বিজ্ঞাপন

‘দেশের অধিকাংশ বিমানবন্দরের রানওয়ে গরু-ছাগলের অবাধ বিচরণক্ষেত্র’

December 1, 2021 | 6:03 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশের বেশিরভাগ বিমানবন্দরে বিমান ওঠানামা করে ঝুঁকি নিয়ে। অধিকাংশ বিমানবন্দরের রানওয়ে গরু-ছাগল ও কুকুরের অবাধ বিচরণক্ষেত্র। এমনকি জেলা ও বিভাগীয় বিমানবন্দরগুলোতে নেই প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা। সেজন্য রানওয়েগুলোর চারদিকে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার পদক্ষেপ নিতে সুপারিশ করেছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১ ডিসেম্বর) জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। কমিটির সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী’র সভাপতিত্বে কমিটির সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এবং আশেক উল্লাহ রফিক আহমদ বৈঠকে অংশ নেন।

সংসদ সচিবালয় সূত্র থেকে জানা গেছে, মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়েতে বিমান উড্ডয়নের সময় গরু মারা যাওয়ার ঘটনায় সংসদীয় কমিটির সদস্যরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এ সময় তারা দ্রুত কক্সবাজার বিমানবন্দরের রানওয়েতে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার জন্য সুপারিশ করেন।

বিজ্ঞাপন

সংসদ সচিবালয় জানায়, বৈঠকে পর্যটন খাতকে শিল্পে পরিণত করার উদ্দেশ্যে এবং এ খাতের সেবা মানুষের দোড়গোড়ায় পৌঁছে দিতে বিস্তারিত আলোচনা হয়। আলোচনায় পর্যটন খাতকে আধুনিকায়ন করার জন্য পানি, নৌ-পরিবহন, কৃষি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়সহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে গঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠক করে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য পরামর্শ দিয়েছে সংসদীয় কমিটি।

বৈঠকে পর্যটন খাতে বিকশিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ও সম্ভাবনাময় দর্শনীয় স্থানগুলো নিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ কর্মপরিকল্পনা (প্রস্তাবনা) প্রণয়নের জন্য চার সদস্যবিশিষ্ট একটি সাব-কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটি দেশের সব বিমানবন্দরের সার্বিক অবস্থাসহ দেশের যেসব জেলায় পর্যটন কেন্দ্র রয়েছে সেগুলো ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ার আদলে আধুনিকায়ন করার জন্য একটি মাস্টার প্ল্যান করতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এছাড়া সুন্দরবন, কুয়াকাটা, কিশোরগঞ্জের হাওর অঞ্চল এবং ময়মনসিংহ পাহাড়ি অঞ্চলের গাড়ো এলাকার পর্যটন কেন্দ্রগুলো আরও আধুনিকায়ন করার জন্য পরামর্শ দেয় কমিটি।

বৈঠকে বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএইচএইচ/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন