বিজ্ঞাপন

কুপিয়ে কনস্টেবলের কবজি বিচ্ছিন্ন: হামলাকারীর স্ত্রী গ্রেফতার

May 16, 2022 | 5:27 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামে কুপিয়ে পুলিশ কনস্টেবলের হাত থেকে কবজি বিচ্ছিন্ন করার ঘটনায় হামলাকারীকে খুঁজে না পেলেও তার স্ত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হামলাকারীর স্ত্রীও এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামি।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১৫ মে) রাতে পার্বত্য জেলা বান্দরবানের লামা উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ওই নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শিবলী নোমান জানিয়েছেন।

এর আগে, রোববার সকাল পৌনে ১০টার দিকে চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার পদুয়া ইউনিয়নের ৯ নম্বর লালারখিল ওয়ার্ডে আসামি ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হন জনি খান নামে এক পুলিশ কনস্টেবল। আসামি কবির আহামদ কনস্টেবল জনিকে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে তার বাম হাত থেকে কবজি বিচ্ছিন্ন করে পালিয়ে যান। পুলিশ অভিযানে নিয়ে গিয়েছিল কবিরের বিরুদ্ধে মারামারির ঘটনায় দায়ের করা মামলার বাদী আবুল হোসেন কালুকেও। পালিয়ে যাওয়ার সময় কবির বাদী কালুকেও কুপিয়ে আহত করেন।

বিজ্ঞাপন

পলাতক কবির আহামদ (৩৫) লোহাগাড়ার পদুয়া ইউনিয়নের লালারখীল গ্রামের মৃত আলী হোসেনের ছেলে।

আরও পড়ুন- কুপিয়ে কনস্টেবলের কবজি বিচ্ছিন্ন করে পালাল আসামি

বিজ্ঞাপন

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শিবলী নোমান সারাবাংলাকে জানিয়েছেন, হামলার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে লোহাগাড়া থানায় কবির ও তার স্ত্রী রুবি আক্তার এবং কবিরের মাকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। কবিরসহ আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান ‍শুরুর পর বান্দরবানের লামায় তাদের অবস্থান শনাক্ত করে অভিযান চালানো হয়। তবে সেখানে শুধুমাত্র রুবিকে পাওয়া যায়।

এদিকে, আহত জনি খানকে প্রথমে লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এরপর তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রোববার বিকেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় নিয়ে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিজ্ঞাপন

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শিবলী নোমান জানিয়েছেন, কনস্টেবল জনি খান শঙ্কামুক্ত আছেন। হাতের বিচ্ছিন্ন অংশ প্রতিস্থাপনে এক দফা অস্ত্রোপচার হয়েছে। তবে প্রতিস্থাপনের জন্য আরও দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা প্রয়োজন বলে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন।

সারাবাংলা/আরডি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন