বিজ্ঞাপন

মোবাইল আর্থিক সেবাসহ ব্যবসায় কর সহজ করতে ৯ প্রস্তাব

June 9, 2022 | 11:57 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার টেকসই করতে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য বেশকিছু সুবিধার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেছেন, আর্থিক অন্তর্ভুক্তি, অর্থনীতির আনুষ্ঠানিকীকরণ ও ব্যাবসায় কর পরিপালন সহজ করা জাতীয় অর্থনীতির জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অভীষ্ট। এ ক্ষেত্রে মোবাইল আর্থিক সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর সার্ভিস চার্জকে উৎসে আয়করের আওতামুক্ত রাখাসহ ৯টি প্রস্তাব রয়েছে বাজেটে।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে এই প্রস্তাবগুলো তুলে ধরেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতি তিনি প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেন।

আরও পড়ুন-

বিজ্ঞাপন

মোবাইল আর্থিক সেবাসহ ব্যবসায় কর সহজ করতে ৯ প্রস্তাব

আর্থিক অন্তর্ভুক্তি, অর্থনীতির আনুষ্ঠানিকীকরণ ও ব্যাবসায় কর পরিপালন সহজ করতে অর্থমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে যে ৯টি প্রস্তাব রেখেছেন সেগুলো হলো—

বিজ্ঞাপন

ক) বিনিয়োগজনিত আয়কর রেয়াতের হার রেয়াতযোগ্য বিনিয়োগের ১৫ শতাংশ করা;

খ) মোবাইল আর্থিক সেবা (এমএফএস) ব্যবসার সার্ভিস চার্জকে উৎসে আয়করের আওতা বর্হিভূত রাখা;

বিজ্ঞাপন

গ) বিদ্যমান আইনে ব্যবসায়ের Pre-commencement expenditure খরচ হিসেবে দাবি করার বিধান না থাকায় এই খরচ অ্যামোটাইজেশনের বিধান প্রবর্তন করা;

ঘ) বিদ্যমান আইনে Research and Development খাতে ব্যয় অনুমোদনের সুনির্দিষ্ট বিধান না থাকায় ওই খাতকে সংজ্ঞায়িত করে এ খাতের ব্যয় অনুমোদনযোগ্য করা;

বিজ্ঞাপন

(ঙ) পারকুইজিট খাতে অনুমোদনযোগ্য ব্যয়সীমা ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা থেকে ১০ লাখ টাকায় উন্নীত করা;

(চ) Workers’ Profit Participation Fund (WPPF)-এ কোম্পানির অনুদানকে খরচ হিসেবে অগ্রাহ্যের বিধান করা। বাংলাদেশ শ্রম আইন, ২০০৬ অনুযায়ী WPPF এ অনুদানের বিধান রয়েছে এবং কোম্পানির কর পরবর্তী মুনাফা হতে এটি প্রদেয়;

(ছ) আয়কর আইনে ক্ষতি সমন্বয় ও জের টানার সুস্পষ্ট বিধান থাকায় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের রিজার্ভকে অননুমোদনযোগ্য ব্যয় হিসেবে গণ্য করা;

(জ) কর জাল (Tax net) সম্প্রসারণের লক্ষ্যে হোটেল, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও ট্রান্সপোর্ট এজেন্সিকে উৎসে কর কর্তনকারী কর্তৃপক্ষ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা; এবং

(ঝ) হাঁস-মুরগির খামার এবং সব হ্যাচারি ও মৎস্য চাষ থেকে উদ্ভূত আয়ের ওপর অভিন্ন কর হার আরোপ করা।

আরও পড়ুন-

সারাবাংলা/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন