বিজ্ঞাপন

কাল শুরুতেই দুই-তিন উইকেট নিতে চায় বাংলাদেশ

November 27, 2021 | 6:07 pm

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম থেকে: দ্রুত ছয় উইকেট হারিয়ে আজ চট্টগ্রাম টেস্টে দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনেই গুটিয়ে গেল বাংলাদেশ। পরে বাকি দুই সেশন বোলিং করেও পাকিস্তানের একটা উইকেটও ফেলাতে পারেনি স্বাগতিকরা। দুই মিলিয়ে চট্টগ্রাম টেস্টে হতাশার একটা দিনই পার করল বাংলাদেশ। দিন শেষে লিটন দাস জানালেন, ম্যাচে ফিরতে আগামীকাল তৃতীয় দিনের শুরুতেই পাকিস্তানের দুই-তিন উইকেট তুলে নিতে চায় বাংলাদেশ।

বিজ্ঞাপন

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর চট্টগ্রাম টেস্টের শুরুটাও হয়েছিল যাচ্ছে-তা। প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে ৪৯ রান তুলতেই চার উইকেট হারিয়ে বসে মুমিনুল হকের দল। তবে এরপর লিটন কুমার দাস ও মুশফিকুর রহিম দুর্দান্ত এক জুটি গড়ে বাংলাদেশকে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যান। সেই চার উইকেটেই ২৫৩ রান তুলে কাল প্রথম দিনের খেলা শেষ করেছিল বাংলাদেশ। প্রত্যাশা ছিল আজ আরও অনেকটা পথ পারি দেবে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইনআপ। কিন্তু সেই প্রত্যাশা পূরণ হলো না।

দিনের শুরুতেই ফিরে যান সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাস (১১৪)। সেঞ্চুরি মিস করে ফিরেছেন মুশফিকুর রহিম (৯২)। লোয়াড অর্ডারে এক মেহেদি হাসান মিরাজই (৩৮*) যা একটু রান পেলেন। বাকিদের কেউ দাঁড়াতেই পারেননি। ফলে ২৫৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শুরু করা বাংলাদেশ গুটিয়ে গেল ৩৩০ রানেই। হতাশাটা আরও বেড়ে গেল দিনের বাকি সময়ে।

বিজ্ঞাপন

আজ দ্বিতীয় ও তৃতীয় সেশনের পুরোটা ব্যাটিং করেও যে পাকিস্তানের একটা উইকেটও নিতে পারল না বাংলাদেশ। বিনা উইকেটে ১৪৫ রান তুলে আজ দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছে পাকিস্তান। ম্যাচে এখন পাকিস্তানই এগিয়ে। দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসে লিটন জানালেন, আগামীকাল তৃতীয় দিন দ্রুত দুই-তিনটা উইকেট তুলে নিতে চায় বাংলাদেশ। যাতে ম্যাচে ফেরা যায়।

লিটন বলেন, 'ম্যাচে পাকিস্তান এখন এগিয়ে। ওদের যে রানটা উঠেছে এই রানে যদি দুই-তিনটা উইকেট পড়ত স্কোরটা দেখতেও ভালো লাগত। আমার যদি আগামীকাল সকাল সকাল দুই-তিনটা উইকেট তুলে নিতে পারি তাহলে কিন্তু ম্যাচটা সমান অবস্থানে আসবে। ম্যাচ কেমন হবে এখনই সেটা বলা যাচ্ছে না, কারণ খেলা মাত্র দুই দিন শেষ হলো। আমি আর মুশফিক ভাই কাল যেভাবে খেলছিলাম আজও যদি সেভাবে কিছুটা সময় খেলতে পারতাম তাহলে আমাদের স্কোর হয়তো ৪০০ বা ৪৫০ থাকত। তখন সিনারিটা অন্য রকম থাকত। বা আমরা যদি দুই-তিন উইকেট নিতে পারতাম তাহলেও সিনারি অন্য রকম থাকত। কাল যদি আমরা দ্রুত দুই-তিন উইকেট তুলে নিতে পারি বিষয়টা অন্য রকম হবে।’

বিজ্ঞাপন

আজ নিশ্চিতভাবেই বোলিং ইনিংসে সাকিব আল হাসান ও তাসকিন আহমেদকে মিস করছিল বাংলাদেশ। সাকিব গত এক যুগ ধরেই বাংলাদেশের সেরা বোলার। নতুন রূপে ফেরা তাসকিন বছরখানেক ধরে বোলিং করছেন দুর্দান্ত। দুজনেই ইনজুরির কারণে খেলতে পারছেন না এই টেস্ট।

বাংলাদেশ বোলিং আক্রমণ তাই দুর্বল কিনা? এমন প্রশ্নে লিটন বলেন, ‘না, দুর্বল বোলিং লাইনআপ বলা যাবে না। যারা খেলছেন তারা সবাই টেস্ট বোলার। রাহি (আবু জায়েদ চৌধুরী), ইবাদত (হোসেন) দুজনেই ভালো বোলার। তাইজুল-মিরাজকে নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। আমি মনে করি, আমাদের বোলিং ডিপার্টমেন্ট ভালো।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএইচএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন