বিজ্ঞাপন

ক্ষণ গুনছে পদ্মা সেতুর আদলে গড়া ছাত্রলীগের কাউন্টডাউন টাইমার

June 24, 2022 | 9:15 pm

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের মাথা ঘেঁষে দাঁড়িয়ে আছে পদ্মা সেতু! না, সত্যি সত্যি পদ্মা সেতু নয়, স্বপ্নের এই সেতু উদ্বোধন সামনে রেখে নির্মাণ করা হয়েছে কাউন্টডাউন টাওয়ার। আগামীকাল শনিবার (২৫ জুন) পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে পদ্মা সেতুর আদলে টাওয়ারটি বানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (২৪ জুন) সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে গিয়ে দেখা যায়— বাঁশ-কাঠ-বোর্ড দিয়ে পদ্মা সেতুর আদলে তৈরি করা হয়ছে একটি টাওয়ার। ২৫ ফুট উচ্চতার এই টাওয়ারের প্রতীকী স্প্যানের দৈর্ঘ্য ৪৮ ফুট। এর সঙ্গেই লাগানো আছে কাউন্টডাউন ঘড়ি। ঘড়ির সংখ্যাগুলো এগিয়ে যাচ্ছে ২৫ জুন সকাল ১০টার দিকে। ওই সময়ই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলাকে বাকি অঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগের মাধ্যম এই পদ্মা সেতু।

রাত পেরোলেই শনিবার সকালে উদ্বোধন হবে সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো পদ্মা সেতু। সেই ক্ষণকে স্মরণীয় রাখার অনেকগুলো প্রয়াসের একটি ছাত্রলীগের এই আয়োজন।

বিজ্ঞাপন

ক্ষণ গুনছে পদ্মা সেতুর আদলে গড়া ছাত্রলীগের কাউন্টডাউন টাইমার

এই টাওয়ার তৈরির সার্বিক দেখভাল করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক মেহেদী হাসান সানি। সারাবাংলাকে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের উদ্যোগে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে আমরা অস্থায়ী কাউন্টডাউন টাওয়ার বানিয়েছি। স্বল্প সময় ও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া সামলেও আমরা চেষ্টা করেছি যতটাসম্ভব দৃষ্টিনন্দন টাওয়ার তৈরি করার।’

বিজ্ঞাপন

সানি বলেন, ‘কোটি কোটি মানুষের স্বপ্ন ও আবেগের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কোটি কোটি মানুষ অপেক্ষা করছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণের। আমরা সেই ঐতিহাসিক মুহূর্ত উদযাপনের উদ্দেশ্যে এই অস্থায়ী কাউন্টডাউন টাওয়ার তৈরি করেছি।’

ক্ষণ গুনছে পদ্মা সেতুর আদলে গড়া ছাত্রলীগের কাউন্টডাউন টাইমার

বিজ্ঞাপন

শনিবার সকালে ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পরই অবশ্য যানচলাচল শুরু হচ্ছে না এই সেতুতে। পরদিন ২৬ জুন সকাল ৬টা থেকে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু দিয়ে শুরু হবে যানচলাচল।

স্বপ্নের এই সেতু দেশের অর্থনীতিতে বড় ধরনের অবদান রাখবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে বলেছেন, পদ্মা বহুমুখী সেতু বাস্তবায়নের ফলে সার্বিকভাবে দেশের উৎপাদন ১ দশমিক ২৩ শতাংশ বাড়বে এবং প্রতি বছর শূন্য দশমিক ৮৪ শতাংশ হারে দারিদ্র্য কমাতে ভূমিকা রাখবে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরআইআর/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন