বিজ্ঞাপন

টেলিটক গ্রাহক মাত্র ৩.৭%— সংসদে টেলিযোগাযোগমন্ত্রী

June 7, 2022 | 7:29 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে মোবাইল ফোনের ব্যবহার গত এক দশকে ব্যাপকভাবে বাড়লেও মোট গ্রাহকের মধ্যে রাষ্ট্রয়াত্ত মোবাইল অপারেটর টেলিটকের গ্রাহক সংখ্যা মাত্র ৩ দশমিক ৭০ শতাংশ। আর সর্বোচ্চ ৪৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ গ্রাহক নিয়ে অপারেটরগুলোর মধ্যে শীর্ষে রয়েছে গ্রামীণফোন।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (৭ জুন) সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সংসদ সদস্য নুর উদ্দিন চৌধুরীর এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

মন্ত্রী বলেন, গ্রাহকসংখ্যার ভিত্তিতে গ্রামীণফোনের মার্কেট শেয়ার ৪৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ, রবির ২৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ, বাংলালিংকের ২০ দশমিক ৮৫ শতাংশ এবং টেলিটকের তিন দশমিক ৭ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, গ্রামীণফোনের মার্কেট শেয়ার বেশি থাকায় সব অপারেটরদের একই কলরেট নির্ধারণ করা হলে গ্রামীণফোনের সেবার প্রতি গ্রাহক আকর্ষণ বেড়ে যাবে। ফলে তার মার্কেট শেয়ার আরও বাড়তে পারে। এ অবস্থায় ছোট অপারেটরদের মার্কের্টের অবস্থান বাধাগ্রস্ত হবে।

আরেক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী আশাবাদ জানান, ২০২৩ সালের মধ্যে সারাদেশে টেলিটকের নেকওয়ার্ক বিস্তৃত হবে। মন্ত্রী রাষ্ট্রায়ত্ত এই মোবাইল অপারেটরের গ্রাহক হওয়ার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান।

বিজ্ঞাপন

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মোস্তাফা জব্বার বলেন, মোবাইল ফোনে কল ড্রপ ও নেটওয়ার্কের সমস্যা একটি বড় সংকট। এমন কেউ নেই, যিনি কল ড্রপের শিকার হননি। অনেক জায়গায় নেটওয়ার্ক পাওয়া যায় না।

তিনি বলেন, গ্রাহক অনুযায়ী অপারেটরগুলোর যে পরিমাণ তরঙ্গ নেওয়া দরকার, তারা তার তিন ভাগের এক ভাগও নেয়নি। সরকারের চাপে গত মার্চে তরঙ্গ বাড়িয়েছে। আগামী ডিসম্বরের মধ্যে এই তরঙ্গ সম্পূর্ণ সম্প্রসারণ করা হলে সমস্যার অনেকটা সমাধান হবে। এ সময়ের মধ্যে কোম্পানিগুলো তরঙ্গ সম্পূর্ণ সম্প্রসারণ করতে না পারলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া ও জরিমানা করার সুযোগ আছে।

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী বলেন, জরিমানা বা কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা হলো— ব্যবস্থা নিলেই কোম্পানিগুলো আদালতের দ্বারস্থ হয়।

সারাবাংলা/এএইচএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন