বিজ্ঞাপন

শিরোপার আশা ছেড়ে দিয়েছিলেন ইমরুল

February 18, 2022 | 11:49 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

শেষ ১৮ বলে ১৮ রানের দরকার ছিল বরিশালের। উইকেটে তখনও অভিজ্ঞ ডুয়েন ব্রাভো আর নাজমুল হোসেন শান্ত। সেখান থেকে সুনীল নারিন, মোস্তাফিজু রহমান এবং শহিদুল ইসলামের দুর্দান্ত বোলিংয়ে ১ রানে ফাইনাল জিতে শিরোপা উল্লাস কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের। এমন শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ জয়ের আশা এক পর্যায়ে ছেড়েই দিয়েছিলেন কুমিল্লার অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। ম্যাচ শেষে সংবাদসম্মেলনে সে কথাই জানালেন টানা দ্বিতীয়বার কুমিল্লা শিরোপা এনে দেওয়া অধিনায়ক।

বিজ্ঞাপন

শেষ দুই ওভারে জয়ের জন্য বরিশালের দরকার ছিল ১৬ রানের উইকেটে নাজমুল হোসেন শান্ত এবং তওহিদ হৃদয়। ১৯তম ওভারে মোস্তাফিজুর রহমান বল হাতে এসে দ্বিতীয় বলেই তুলে নেন নাজমুল হোসেন শান্তকে। আর ওই ওভারে দেন মাত্র ৬ রান। এতে শেষ ওভারে বরিশালের জয়ের জন্য দরকার পড়ে আরও ১০ রানের। ১০ রান আটকাতে কুমিল্লার অধিনায়ক বল তুলে দেন শহিদুল ইসলামের হাতে।

২০তম ওভারের প্রথম বলটি ডট দেন শহিদুল। পরের দুই বলে একটি করে রান নেন তওহিদ এবং মুজিব, চতুর্থ বলটি ওয়াইড হলে শেষ তিন বলে বরিশালের দরকার হয় ৭ রানের। পরের দুই বলে দুটি ডাবল নিলে শেষ বলে বরিশালের জয়ের জন্য দরকার থাকে আর তিন রানের। তবে শেষ বলে একটি রানই নিতে পারে বরিশাল। আর এতেই ১ রানের রুদ্ধশ্বাস জয় পায় কুমিল্লা। আর ভিক্টোরিয়ান্সরা মাতে তৃতীয় শিরোপা জয়ের উল্লাসে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে অবশ্য ১৮তম ওভারে সুনীল নারিন মাত্র ২ রান দিয়ে তুলে নিয়েছিলেন ডুয়েন ব্রাভোর গুরুত্বপূর্ণ উইকেটটি। আর তাতেই সহজ হয়ে যায় মোস্তাফিজ আর শহিদুলদের কাজ। তাই তো ম্যাচ শেষে অবিশ্বাস্য জয়ের কৃতিত্ব বোলারদেরই দিয়েছেন ইমরুল।

ইমরুল বলেন, ‘এটি অবিশ্বাস্য ম্যাচ। আমি কখনোই প্রত্যাশা করিনি যে জিতবো কিন্তু আল্লাহকে ধন্যবাদ। আমরা খুব ভালো শুরু করেছিলাম কিন্তু মাঝের দিকে প্রচুর ভুল করেছিলাম। তবে এরপরে মঈন এবং রনি (আবু হায়দার) দারুণ শেষ করেছে। সৈকত দারুণ শুরু করেছিল, আমাদের বোলাররা মাঝের দিকে ভালো বোলিং করেছে।’

বিজ্ঞাপন

নিজে আশা হারিয়ে ফেললেও মাঠে সাহায্য নিয়েছেন দুই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার নারিন এবং ডু প্লেসিসের কাছ থেকে। তাদের সঙ্গে বোলারদেরও ভূয়সী প্রশংসা করেছেন শিরোপাজয়ী অধিনায়ক।

‘এমন ফাইনাল ম্যাচে সাহসী এবং ঠাণ্ডা থাকা প্রয়োজন। এটা করতে পারলে আপনি সফল হতে পারবেন। সুনীল নারিন এবং ফাফ ডু প্লেসিস মাঠে আমাকে সহায়তা করেছে। এটা পুরোটাই দলীয় কাজ। বোলাররা দারুণ করেছে। বিশেষ করে সুনীল এবং তানভীর ইসলাম। উভয় দলই মাঠে ভুল করেছে।’

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন: রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে বরিশালকে হারিয়ে কুমিল্লার তৃতীয় শিরোপা

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন