বিজ্ঞাপন

রমনায় বৈশাখ বরণের প্রস্তুতি— সাজছে মঞ্চ-বসছে সিসি ক্যামেরা

April 8, 2022 | 11:45 am

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দুয়ারে বঙ্গাব্দ ১৪২৯। পহেলা বৈশাখে নতুন বছরকে বরণ করে নিতে তাই চলছে নানা ধরনের প্রস্তুতি। করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে বাংলা নববর্ষ বরণের উন্মুক্ত আয়োজন দুই বছর ছিল স্তিমিত। এ বছর সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় ফের ফিরে আসছে মঙ্গল শোভাযাত্রা, ফিরে আসছে রমনা বটমূলের ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (৮ এপ্রিল) রমনা পার্কে গিয়ে দেখা যায়, রমনা বটমূলে চলছে মঞ্চ সাজানোর কাজ। ছায়ানটের কর্মীদের তত্ত্বাবধানে সেই কাজ চলছে। একইসঙ্গে বৈশাখের আয়োজন ঘিরে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা দিতে গোটা এলাকা ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার (সিসি ক্যামেরা) আওতায় আনতে কাজ করছে গণপূর্ত অধিদফতর।

ছায়ানটের কর্মীরা বলছেন, দুই বছর পর পহেলা বৈশাখের উৎসব আয়োজন ফিরে আসায় সবার মধ্যে অত্যন্ত উৎসাহ-উদ্দীপনা ও ভালো লাগা কাজ করছে। এ বছর আগের মতোই জমজমাট পহেলা বৈশাখ হবে বলে আশা করছেন তারা।

বিজ্ঞাপন

রমনা পার্কে সার্বক্ষণিক দায়িত্বে থাকা উপসহকারী প্রকৌশলী শামসুল ইসলাম সারাবাংলাকে বলেন, গত দুই বছর বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে পহেলা বৈশাখ উদযাপন হয়নি। এ বছর পহেলা বৈশাখ উদযাপন করা হবে। তবে সংক্রমণ পরিস্থিতি ও নিরাপত্তা বিবেচনায় কিছু শর্ত আরোপ করা হয়েছে। কিছু সময় নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পার্কে প্রবেশের সময় সবাইকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে।

উপসহকারী প্রকৌশলী শামসুল ইসলাম জানান, পহেলা বৈশাখের দিন সকাল ৫টায় রমনা পার্ক খুলে দেওয়া হবে। ৬টায় ছায়ানটের প্রোগ্রাম শুরু হয়ে চলবে সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে। এরপর পার্ক সকাল ১১টা পর্যন্ত খোলা রাখা হবে। পরে বিকেল ৩টায় দর্শনার্থীর জন্য রমনা পার্ক খুলে দেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

নিরাপত্তার দিকটি বিশেষভাবে বিবেচনা করা হচ্ছে বলেও জানান কর্তব্যরত এই প্রকৌশলী। তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখের আয়োজন ঘিরে পুলিশ ও প্রশাসনের মাধ্যমে রমনা পার্কে দুই শতাধিক সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হচ্ছে। এসব সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে গোটা এলাকা কঠোরভাবে মনিটরিং করা হবে। এছাড়া রমনা বটমূলের পূর্ব পাশে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব) ও গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) নিয়ন্ত্রণে অস্থায়ী কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হবে।

রমনা পার্কে স্থায়ী কিছু সিসি ক্যামেরা স্থাপনের কাজও চলছে। হকার বা ছিনতাইকারীদের উপস্থিতি শনাক্ত ও অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে পূর্ত অধিদফতরের তত্ত্বাবধানে পার্কের প্রবেশের সাতটি গেটে এবং ভেতরের বিভিন্ন স্থানে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের কাজও চলছে সমানতালে। পূর্ত দফতরের এই সিসি ক্যামেরার নিয়ন্ত্রণের জন্য পার্কের হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের পেছনের দিকের অংশে স্থাপন করা হচ্ছে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএইচএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন