বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞান-প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মেলাতে গবেষণায় জোর প্রধানমন্ত্রীর

January 13, 2022 | 12:30 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রতিনিয়ত সারাবিশ্বব্যাপী বিজ্ঞানের প্রভাব বেড়েছে, প্রযুক্তি ব্যবহারের প্রভাব বেড়েছে। এই বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে আমাদেরকেও বিশেষভাবে দৃষ্টি দিয়ে গবেষণায় সবসময় নজর দিতে হবে। আমরা আজকে এগিয়ে যেতে পেরেছি গবেষণালব্ধ জ্ঞান ব্যবহার করতে পেরেছি বলেই। প্রযুক্তির ব্যবহার আমরা বৃদ্ধি করতে পেরেছি। যার ফলে মানুষ আজকে উন্নত জীবন পাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে নবনির্মিত জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্সের উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি আগারগাঁও জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্স প্রান্তে যুক্ত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারের বিভিন্ন মেয়াদে বিজ্ঞান গবেষণা ও প্রযুক্তি খাতে উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে তা বাস্তবায়ন করার প্রসঙ্গ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আমরা বিজ্ঞান ও গবেষণার ওপর জোর দিয়েছি। বিজ্ঞান ও গবেষণায় যাতে সকলে এগিয়ে আসে তার জন্যই এসব পদক্ষেপ গ্রহণ করে ব্যবস্থ নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, বিজ্ঞান-প্রযুক্তির এই উন্নত যুগে যেসব দেশ বৈজ্ঞানিক গবেষণায় এগিয়ে যাচ্ছে, তারাই অর্থনৈতিকভাবে দ্রুত উন্নতি করতে পারছে। কাজেই আমাদের উন্নতি করতে হলে পরে অবশ্যই গবেষণা একান্তভাবে প্রয়োজন।

‘আমরা একটা জায়গায় একটু পিছিয়ে আছি। সেটা হচ্ছে স্বাস্থ্যবিষয়ে গবেষণাটা আমাদের দেশে খুব কম হচ্ছে। খুব কম চিকিৎসক আছে, আসলে তারা রোগীর সেবা দিতেই যতটা আগ্রহী, ঠিক ততটা আগ্রহ গবেষণার দিকে নেই। হাতেগোনা কয়েকজনেই নিয়মিত গবেষণা করেন। তবে এক্ষেত্রে আমরা পদক্ষেপ নিচ্ছি, আমাদের স্বাস্থ্য বিষয়ে গবেষণাটা একান্তভাবে দরকার। তবে অন্যান্য গবেষণায় এখন আমরা যথেষ্ট এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের এগিয়ে যেতেই হবে।’ তাই মৌলিক গবেষণার পাশাপাশি প্রয়োগিক গবেষণার ওপর জোর দিতে সংশ্লিষ্ট গবেষকদের প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

বিজ্ঞাপন

গবেষণা ছাড়া উৎকর্ষতা লাভ করা যায় না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্র অর্জন করতে গেলে আমাদের গবেষণা একান্তভাবে দরকার। কাজেই আমাদের সবাইকে একটু গবেষণার দিকে নজর দেওয়া দরকার। আর তাছাড়া আমাদের দেশীয় সম্পদ যা আছে, আমাদের অনেক অমূল্য সম্পদ রয়ে গেছে, যা এখনো আমরা ব্যবহার করতে পারিনি বা ধরাছোঁয়ার বাইরে। সেইগুলো আমাদের খুঁজে বের করতে হবে এবং তার ওপর গবেষণা করতে হবে। সেগুলো যাতে আমাদের দেশের মানুষের কাজে লাগে- এ বিষয়ে আমাদের বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা এখন উন্নয়নশীল দেশ। উন্নয়নশীল দেশের মর্যদা পেয়েছি। কাজেই উন্নয়নশীল দেশ হিসাবে আমাদের সামনে দিকে এগিয়ে যেতে হবে। বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশ হিসাবে গড়ে তুলতে হবে।

বিজ্ঞাপন

জাতির পিতা এই বাঙালি জাতিকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখতেন জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ক্ষুধা দারিদ্র্যে জর্জরিত শোষিত-বঞ্চিত একটি মানবগোষ্ঠী তাদের সার্বিক উন্নয়নেই তিনি তার জীবনটাকে উৎসর্গ করেছিলেন। আর তাদের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে অর্থনৈতিক অধিকার, তাদের রাজনৈতিক অধিকার, সাংস্কৃতিক অধিকার নিশ্চিত করা, সামাজিক অধিকার নিশ্চিত করা এবং এই জাতিকে আর্থ সামাজিকভাবে উন্নতি করাই ছিল জাতির পিতার লক্ষ্য।

আওয়ামী লীগ যখন থেকে সরকারে এসেছে জাতির পিতার সেই লক্ষ্য সামনে নিয়েই কাজ করেছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এ কারণেই আজকে আমরা দারিদ্র্যের হার কমাতে সক্ষম হয়েছি। স্বাক্ষরতার হার ৭৫ শতাংশের মতো করতে পেরেছি। আমাদের চিকিৎসা সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছি। খাদ্য নিরাপত্তার সঙ্গে সঙ্গে পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা নিয়েছি। কৃষি ক্ষেত্রে গবেষণায় যথেষ্ট সফলতা অর্জন করেছি। এই গবেষণা আমাদের চলমান থাকবে, থাকতেই হবে।

বিজ্ঞাপন

নবনির্মিত জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্সের উদ্বোধনের বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, আজকে অনেক দিনের প্রচেষ্ঠার একটা ফসল হচ্ছে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্স ভবন। আসলে একটা জায়গা দরকার হয় সবসময়, যেখানে আমাদের সবাই বসে গবেষণা করতে পারবে। জানতে পারবে বা সবাই এক জায়গায় মিলিত হতে পারবে। নিজেদের চিন্তাভাবনা আদান-প্রদান করতে পারবে। অবশেষে এই প্রতিষ্ঠানটি তৈরি হল, সেটাই হচ্ছে সবথেকে বড় কথা।

এ সময় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট দেখা দিয়েছে এবং এই ভ্যারিয়েন্টটা দ্রুত ছড়াচ্ছে। এক-একটা পরিবারসহ আক্রান্ত হচ্ছে। সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলতে হবে। ইতোমধ্যেই যেসকল নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সেগুলো সবাইকে মানতে হবে। আর যারা ভ্যাকসিন নেননি তাদের দ্রুত ভ্যাকসিন নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ মুনির চৌধুরী।

সারাবাংলা/এনআর/এনএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন