বিজ্ঞাপন

২ শিশুকে নিয়ে জাপান যেতে আপিল বিভাগে মায়ের আবেদন

May 17, 2022 | 2:13 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: গ্রীষ্মকালীন ছুটি সামনে রেখে দুই শিশুকে সঙ্গে নিয়ে জাপান ভ্রমণে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আবেদন করেছেন তাদের মা জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১৭ মে) সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ আবেদন করা হয়। নাকানো এরিকোর আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, শিশুদের গ্রীষ্মকালীন ছুটি সামনে রেখে জাপানে ভ্রমণের অনুমতি চেয়ে আপিল বিভাগে নাকানো এরিকো আবেদন করেছেন।

বিজ্ঞাপন

জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকোর আবেদনে বলা হয়েছে, দুই মেয়ে শিশুকে নিয়ে বাংলাদেশে অনেক দিন কাটিয়েছেন তিনি। এখন গ্রীষ্মকালীন ছুটি সামনে রেখে তারা বেড়ানোর জন্য দেশের বাইরে যেতে চান। সেটা জাপানেও হতে পারে।

এর আগে, গতকাল (১৬ মে) দুই শিশুর সঙ্গে দেখা করার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ আদালতের আদেশ অনুসরণ না করার অভিযোগ এনে শিশুদের বাবা বাংলাদেশি নাগরিক ইমরান শরীফের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে অভিযোগ দায়ের করেন নাকানো এরিকো। এরপর দিনই দুই শিশুকে নিয়ে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে এই আবেদন করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালতে শুনানি হতে পারে বলেও জানান আইনজীবী শিশির মনির।

এর আগে, গত ১৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পারিবারিক আদালতে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত দুই শিশু তাদের মা নাকানো এরিকোর কাছে থাকবে বলে রায় দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। পাশাপাশি এ বিষয়ে দেওয়া হাইকোর্টের রায় বাতিল করা হয়। এবং তিন মাসের মধ্যে পারিবারিক আদালতে থাকা মামলাটি নিষ্পত্তি করতে সংশ্লিষ্ট আদালতকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

একইসঙ্গে এই সময়ে নাকানো এরিকো শিশুদের নিয়ে দেশত্যাগ করতে পারবেন না এবং বাবা ইমরান শরীফ শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন বলে আদেশ দিয়েছেন আদালত।

আপিল বিভাগের রায়ে বলা হয়, মামলা চলাকালে নাকানো এরিকো শিশুদের নিয়ে দেশত্যাগ করতে পারবেন না। তবে বাবা ইমরান শরীফ শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, গত বছরের ২১ নভেম্বর দুই শিশু বাংলাদেশে তাদের বাবা ইমরান শরীফের কাছে থাকবে বলে রায় দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। রায়ে বলা হয়, তবে জাপান থেকে এসে মা বছরে তিন বার ১০ দিন করে দুই সন্তানের সঙ্গে একান্তে সময় কাটাতে পারবেন। জাপানি মায়ের আসা-যাওয়া ও থাকা-খাওয়ার সব খরচ বাবা ইমরান শরীফকে বহন করতে হবে।

সারাবাংলা/কেআইএফ/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন