বিজ্ঞাপন

দেশে প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন নভেম্বরে

May 14, 2022 | 2:32 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আগামী নভেম্বরে দেশে প্রথমবারের মতো ৩৭তম ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন অনুষ্ঠিত হবে। দেশের পোশাক খাতকে আরও ব্যান্ডিং করতে একইসঙ্গে সপ্তাহব্যাপী মেইড ইন বাংলাদেশ উইক পালিত হবে। ১২ থেকে ১৮ নভেম্বর ঢাকায় ৩৭তম আইএএফ ফ্যাশন কনভেশন, ৩৭তম ঢাকা অ্যাপারেল সামিট, ঢাকা অ্যাপারেল এক্সপজিশন, ডেনিম এক্সোসহ বিভিন্ন অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠিত হবে।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (১৪ মে) রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। ইন্টারন্যাশনাল অ্যাপারেল ফেডারেশন (আইএএফ), বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ এর যৌথ উদ্যোগে ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানে এসব আয়োজনের বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আইএএফের সেক্রেটারি ম্যাথিজস ক্রিয়েটি ও বিকেএমইএর ভাইস প্রেসিডেন্ট ফজলে শামীম এহসান।

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, মেইড ইন বাংলাদেশ উইক নামের এই প্রোগ্রামটি ১২-১৮ নভেম্বর সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠিত হবে। সপ্তাহব্যাপী এই আয়োজনে থাকবে ৩৭তম আইএএফ ফ্যাশন কনভেশন, ৩৭তম ঢাকা অ্যাপারেল সামিট, ঢাকা অ্যাপারেল এক্সপজিশন, ডেনিম এক্সো, এওয়ার্ড সিরেমনিস লাইক- জিআইজি দ্যা সাসটেইনেবল লিডারশিপ (টিএসএল) এওয়ার্ড, সাসটেইনবেল ফ্যাশন এওয়ার্ড এন্ড ফ্যাশন ফটোগ্রাফি এওয়ার্ড, ফ্যাশন ও কালচারাল ফেস্টিভ্যাল, গ্লোবাল লাউঞ্চিং অব বিজিএমইএ ইনোভেশন সেন্টার।

বিজ্ঞাপন

দেশে প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন নভেম্বরে

বিজিএমইএ সভাপতি আরও বলেন, আইএএফ ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, যার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এন্টওয়ার্পের ৩৬তম কনভেনশনের সমাপনী অনুষ্ঠানে দেওয়া হয়েছে। আইএএফের ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ৩৭তম আইএএফ ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন আয়োজন আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দ ও গর্বের বিষয়। আমরা ইতোপূর্বে ২০১৪ এবং ২০১৭ সালে দুইবার ঢাকা অ্যাপারেল সামিট আয়োজন করেছি। এ বছরেও আমরা ঢাকা অ্যাপারেল সামিটের আয়োজন করতে যাচ্ছি। এটিও আমাদের মেইড ইন বাংলাদেশ উইক এর একটি অংশ।

বিজ্ঞাপন

এতো বছর পর দেশে প্রথমবারের মতো ৩৭তম ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন অনুষ্ঠিত হওয়ার কারণ জানতে চাইলে আয়োজকরা জানান, তিন বছর আগে দেশে ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। বাংলাদেশের ৫০ বছর পূর্তিতে দেশের পোশাকখাত সংশ্লিষ্টরা এই আয়োজন করতে চেয়েছিলেন। গত বছরের নভেম্বরে করোনা থাকায় সেই বছরও এই আয়োজন করা যায়নি। এছাড়া যেহেতু আন্তর্জাতিক সংগঠনের আয়োজনে এই কনভেনশন তাই এই আয়োজন কিছুটা বিলম্ব হয়েছে।

বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, গত দুই বছরে দেশে ও দেশের বাইরে আমরা কোনো মেলা বা এক্সিবিশন করতে পারিনি। আমাদের যে সক্ষমতা এই আয়োজনের মাধ্যমে আমরা তা তুলে ধরব। সভা সেমিনার, ফটোগ্রাফের মাধ্যমে দেশের ব্রান্ডিং করা হবে। এক প্রশ্নের উত্তরে আইএএফের সেক্রেটারি ম্যাথিজস ক্রিয়েটি বলেন, ৩৭তম ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশনে ১০০ থেকে ১৫০ বায়ার কিংবা বায়ার প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে।

বিজ্ঞাপন

দেশে প্রথমবারের মতো ওয়ার্ল্ড ফ্যাশন কনভেনশন নভেম্বরে

সংবাদ সম্মেলনে বিজিএমইএ সভাপতি আরও বলেন, কাঁচামাল সংকট, জ্বালানী তেল, গ্যাস ও বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি, কন্টেইনার ও জাহাজ ভাড়া অস্বাভাবিক বৃদ্ধির কারনে আমাদের উদ্যোক্তারা ক্রমবর্ধমান উৎপাদন ব্যয় ও সাপ্লাই চেইনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে হিমশিম খাচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

ফারুক হাসান আরও বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে একদিকে যেমন জ্বালানি তেলসহ খাদ্যের মূল্য বৃদ্ধি পাচ্ছে, অন্যদিকে ইউরোপসহ বিশ্বের বেশ কিছু দেশে অর্থনৈতিক মন্দার আশঙ্কাও বাড়ছে। এর পাশাপাশি সমগ্র বিশ্বে মূল্যস্ফীতি ভয়াবহভাবে বাড়ছে, যা আন্তর্জাতিক বাজারে পোশাকের চাহিদা ও ক্রয়ক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে পারে। বিষয়টি আমাদের উদ্যোক্তাদের জন্য একটি দুশ্চিন্তার কারণ। এই পরিস্থিতিতে পোশাক রফতানিতে বর্তমানে যেই প্রবৃদ্ধিটি দেখা যাচ্ছে, সেটির দিকে না তাকিয়ে থেকে বরং কিভাবে আমরা প্রতিযোগী সক্ষমতা আরও বাড়াতে পারি, কিভাবে নতুন নতুন সুযোগ তৈরি করতে পারি, সেটিই আমাদের কৌশল হওয়া উচিত। তবে সমস্ত প্রতিকূলতার পরেও এই অর্থবছর শেষে আমাদের রফতানি ৪১ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছি। এছাড়া ২০২২ সালে বিশ্ব বাজারে আমদের শেয়ার ৭.৫ শতাংশ অতিক্রম করবে বলে আশা করি এবং ২০২৫ এর শেষ নাগাদ এই শেয়ার ১০ শতাংশ ছাড়িয়ে যেতে পারে।

সারাবাংলা/ইএইচটি/এএম

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন