দুপুর ১টা ১৮ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে। মেক্সিকোর সুকর্ণ দ্বীপ থেকে উত্তর-পশ্চিম দিকে উত্তর প্রশান্ত মহাসাগরে এসময় থাকবে কেন্দ্রীয় গতিপথ। মূলত এই সময়ই শুরু হবে মূল চন্দ্রগ্রহণ।

এদিকে, কেন্দ্রীয় গ্রহণের শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টা ২ মিনিট ৫৪ সেকেন্ডে। এসময় কেন্দ্রীয় গতিপথে থাকবে যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই দ্বীপ থেকে পূর্ব দিকে উত্তর প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা। বিকেল ৪টা ৪৭ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে প্রচ্ছায়া থেকে চাঁদ বেরিয়ে যেতে শুরু করবে। এরপর উপচ্ছায়া থেকে চাঁদ বেরিয়ে যাবে সন্ধ্যা ৬টা ৫ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে।

নাসা জানিয়েছে, এর আগে সবচেয়ে বেশি সময় ধরে আংশিক চন্দ্রগ্রহণ হয়েছিল ১৪৪০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি। সেবার ৩ ঘণ্টা ২৮ মিনিট ৪৭ সেকেন্ড স্থায়ী ছিল গ্রহণ। আজকের চন্দ্রগ্রহণের পর আবার এরকম দীর্ঘ সময়ের জন্য চাঁদে গ্রহণ লাগবে আরও প্রায় ছয়শ বছর পর। ২৬৬৯ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি আংশিক গ্রহণের স্থায়িত্ব হবে ৩ ঘণ্টা ৩০ মিনিট ২ সেকেন্ড।

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন