বিজ্ঞাপন

ডিএনসিসি’তে কুরবানির পশুর হাটে থাকছে ডিজিটাল লেনদেনের ব্যবস্থা

June 29, 2022 | 7:30 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: নিরাপদ ও সহজ লেনদেন নিশ্চিত করতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) অধীন ছয়টি পশুর হাটে ইদুল আজহার পশুর হাট চলাকালে ডিজিটাল পেমেন্ট বুথ স্থাপনের পাইলট প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে। স্মার্ট ঢাকা গড়ে তুলতে বিভিন্ন পদক্ষেপের ধারাবাহিকতায় এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২৯ জুন) দুপুরে বনানীর হোটেল শেরাটনে অনুষ্ঠিত ‘স্মার্ট বাংলাদেশ স্মার্ট হাট’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে মেয়র আতিকুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। পদ্মা সেতু হয়ে গেছে। মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ শিগগিরই শেষ হবে। কিছুদিন পর পাতাল রেলও হয়ে যাবে। এই দেশে হাটে গেলে পথে কোনো খামারির টাকা ছিনতাই হবে, সেটা মেনে নেওয়া যায় না। নিরপাদ লেনদেন নিশ্চিত করতে আমরা স্মার্ট হাটের উদ্যোগ নিয়েছি।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এ বছর ঢাকা উত্তর সিটির গাবতলীতে বসছে একমাত্র স্থায়ী পশুর হাট। আর পাঁচটি অস্থায়ী হাট বসবে বসিলা, আফতাবনগর, ভাটারা, কাওলা ও উত্তরা ১৭ নম্বর সেক্টরে। এসব হাটে ডিজিটাল লেনদেন নিশ্চিত করতে পেমেন্ট পার্টনার হিসেবে রয়েছে মাস্টারকার্ড, ভিসা ও আমেরিকান এক্সপ্রেস।

ডিএনসিসি’তে কুরবানির পশুর হাটে থাকছে ডিজিটাল লেনদেনের ব্যবস্থা

বিজ্ঞাপন

আরও জানানো হয়, ডিজিটাল পেমেন্ট বুথ স্থাপন ও পরিচালনার জন্য লিড ব্যাংক হিসেবে ছয়টি বাণিজ্যিক ব্যাংককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এগুলো হলো— ব্যাংক এশিয়া লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড ও দ্য সিটি ব্যাংক লিমিটেড। এছাড়া মোবাইল আর্থিক সেবাদাতা সংস্থা হিসেবে বিকাশ ও ইসলামী ব্যাংক এম ক্যাশ একযোগে কাজ করবে।

কেবল পশুর হাট নয়, গোটা ঢাকা সিটিকেই ডিজিটাল ও স্মার্ট করে গড়ে তোলার পরিকল্পনার কথা জানিয়ে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ডিএনসিসি এরই মধ্যে ডিজিটাল মাধ্যমে নানা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। পর্যায়ক্রমে ডিজিটাল কার্যক্রম আরও বাড়বে। ডিএনসিসি এলাকায় অধিকাংশ রিকশা অবৈধভাবে চলছে। আমরা আগামী ছয় মাসের মধ্যে রিকশাগুলোতে ডিজিটাল নম্বর প্লেট দেবো। কিউআর কোড থাকায় সব তথ্য থাকবে।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, প্রথম অবস্থায় ঢাকা শহরে দুই লাখ রিকশায় ডিজিটাল নম্বর প্লেট দেওয়া হবে। এই নম্বর প্লেট আসবে বাইরে থেকে। তাই নকল করার সুযোগও থাকবে না। ধরলেই আমরা বুঝতে পারব, নম্বর প্লেট নকল করা হয়েছে কি না।

আগামী মাসে উত্তর সিটি এলাকায় ডিজিটাল কার পার্কিং শুরুর পরিকল্পনার কথা জানান মেয়র। বলেন, স্মার্ট সিটি-স্মার্ট বাংলাদেশ-স্মার্ট ডিএনসিসি উপহার দিতে চাই। স্মার্ট ঢাকা গড়ে তোলার লক্ষ্যে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।

বিজ্ঞাপন

ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, এই ডেঙ্গুর সময় বাড়িতে বাড়িতে ছাদ বাগান চেক করা চ্যালেঞ্জ। কেউ অব্যবহৃত টায়ার রেখে দিলো কি না, ছাদ বাগান যারা করেছে তারা ঠিকমতো মেইনটেইন করছে কি না— এগুলো নজরদারি রাখা কঠিন কাজ। তবে গত ১০ দিন ধরে ড্রোনের মাধ্যমে প্রতিটি ছাদ বাগান আমরা চেক শুরু করেছি। এটি আমাদের জন্য খুব ইজি হয়ে গেছে। যেখানে আমরা লার্ভা পাচ্ছি, ওই বাড়িতে গিয়ে জরিমানা করছি। আমরা বলতে চাই, যার যার বাড়ির দায়িত্ব তার নিতে হবে। আমরা ওষুধ ছিটিয়ে দিচ্ছি। কিন্তু আপনার বাসায় আপনি যদি এডিস মশার জন্ম দেন, এর দায়-দায়িত্ব আপনাকে নিতে হবে। জেল-জরিমানা ও নিয়মিত মামলা হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, আমাদের এই বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশে পরিণত হবে। সেই পথে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের দেশের মন্ত্রী-এমপি, সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী,  ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, কৃষক, সাধারণ মানুষসহ সব শ্রেণিপেশার সবাই মিলে আমরা দেশের জন্য কাজ করছি বলেই দেশটা এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের প্রত্যেকেরই নিজ নিজ অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালন করতে হবে এবং জবাবদিহি করতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী, ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক মো. খুরশীদ আলম, অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ লিমিটেডের (এবিবি) চেয়ারম্যান সেলিম আর এফ হোসেন, বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সাদিক এগ্রোর প্রেসিডেন্ট মো. ইমরান হোসেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের অতিরিক্ত পরিচালক শাহ জিয়া-উল হক, প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদাসহ ডিএনসিসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সারাবাংলা/এসবি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন