বিজ্ঞাপন

ইউক্রেনে সামরিক টুপি সহায়তা দিচ্ছে জার্মানি, মেয়র বাকরুদ্ধ

January 27, 2022 | 2:31 am

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

সম্ভাব্য রুশ হামলা মোকাবিলায় ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর জন্য সহায়তা হিসেবে ৫ হাজার হেলমেট পাঠাচ্ছে জার্মানি। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) জার্মান প্রতিরক্ষামন্ত্রী ক্রিস্টিন ল্যামব্রেখট এ ঘোষণা দেন। তবে জার্মান সরকারের এমন ঘোষণা ইউক্রেনে সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। দেশটির রাজধানী কিয়েভের মেয়র, প্রাক্তন বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বক্সার ভিটালি ক্লিটসকো বার্লিনের এমন সহায়তাকে রসিকতা বলে অভিহিত করেছেন। কিয়েভের মেয়র জানান, জার্মান সরকারের এমন রসিকতায় বাকরুদ্ধ তিনি। রয়টার্সের খবর।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য যে, রুশ আগ্রাসন মোকাবিলায় ইউক্রেনকে সামরিকভাবে শক্তিশালী করতে পশ্চিমা দেশগুলো কিয়েভে ব্যাপক সহায়তা পাঠাচ্ছে। যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র কানাডার মতো ন্যাটোর সদস্য দেশগুলো ইউক্রেনে ইতিমধ্যে ভারী অস্ত্র, গোলাবারুদ পাঠিয়েছে। অন্য কয়েকটি দেশও ইউক্রেনকে সামরিক সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তবে ন্যাটোর অন্যতম সদস্য জার্মানি সংঘাতপূর্ণ এলাকায় অস্ত্র পাঠাতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। যদিও ইতিমধ্যে ইউক্রেনে একটি ফিল্ড হাসপাতাল পাঠানোর কথা জানিয়েছে বার্লিন।

ন্যাটোর অন্যতম সদস্য হয়েও ইউক্রেনে সামরিক সহায়তা পাঠাতে অনীহার কারণে পশ্চিমা বিশ্বে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে জার্মানি। এমন অবস্থায় পরিস্থিতি কিছুটা সামাল দিতে বুধবার দেশটির ফেডারেল প্রতিরক্ষামন্ত্রী ক্রিস্টিন ল্যামব্রেখট বলেন, ‘ইউক্রেনে কিছু সামরিক সরঞ্জাম পাঠানো হবে। বিশেষ করে মিলিটারি হেলমেট পাঠানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়েছে।’ জার্মান কর্তৃপক্ষের এমন ঘোষণায় সমালোচনা আরও বেড়েছে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন-

উল্লেখ্য যে, ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেল ওয়ালেস জার্মান সফর করছেন। বার্লিনে বেল ওয়েলসের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ইউক্রেনে সামরিক টুপি পাঠানোর সিদ্ধান্ত জানান ক্রিস্টিন ল্যামব্রেখট।

বিজ্ঞাপন

ল্যামব্রেখট বলেন, ‘জার্মান সরকারের অবস্থান হলো—আমরা কোনো সংকটপূর্ণ এলাকায় প্রাণঘাতী অস্ত্র পাঠাবো না। কারণ আমরা পরিস্থিতিতে ইন্ধন যোগাতে চাই না। আমরা অন্য উপায়ে অবদান রাখতে চাই।’ তিনি জানান, জার্মানি ইতিমধ্যে ইউক্রেনে একটি ফিল্ড হাসপাতাল সরবরাহ করছে এবং এখনও শান্তিপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে স্থির রয়েছে।

এসময় ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেল ওয়ালেস অন্য দেশের সিদ্ধান্তকে বিচার করতে আগ্রহী নন জানিয়ে বলেন, ‘অবশ্যই যুক্তরাজ্যের একটি দৃষ্টিভঙ্গি রয়েছে। আমরা মনেকরি বর্তমান পরিস্থিতিতে ইউক্রেনের প্রাণঘাতী অস্ত্রের প্রয়োজন। তবে আমরা অন্য দেশের সিদ্ধান্ত বিচারের জন্য বসে নেই।’

বিজ্ঞাপন

ইউক্রেনে সমালোচনা 

যুদ্ধ সামনে রেখে জার্মানির এমন সহায়তায় সন্তুষ্ট নন ইউক্রেনের বহু রাজনীতিবিদও। প্রাক্তন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন বক্সার ভিটালি ক্লিটসকো—যিনি নিজে বহু বছর জার্মানিতে কাটিয়ে পরে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের মেয়র হয়েছেন—তিনি বার্লিনের এমন প্রস্তাবকে অপ্রীতিকর বলে মনে করছেন।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম বিল্ডকে তিনি বলেন, ‘জার্মান সরকারের আচরণ আমাকে বাকরুদ্ধ করেছে। জার্মান প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আসলে বুঝতে পারেনি যে, আমরা পূর্ণসজ্জিত রুশ বাহিনীর মুখোমুখি হয়েছি। রুশরা যেকোনো সময় ইউক্রেনে হামলা চালাতে পারে।’

মেয়র ক্লিটসকো জার্মানির হেলমেট সহায়তাকে রসিকতা অভিহিত করে বলেন, ‘এর পরে জার্মানরা কী ধরনের সহায়তা পাঠাবে— বালিশ?’

তবে বার্লিনে নিযুক্ত ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত এ সহায়তাকে জার্মানির প্রতীকী সমর্থন হিসেবে দেখছেন। তিনি জার্মানির এ আচরণকে স্বাগত জানালেও সামরিক টুপি সহায়তা তার দেশের জন্য যথেষ্ট নয় বলে উল্লেখ করেন। ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত জানান, তার দেশের কয়েক হাজার সৈন্যের জন্য সামরিক সরঞ্জামের প্রয়োজন রয়েছে, কিন্তু প্রয়োজনীয়তার দিক থেকে হেলমেট তালিকার শীর্ষে ছিল না।

বার্তাসংস্থা রয়টার্সকে তিনি বলেন, ‘আমরা আনন্দিত যে, অন্তত জার্মান সরকারের চিন্তাভাবনায় পরিবর্তন লক্ষ্য করছি। তবে আমাদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্র।’

আরও পড়ুন

সারাবাংলা/আইই

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন