বিজ্ঞাপন

‘লন্ডনে বসে জঙ্গিবাদের জন্ম দিচ্ছেন তারেক’

June 28, 2022 | 10:44 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের প্রতি ইঙ্গিত করে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, একজন অর্ধশিক্ষিত যুবক লন্ডনে বসে হাওয়া ভবনকে সেখানে নিয়ে গেছেন। তিনি মনোনয়ন দেওয়া এবং কমিটি গঠনের জন্য সেখানেও নাকি টাকা নেন। ওখানে বসে উনি দুর্নীতি করছেন। জঙ্গিবাদের জন্ম দিচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২৮ জুন) সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ওপর গ্রেনেড হামলার মূল পরিকল্পনাকারী তারেক রহমান দাবি করে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, 'নেতিবাচক কাজ ছাড়া, কোনোদিন ইতিবাচক কাজ তিনি দলের জন্য, দেশের জন্য করেছেন বলে আমার মনে হয় না। আমার অবাক লাগে— এই নেতার পেছনে বিএনপির এত প্রজ্ঞাবান ও জ্ঞানী নেতারা কীভাবে সমবেত হন। সেটা ঠিক বুঝতে পারি না।'

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, 'বিএনপি নেতারা সকালে নাস্তা খেয়ে আওয়ামী লীগ, সরকার ও শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে কথা বলেন। কয়েকদিন আগে এক চক্ষু চিকিৎসক আমাকে ফোন করেছিলেন। ছানি সচেতনামূলক মাসের এক অনুষ্ঠানে আমাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তখন তাকে আমি জিজ্ঞেস করেছিলাম, ছানি পড়লে আপনারা সার্জারি করেন, মানুষ চোখে দেখতে পায়। কিন্তু যাদের চোখে ছানি নেই, চোখ খুব ভালো আছে, তারা যদি দেখতে না পায়, তাদের কী চিকিৎসা হবে? উনি বুঝতে পারেনি। বললাম, দেখেন বিএনপির নেতারা আছেন, যারা আমাদের ভালো কিছুই দেখতে পায় না। সবকিছুই খারাপ দেখতে পায়। তাদের কী চিকিৎসা হবে। উনি চিন্তা করে বললেন, উনাদেরতো চোখের চিকিৎসা হবে না, মানসিক রোগের চিকিৎসা করতে হবে, পাগলা গারদে পাঠালে সবচেয়ে ভালো হবে।'

প্রয়োজন হলে একাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠবে উল্লেখ করে সাবেক মন্ত্রী নূর বলেন, শুধু আওয়ামী লীগ নয়, দরকার হলে ১৮ কোটি মানুষ একাত্তরের হাতিয়ার নিয়ে গর্জে উঠবে। এত সহজ নয়। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর উদারতা, ভালোবাসা, মমতার সুযোগ নিয়ে স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিরা অনুপ্রবেশ ঘটিয়েছিল। আজকে কিন্তু সেটি সম্ভব নয়। আমরা প্রস্তুত ও ঐক্যবদ্ধ। আমরা শেখ হাসিনাকে ঘিরে দুর্গ গড়ে তুলেছি। সেটাকে ভেদ করার শক্তি ওই অপশক্তির নেই। তবে ওরা বসে নেই ষড়যন্ত্র করছে। দেশের নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধ, অসাম্প্রদায়িকতার চেতনায় গড়ে তুলে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে পরাভূত করা করা হবে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএইচএইচ/একেএম

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন