বিজ্ঞাপন

ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধে ‘বাঁচাও’

December 1, 2021 | 4:05 pm

ফিচার ডেস্ক

দেশের একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে ‘ধর্ষণ’ প্রতিরোধে সকলেরই ভূমিকা রাখা উচিত। ধর্ষণ প্রতিরোধে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করার জন্য তৈরি হয়েছে অ্যাপ ‘বাঁচাও’। এটি তৈরি করেছে বাঁচাওডটলাইফ ফাউন্ডেশন।

বিজ্ঞাপন

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জালাল মির্জা বলেন, 'একটি ব্যক্তিগত ঘটনা আমাকে বাঁচাও অ্যাপ তৈরিতে অনুপ্রাণিত করে। নৃশংস হামলা এবং ধর্ষণের ঘটনার মধ্য দিয়ে আমার বোনের বিয়ে শেষ হয়ে গিয়েছিল। আমার মা কখনোই এ বর্বরতা মেনে নিতে পারেননি। এমনকি তার মৃত্যুর দিন পর্যন্ত ঘটনাটি তাকে তাড়িয়ে বেড়িয়েছে। মৃত্যুশয্যায় তিনি আমাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, একজন সফল কম্পিউটার প্রকৌশলী হিসেবে আমার বোনের মতো অসহায় নারীদের বাঁচানোর জন্য আমি কিছু করতে পারি কি না। ওই রাতেই তিনি মারা যান। ওই একটি প্রশ্নই আমাকে বাঁচাও প্রকল্প শুরু করতে প্ররোচিত করেছিল।'

তিনি জানান, বাঁচাও জিপিএস প্রযুক্তি ব্যবহার করে এবং নিবন্ধিত স্বেচ্ছাসেবকদের উপর অনেক বেশি নির্ভর করে। অ্যাপটি ডাউনলোড করার পর যে কেউ স্বেচ্ছাসেবক হতে পারবেন। বিপদে পড়া কেউ 'রেপ এলার্ট' লাল বোতাম টিপলে লাইভ জিপিএস ম্যাপে আশেপাশের সব স্বেচ্ছাসেবকদের দেখা যাবে।

বিজ্ঞাপন

জালাল বলেন, 'স্বেচ্ছাসেবকরা তখন লাইভ জিপিএস ম্যাপে, দূরত্ব ও দিক নির্দেশনাসহ ভুক্তভোগীর অবস্থান দেখতে পারবেন। তার সঙ্গে স্বেচ্ছাসেবকরা মেসেজিং ও অডিও কলের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারবেন। এলার্টের সময় থেকে ২০ মিনিটের মধ্যে ভুক্তভোগী নিরাপদ না হলে, কাছাকাছি অবস্থানের পুলিশকে তার সঠিক অবস্থান ও ফোন নম্বরসহ ঘটনার তথ্য দিয়ে সতর্ক করা হবে। নিরাপদ অবস্থায় গেলে, ভুক্তভোগী 'সেফ নাও' সবুজ বোতাম টিপতে পারেন।'

বাঁচাও চলতি বছরের ২ অক্টোবর যাত্রা শুরু করে। এটি একটি বিনামূল্যের অ্যাপ, যা গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করা যায়। এটি বাঁচাওডটলাইফের ওয়েবসাইট (Bachao.com.bd) এবং ফেসবুক পেজ (facebook.com/BachaoFoundation) থেকেও ডাউনলোড করা যাবে।

বিজ্ঞাপন

বাঁচাওডটলাইফে একটি অলাভজনক সামাজিক সংস্থা। ফাউন্ডেশনটি সরকারিভাবে নিবন্ধিত। এর লক্ষ্য বাংলাদেশে যৌন নিপীড়নের ঘটনা কমানো।

জালাল বলেন, 'আমরা চলতি বছরের নভেম্বরেই অ্যাপটির একটি নতুন সংস্করণ আনার পরিকল্পনা করছি। স্মার্টফোন নেই বা কম্পিউটিং সাক্ষরতা নেই, গ্রামাঞ্চলের এমন ব্যবহারকারীদের জন্য একটি সাধারণ এসএমএস ইন্টারফেস থাকবে এতে। আমরা একটি শর্ট কোডের জন্য বিটিআরসির সঙ্গে যোগাযোগ করেছি, যাতে অ্যাপ ও সিস্টেম ব্যবহার করার জন্য মানুষ সহজে এসএমএস পাঠাতে পারে।'

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেডএস

বিজ্ঞাপন

Tags: ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন