বিজ্ঞাপন

শ্রদ্ধা-ভালবাসায় এন্ড্রু কিশোর স্মরণ

July 6, 2022 | 10:43 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

রাজশাহী: একটার পর একটা মোমবাতিতে আগুন লাগানো হচ্ছে। দমকা বাতাস এসে নিভিয়ে দিয়ে যাচ্ছে। বাতাস কমে এলে ছেলে জয় এন্ড্রু সপ্তক ও স্ত্রী লিপিকা এন্ড্রু ইতি আবার প্রথম থেকে শুরু করছেন। প্লে-ব্যাক সম্রাটের সমাধি তখন ফুলে ফুলে ঢাকা। তার ভেতরেই মোমের আলো নিভছে, জ্বলছে। এলেন চার্চ অব বাংলাদেশের ফাদার। তার সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে সবাই গাইলেন ‘যেদিনও তোমার ঘিরিবে আঁধার ঘুচে যাবে সব আমার আমার।’

বিজ্ঞাপন

এভাবেই বুধবার (৬ জুলাই) বিকেলে রাজশাহী নগরীর শ্রীরামপুর এলাকায় দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে প্রিয় শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুবার্ষিকীতে তার ছেলে ও স্ত্রী আগেই রাজশাহীতে এসেছেন। বুধবার বিকেল চারটায় তারা এন্ড্রু কিশোরের বোন শিখা বিশ্বাসের সঙ্গে রাজশাহী নগরের শ্রীরামপুর এলাকায় অবস্থিত চার্চ অব বাংলাদেশের খ্রিষ্টিয়ান গোরস্তানে আসেন।

প্রথমেই শিখা বিশ্বাস কবরের ক্রশে একটি ফুলের মালা পরিয়ে দিলেন। তারপর গাঁদা ফুলের পাঁপড়ি ছড়ানো হলো। সমাধিতে সারিবদ্ধ ভাবে মোমবাতি বসানো হলো। একে একে সব মোমবাতিতে আগুন জ্বালানো হলো। অনেক্ষণ ধরে ছেলে সপ্তক ও স্ত্রী লিপিকা চেষ্টা করতে থাকলেন যেন মোমবাতিগুলো বাতাসে নিভে না যায়। নিভে গেলে নতুন করে জ্বালিয়ে দিতে থাকলেন।

বিজ্ঞাপন

এক পর্যায়ে চার্চ অব বাংলাদেশ-রাজশাহীর ফাদার রেভারেন্ড মিখায়েল এলেন। তিনি বাইবেল থেকে বিশেষ অংশ পাঠ করলেন। এরপর আত্মার শান্তি কামনা করে প্রার্থনায় বললেন, ‘দয়াময় পিতা আজকে তোমার যে সন্তান এই জগতে ছিল, যে সন্তানের কাজ দিয়ে তুমি মহিমান্বিত হয়েছো। আমরা বিশ্বাস করি তোমার সেই সন্তানের কর্মফলের মাধ্যমে তোমার সেই মহাস্থানে যেখানে তুমি তার জন্য স্থান প্রস্তুত করেছো, সেখানেই সে রয়েছে এবং সেই বিশ্বাস আমাদের দান কর যে, একদিন না একদিন এই জগত ছেড়ে চলে যেতেই হবে। সেই চিন্তা আমাদের জীবনে দান কর।’ সবাই মিলে একটি প্রার্থনা সংগীত গাইলেন ‘যেদিনও তোমার ঘিরিবে আঁধার ঘুচে যাবে সব আমার আমার।’

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এক প্রশ্নের জবাবে লিপিকা এন্ড্রু বলেন, ‘এন্ড্রু কিশোর আগেও যেমন জনপ্রিয় ছিলেন এখনো তিনি সমান জনপ্রিয়। ইউটিউবে ঢুকে দেখেন তার ভক্তরা তার গাওয়া গান আপলোড করছে। মানুষ আগের মতোই তার গান শুনছেন।'

বিজ্ঞাপন

নতুন প্রজন্ম তার শূন্যতা পূরণ করতে পারছে কি না, জানতে চাইলে লিপিকা বলেন, ‘এন্ড্র কিশোর এক প্রজন্মে গেয়েছেন। সেই প্রজন্মকে তিনি দিয়ে গেছেন। এখন আরেক প্রজন্ম এসেছে। নতুন প্রজন্মের শিল্পীরা তাদের মতো করে গান করছেন। এক প্রজন্মের দ্বারা আরেক প্রজন্মের রিপ্লেসমেন্ট হয় না।’

বোন শিখা বিশ্বাস বললেন, এন্ড্রু কিশোর রাজশাহীতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি রাজশাহীকে ভালোবাসতেন। তাই মাঝে মধ্যেই রাজশাহীতে ছুটে আসতেন। ওস্তাদ আব্দুল আজিজ বাচ্চু স্মৃতি সংসদ এর মাধ্যমে তিনি তৃণমূল পর্যায়ের শিল্পীদের তুলে আনার জন্য কাজ করেছেন। তার রেখে যাওয়া কাজটি আর হচ্ছে না। হয়তো সংসদ তাকে স্মরণ করছে। কিন্তু তিনি যে উদ্দেশ্য নিয়ে ছুটে আসতেন সেটি হচ্ছে না।’

বিজ্ঞাপন

বিকেল ৫টায় রাজশাহী নগরের চার্চ অব বাংলাদেশে এন্ড্রু কিশোরের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। ওস্তাদ আব্দুল আজিজ বাচ্চু স্মৃতি সংসদও একই আয়োজন করে। ২০২০ সালের ৬ জুলাই রাজশাহী নগরীর মহিষবাথান এলাকায় বোন শিখা বিশ্বাসের বাসায় এন্ড্রু কিশোর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন।

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন