বিজ্ঞাপন

দেশে ভালো ডাক্তার আছেন, খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে উঠবেন: তথ্যমন্ত্রী

December 2, 2021 | 5:21 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিষয়ে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, খালেদা জিয়া এর আগেও অসুস্থ ছিলেন। দেশেই চিকিৎসা নিয়ে তিনি সুস্থ হয়েছিলেন। আমাদের দেশে এখন অনেক ভালো ভালো ডাক্তার আছেন, আশা করি খালেদা জিয়া দেশেই চিকিৎসা নিয়ে আবার সুস্থ হয়ে উঠবেন।

বিজ্ঞাপন

রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে জহুর হোসেন চৌধুরী মিলনায়তনে মেধাবৃত্তি অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী এ সব কথা বলেন। মেধাবৃত্তি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিল (ডিএসইসি)।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে রাজনীতি করাই বিএনপির উদ্দেশ্য। আর দলটির সেই উদ্দেশ্যে সরকার সহযোগিতা করতে পারবে না। আমরা আশা করি খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে উঠবেন।’

বিজ্ঞাপন

ছাত্র আন্দোলন প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘নিরাপদ সড়কের দাবিতে ছাত্ররা আন্দোলন করছে। এই আন্দোলনের জন্য আমরা ধন্যবাদ জানাই। আমরাও নিরাপদ সড়ক চাই। ছাত্রদের দাবি-দাওয়া এরইমধ্যে কিছু কিছু পূরণ করা হয়েছে। বেসরকারি বাস মালিকরা ছাত্রদের হাফ ভাড়ার বিষয়টি মেনে নিয়েছে। চট্টগ্রামেও ছাত্ররা যেন হাফ ভাড়া দিতে পারে সেই আলোচনা চলছে।’

ছাত্রদের আন্দোলনকে পুঁজি করে কোনো গোষ্ঠী যেন রাজনৈতিক স্বার্থ আদায় করতে না পারে সে বিষয়ে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এক শ্রেণির লোক আছে তারা পরগাছার মতো। অন্যের ওপর ভর করে ফায়দা লুটতে চায়। ওদের সেই উদ্দেশ্য কোনোদিনও সফল হবে না।’

বিজ্ঞাপন

সরকারকে নামাতে গিয়ে ফখরুলরা পড়ে যাবে: খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসা দেওয়ার সুযোগ না দিলে সরকারকে টেনে-হিঁচড়ে নামানো হবে— মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ভেবেছিলাম আজকের মেধাবৃত্তি অনুষ্ঠানে এই বিষয়ে কোনো কথা বলব না। কিন্তু সাংবাদিকদের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে বলতে হচ্ছে— মির্জা ফখরুল ইসলামরা সাড়ে ১২ বছর ধরেই সরকারকে টেনে-হিঁচড়ে নামানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু সরকারকে নামাতে গিয়ে দড়ি ছিঁড়ে তারা পড়ে যাচ্ছেন। আমি ফখরুল সাহেবকে বলব, সরকারকে টেনে-হিঁচড়ে নামাতে গেলে আপনারা নিজেরাই আবার পড়ে যাবেন।’

রাজপথ ছেড়ে ক্লাসে ফিরে যাও: রাজধানীর রামপুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় এক শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনা উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাসে আগুন দেওয়া ভিডিও কোনো কোনো গণমাধ্যম সরাসরি লাইভ করে। সরাসরি সম্প্রচার করার সময় গণমাধ্যমকর্মীদের বিষয়টি ভাবতে হবে। সমাজের এ ঘটনার বিরূপ প্রভাব থাকতে পারে। কারণ এর সঙ্গে গোটা দেশের সম্মান জড়িত।’

বিজ্ঞাপন

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘একটি শ্রেণি ছাত্রদের এ আন্দোলনকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। রামপুরার ঘটনা রাজনৈতিক ফায়দা নেওয়ার অংশ বলেও অনেকেই অভিমত দিয়েছেন। একটি শ্রেণি আছে, তারা পরগাছা। কোনো ইস্যু পেলেই তারা সেটির ওপর ভর করে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে চাই। তবে আমি তাদের উদ্দেশে বলব, এ সব করে কোনো ফায়দা হবে না।’

‘এখন রাজপথ ছেড়ে ছাত্রদের উচিৎ ক্লাসে ফিরে যাওয়া। করোনায় আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় অনেক ক্ষতি হয়েছে। এ ক্ষতি পুষিয়ে নিতে হবে’— বলেন ড. হাছান মাহমুদ।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের আয়োজনে সংগঠনটির সদস্যদের মেধাবী সন্তানদের মধ্যে পুরস্কার দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সভাপতি মামুন ফরাজী। সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসান হৃদয় ও যুগ্ম সম্পাদক জাওহার ইকবাল খান।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জামালপুর-৫ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মো. মোজাফফর হোসেন, দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট বলরাম পোদ্দার, সাম্প্রতিক দেশকাল পত্রিকার সম্পাদক ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ, কেএসবি গ্রুপের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ এ হোসাইন দীপু প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ঢাকা সাব-এডিটরস (ডিএসইসি) কাউন্সিলের বর্তমান ও সাবেক নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

সারাবাংলা/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন