বিজ্ঞাপন

মাংকিপক্স শনাক্ত হওয়ার তথ্য ভিত্তিহীন: বিএসএমএমইউ

May 23, 2022 | 8:20 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) একজন ব্যক্তির শরীরে বিশ্বব্যাপী নতুন আতঙ্ক হিসেবে ছড়িয়ে পড়া মাংকিপক্স শনাক্ত হয়েছে বলে তথ্য ছড়িয়েছে বিভিন্ন মাধ্যমে। তবে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষ বলছে, তথ্যটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও গুজব। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কেউ প্রতিষ্ঠানটির নাম ব্যবহার করে এমন কাজ করেছে। আগামী বৃহস্পতিবার (২৬ মে) প্রতিষ্ঠানটি মাংকিপক্স নিয়ে সচেতনতামূলক সেমিনার করবে বলেও জানিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (২৩ মে) সারাবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ ও হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নজরুল ইসলাম।

বিএসএমএমইউ হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল নজরুল ইসলাম বলেন, হাসপাতালে কোনো রোগী ভর্তি হলে তার তথ্য আমার কাছে আসবেই। আমার কাছে যতটুকু তথ্য আছে, তাতে মাংকিপক্সে আক্রান্ত কোনো রোগী আমাদের এখানে ভর্তি হয়নি।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, আমাদের হাসপাতাল বিভাগ থেকে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়ে সতর্ক থাকা হচ্ছে। বিকেল থেকে অনেকেই মাংকিপক্স রোগী শনাক্তের বিষয়ে জানতে চাচ্ছেন। পরে আমরা জানতে পেরেছি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কে বা কারা এমন গুজব ছড়িয়েছে।

আরও পড়ুন-

বিজ্ঞাপন

মাংকিপক্স শনাক্ত হওয়ার তথ্য ভিত্তিহীন: বিএসএমএমইউ

এ বিষয়ে বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের মাংকিপক্স রোগে আক্রান্ত কেউ শনাক্ত হয়নি আমাদের এখানে। কেউ হয়তো উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য এ ধরনের গুজব ছড়িয়েছে। এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার মাংকিপক্স সচেতনতার জন্য সেমিনারের আয়োজন করা হবে বলে জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

গত কয়েকদিন ধরেই বিশ্বে নতুন করে আতঙ্ক ছড়াতে শুরু করেছে মাংকিপক্স রোগটি। সবশেষ তথ্য বলছে, বিশ্বের ১৫টি দেশে সংক্রামক এই রোগে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, নেদারল্যান্ডস, কানাডা, স্পেন, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড, ইসরায়েলের মতো দেশ রয়েছে এই তালিকায়।

জানা যায়, ১৯৫৮ সালে প্রথম বানরের মধ্যে এই রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। পরবর্তী সময়ে রোগটি মানবশরীরেও ছড়িয়ে পড়ে। জনস্বাস্থ্যবিদরা জানাচ্ছেন, এই ভাইরাসে আক্রান্ত বেশিভাগ রোগী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই সুস্থ হয়ে যায়। এ রোগে প্রাণহানির সংখ্যাও খুবই কম। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার কিছু দেশে হাজার হাজার মানুষে এ ভাইরাসে সংক্রামিত হয়েছে। তবে ইউরোপ ও উত্তর আফ্রিকায় সংক্রমণের ঘটনা এটি প্রথম।

বিজ্ঞাপন

নতুন এই আতঙ্ক নিয়ে অবশ্য এরই মধ্যে সতর্ক অবস্থান নেওয়ার কথা জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। দেশের বিমান, স্থল ও নৌবন্দরগুলোতে এ সংক্রান্ত সতর্কতা জারি করা হয়েছে। বন্দরগুলোতে এরই মধ্যে মাংকিপক্সের স্ক্রিনিংও শুরু হয়েছে।

সারাবাংলা/এসবি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন