বিজ্ঞাপন

‘মুজিব চলচ্চিত্রে কিছু ভুল থাকতেই পারে’

May 26, 2022 | 4:42 pm

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপন্ডেন্ট

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বাংলাদেশ-ভারত সরকারের প্রযোজনায় নির্মিত হয়েছে ‘মুজিব: একটি জাতির রূপকার’। সম্প্রতি ছবিটির ট্রেলার প্রকাশিত হয়েছে। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এ সমালোচনার জবাব দিয়েছেন ছবিটির পরিচালক শ্যাম বেনেগাল ও প্রধান অভিনেতা আরিফিন শুভ। এবার জবাব দিয়েছেন ছবির লাইন প্রডিউসার মোহাম্মদ হোসেন জেমি। তিনি বলছেন, ছবিটিতে কিছু ভুল থাকতে পারে, তবে ইতিহাসের কোন বিকৃতি ঘটেনি।

বিজ্ঞাপন

নিজের ফেসবুক ওয়ালে দেওয়া দীর্ঘ এক স্ট্যাটাসে জেমি সমালোচনার জবাব দেন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘গান্ধী ছবিতেও অনেক ডিটেইলে ভুল রয়ে গেছে। যেগুলো ইতিহাস বিকৃতির পর্যায়ে পড়ে। এছাড়াও ছবির কন্টিনিউটিতে আছে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ভুল। ১৯৪৭ সনে ভারত-পাকিস্তান বিভক্তির সময় পাকিস্তানের পতাকা উত্তোলনের দৃশ্যে পাকিস্তানের জাতীয় সংগীত ব্যাকগ্রাউন্ডে সংযোজিত হয়েছিল। অথচ সেই সংগীতটি তৈরি হয়েছিল ১৯৪৯ সালে। এরপরও সব ভুল ছাপিয়ে গান্ধী চলচ্চিত্রকে একটি ঐতিহাসিক দলিল হিসেবে ধরা হয়। মুজিব চলচ্চিত্রে কিছু ভুল থাকতেই পারে। আমার বিশ্বাস সেগুলো অতিক্রম করে বাঙালির চেতনা এবং মননে বঙ্গবন্ধুর প্রতি যে গভীর শ্রদ্ধা আছে সেটা সমুন্নত থাকবে বায়োপিক দেখার পরেও।’

তিনি দাবি করেন, যারা সমালোচনা করছে তারা দুই ভাগে বিভক্ত। এক ভাগ গঠনমূলক সমালোচনা করছে। অন্যরা শুধু সমালোচনার জন্য সমালোচনা করছে। জেমি লেখেন, ‘যেখানে সৃষ্টি আছে সেখানে সমালোচনা থাকবেই। গঠনমূলক সমালোচনা যে কোনো সৃষ্টির জন্য ইতিবাচক। যারা শুধু সমালোচনা করার জন্য সমালোচনা করেন তাদের উচিত হবে মুক্তির পরে ছবিটি সম্পূর্ণ দেখা।’

বিজ্ঞাপন

বঙ্গবন্ধুর চেহারার সঙ্গে আরিফিন শুভর চেহারা কোনভাবে মিলে নাই, ট্রেলার প্রকাশের পর দর্শকরা এমনটাই বলছে দর্শক। জেমি এরও জবাব দিয়েছেন, ‘গান্ধী চলচ্চিত্রে গান্ধীর চরিত্রে রূপদানকারী বেন কিংসলে প্রায় গান্ধীর মতোই দেখতে ছিলেন। এই বিষয়টি ব্যতিক্রম একটি উদাহরণ। অনেক চলচ্চিত্র আছে, যার জীবনী নিয়ে চলচ্চিত্র তার সাথে রূপদানকারী শিল্পীর চেহারা এবং শারীরিক গঠনের মিল নেই। যেমন আমেরিকার নেইশন অফ ইসলামের নেতা ম্যালকম এক্স এর জীবনী ভিত্তিক চলচ্চিত্রে ম্যালকম এর চরিত্রে রূপদানকারী ডেনজেল ওয়াশিংটন এর সাথে ম্যালকম এক্স এর তেমন কোনো মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি। Invictus ছবিতে ম্যান্ডেলার চরিত্রে রূপদানকারী মরগান ফ্রিম্যান এর সাথে ম্যান্ডেলার চেহারা এবং শারীরিক গঠনের অনেক পার্থক্য রয়েছে। বিখ্যাত জ্যাজ সিঙ্গার রে' চার্লস এর বায়োপিকে রে চার্লসের চেহারার সাথে অভিনয়শিল্পী জেমি ফক্স এর তেমন কোনো মিল নেই। বলিউড অভিনেতা সঞ্জয় দত্তের জীবনী ভিত্তিক চলচ্চিত্র 'সঞ্জু'তে সঞ্জয়ের বাবা সুনীল দত্তের চরিত্রে রূপদানকারী অভিনয় শিল্পী পরেশ রাওয়ালের বিন্দুমাত্র মিল নেই।’

বিজ্ঞাপন

ট্রেলারে যারা শব্দ ও ছবির মিল না পেয়ে যারা ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ এনেছেন তাদের উদ্দেশ্যে লেখেন, ‘ট্রেলারের অনেক কারিগরি অংশের সমালোচনাও ভিত্তিহীন এবং সিনেমা না বোঝার অপরিপক্কতা। ট্রেলারে অডিও এবং ভিডিও প্রিল্যাব এবং ওভারল্যাপ করা হয়। সময়কে সংকুচিত করার জন্য এক জায়গার অডিও অন্য জায়গায় বসিয়ে দেওয়া হয়। এতে করে দেখা এবং শোনার পরিধি বেড়ে যায় সংকুচিত সময়ের মধ্যে।’

তবে তিনি হলিউডের ছবির তুলনায় এ ছবির বাজেট অপ্রতুল ছিল বলে লেখেন। একই সঙ্গে এও লেখেন, সমালোচকদের উচিত হবে ছবিটি মুক্তির পর কয়েক বার দেখে তারপর সমালোচনা করা।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেডএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন