বিজ্ঞাপন

পতেঙ্গা সৈকত ইজারা ‘সর্বনাশা সিদ্ধান্ত’, প্রতিরোধের আহ্বান

May 13, 2022 | 11:30 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত বেসরকারি খাতে ইজারা দেয়ার প্রক্রিয়াকে ‘সর্বনাশা সিদ্ধান্ত’ উল্লেখ করে সংগঠিত প্রতিরোধের আহ্বান জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদ আনু মুহাম্মদ।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (১৩ মে) সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের এস রহমান হল মিলনায়তনে এক সেমিনারে তিনি এ আহ্বান জানান। ‘সর্বজনের অধিকার– পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত বেসরকারিকরণ’ শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করে বাসদ (মার্কসবাদী)।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘সর্বজনের উম্মুক্ত স্থান পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের একাংশ উন্নয়নের নামে ইজারা দিলে এবং প্রবেশের জন্য টিকেট ধার্য করলে সর্বজনের স্বীকৃত প্রবেশাধিকার হরণ হবে। প্রাকৃতিকভাবে গড়ে ওঠা এই সৈকতের বিকৃতি তো ঘটবেই, সৈকতে দুই ধরনের বৈষম্যমূলক ব্যবস্থা তৈরি হবে। প্রাণবৈচিত্র্যের শহর চট্টগ্রামে উন্নয়নের নামে যাচাইবাছাই ছাড়া একের পর এক প্রকল্প নেয়া হয়েছে। এর ফলে গত কয়েক বছরে ঢাকার মতো চট্টগ্রামও জঞ্জালে পরিণত হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

সর্বনাশা প্রকল্প প্রতিরোধের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সিআরবিতে বাণিজ্যিক হাসপাতাল নির্মাণ এবং পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের একাংশ বেসরকারি খাতে ইজারা দেয়া- উভয়ই সর্বনাশা সিদ্ধান্ত। সর্বনাশা প্রকল্পের মাধ্যমে সর্বজনের সম্পদের ওপর মুনাফালোভী গোষ্ঠী আগ্রাসন চালাচ্ছে। এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে। চট্টগ্রামকে বাঁচাতে হবে। কন্ঠ জোরদার করতে হবে। কলম-তুলিতে সোচ্চার হতে হবে। সংগঠিত প্রতিরোধ করতে হবে।’

সেমিনারে কবি ও সাংবাদিক আবুল মোমেন বলেন, ‘উন্নয়নের ধাক্কায় মাস্টারপ্ল্যান পরিত্যক্ত হয়ে গেছে। চট্টগ্রামের বিশেষ প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য ও সৌন্দর্যের কথা কেউ বিবেচনা করছে না। ফয়সলেককে বিত্তবানদের বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত করা হয়েছে। পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতকেও বিত্তবানদের বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত করার প্রক্রিয়া চলছে। আমরা এটা হতে দিতে পারি না। পতেঙ্গা সৈকত বাঁচাও, সর্বোপরি চট্টগ্রাম বাঁচাও- আন্দোলন শুরু করতে হবে।’

বিজ্ঞাপন

মুক্তিযুদ্ধের গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘সিআরবির পর লুটপাটকারী মাফিয়া গোষ্ঠীর লোলুপ দৃষ্টি পড়েছে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের ওপর। উন্মুক্ত সৈকতকে উন্মুক্তই রাখতে হবে। সিডিএ নগর উন্নয়নের প্রতিষ্ঠান। তাদের কোনো অধিকার নেই সৈকত ইজারা দেয়ার। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এই প্রক্রিয়া প্রতিরোধ করতে হবে।’

বাসদ (মার্কসবাদী) চট্টগ্রাম জেলার আহবায়ক মানস নন্দীর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব শফি উদ্দিন কবির আবিদের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন- নগর পরিকল্পনাবিদ সুভাষ বড়ুয়া, গণমুক্তি ইউনিয়নের সভাপতি রাজা মিঞা, চট্টগ্রাম জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন দলের জেলা সদস্য ইন্দ্রানী ভট্টাচার্য সোমা।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন