বিজ্ঞাপন

ফল ঘোষণার পর পুনঃনির্বাচনের এখতিয়ার নেই ইসির: আপিল বিভাগ

May 31, 2022 | 10:55 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঢাকা: ফলাফল ঘোষণার পর নির্বাচন বাতিল কিংবা পুনঃনির্বাচন করার এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নেই— নির্বাচন কমিশনের আপিল শুনানি শেষে হাইকোর্টের দেওয়া এমন রায় বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (৩১ মে) বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান, বিচারপতি বোরহান উদ্দিন ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের সমন্বয়ে গঠিত আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খুরশিদ আলম খান। আদেশের পর তিনি বলেন, গত বছর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের মেনকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মেনকি ফান্দা ভোটকেন্দ্রে ভোটের পর রিটার্নিং কর্মকর্তা ফল ঘোষণা করেন। পরে নির্বাচন কমিশন তদন্ত করে ওই ফল বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের ঘোষণা দেয়। আমরা উচ্চ আদালতে সেটাকে (পুনঃনির্বাচন) চ্যালেঞ্জ করেছিলাম।

বিজ্ঞাপন

খুরশিদ আলম খান বলেন, আদালত বলেছিলেন, নির্বাচন কমিশন ভোটগণনা করে ফল ঘোষণা করে দিয়েছে। আর ফল ঘোষণার পর নির্বাচন কমিশনের একমাত্র দায়িত্ব হলো গেজেট জারি করা। সে ক্ষেত্রে কেউ বিক্ষুব্ধ হলে তাকে গেজেট জারির ৩০ দিনের মধ্যে নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালে যেতে হবে। এ ক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশন ফল বাতিল করতে পারে না এবং পুনঃনির্বাচনও দিতে পারে না।

খুরশিদ আলম খান আরও বলেন, এ বিষয়ে হাইকোর্ট রায়ের ব্যাখ্যা দিয়ে বলেছেন— এ বিষয়ে (ফল বাতিল ও পুনঃনির্বাচন) নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার নেই। পরে নির্বাচন কমিশন একে চ্যালেঞ্জ করে আপিল বিভাগে যায়। গতকাল (৩০ মে) এ বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ রায়ের জন্য দিন নির্ধারণ করা ছিল।

বিজ্ঞাপন

জ্যেষ্ঠ এই আইনজীবী বলেন, রায়ে নির্বাচন কমিশনের আপিল খারিজ করে হাইকোর্টের রায় বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। এর ফলে একটি আইনি ব্যাখ্যা স্পষ্ট হলো— ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আইন-২০০৯ ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আইনের বিধি-২০১০ অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন কোনো নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করার পর ওই ফল বাতিলের এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের নেই। ফলাফল ঘোষণার পর নির্বাচন কমিশন পুনরায় নির্বাচন করার এখতিয়ারও রাখে না। আর নির্বাচনি বিরোধে কোনো পক্ষ সংক্ষুব্ধ হলে তাকে প্রতিকারের জন্য নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালেই যেতে হবে। আমি মনে করি, আপিল বিভাগের এই রায়ের ফলে নির্বাচন কমিশন ভবিষ্যতে এই ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকবে।

এর আগে, ২০২১ সালে নেত্রকোনার দুর্গাপুর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ওই ইউনিয়নের মেনকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মেনকি ফান্দা ভোটকেন্দ্রের ফলাফল বাতিল করে ফের ভোটগ্রহণের জন্য নতুন তারিখ নির্ধারণ করে ইসির দেওয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন হাইকোর্ট। গত বছরের ২২ ডিসেম্বর বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহীম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ ওই আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী এ কে এম আজাদ হোসেন।

তারও আগে ২০২১ সালের ২৮ নভেম্বর নেত্রকোনার দুর্গাপুর ইউনিয়নের নির্বাচন ভোটগ্রহণ শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. শাহীনুর আলম নৌকা প্রতীক নিয়ে পান ৬ হাজার ৫২৬ ভোট। অন্যদিকে আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সাদেকুল ইসলাম ৬ হাজার ৮৪৭ ভোট পেয়ে জয়ী হন।

বিজ্ঞাপন

ফল ঘোষণার পর দুর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেনকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মেনকি ফান্দা ভোটকেন্দ্রের ভোটের ফলাফল বাতিল করে গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর পুনঃনির্বাচনের দিন ঠিক করে নির্বাচন কমিশন। পরে নির্বাচন কমিশনের পুনঃনির্বাচনের জন্যে জারি করা আদেশ চ্যালেঞ্জ করে গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর হাইকোর্টে রিট করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. সাদেকুল ইসলাম।

ওই রিটের শুনানি নিয়ে দুর্গাপুর ইউনিয়নের মেনকি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মেনকি ফান্দা ভোটকেন্দ্রের ফলাফল বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন হাইকোর্ট। পরে হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশন আপিল করে। আজ (মঙ্গলবার) নির্বাচন কমিশনের আপিল খারিজ করে হাইকোর্টে রায় বহাল রাখলেন আপিল বিভাগ।

ফাইল ছবি

সারাবাংলা/কেআইএফ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন