বিজ্ঞাপন

৫ বছর লাগবে আশিকুর রহমানের নতুন ছবি পেতে

July 17, 2022 | 7:28 pm

আহমেদ জামান শিমুল

বুয়েট থেকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করে নির্মাতা হওয়ার স্বপ্নে আশিকুর রহমান শুরু করেছিলেন নাট্য নির্মাণ ও সিনেমাটোগ্রাফি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়ায় মাস্টার্সও করেছিলেন সে স্বপ্নের পথে হাঁটার উদ্দেশ্যে। পরিচালনা করেন ‘কিস্তিমাত’। ২০১৪ সালের কোরবানির ঈদে মুক্তি পাওয়া ছবিটি বেশ আলোচিত হয়। এরপর একে একে নির্মাণ করেন ‘গ্যাংস্টার রিটার্নস’, ‘মুসাফির’ ও ‘সুপার হিরো’। অ্যাকশন ঘরানায় বাংলাদেশের দর্শকরা তাকে বেশ ভালোভাবেই গ্রহণ করেছিলো। প্রযোজকরাও তাদের পছন্দের তালিকায় রেখেছিলেন তাকে। কিন্তু আশিকুর রহমান আপাতত এসবের বাইরে চলে গিয়েছেন। হয়েছেন অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের দর্শকরা তাকে এখনও নির্মাণে চায়, কিন্তু কেন নির্মাণ করছেন না। আগে বলেছিলেন, অস্ট্রেলিয়াতে বসে হলেও নির্মাণ করবেন, কিন্তু সেরকম কিছুই তো দেখা যাচ্ছে না?

ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার চ্যাটে সারাবাংলার এ প্রতিবেদকের সঙ্গে কথা হয় আশিকুর রহমানের। তিনি বললেন, এখানে (সিডনি) একটি বিল্ডিং কন্সট্রাকশন কোম্পানী করেছি। সে ব্যবসা নিয়ে সারাদিন ব্যস্ত থাকি। ব্যবসায়িক ব্যস্ততার মাঝে অন্য কিছুর জন্য সময় করতে পারছি না। আমার পরবর্তী ছবি আগামী ৪-৫ বছরের মধ্যেই পাবেন।

বিজ্ঞাপন

আশিকুর রহমানের প্রতিষ্ঠানের নাম অপেরা হোমস। সিডনিতে যাওয়ার পর প্রথমে এনভায়রনমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে মাস্টার্স করেছিলেন ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি থেকে। এরপর ৩ বছর ওখানকার বিভিন্ন কনস্ট্রাকশন কোম্পানীতে চাকরি করেছেন। এরপর নিজেই প্রতিষ্ঠান করেছেন। সব মিলিয়ে এ সেক্টরে ৫ বছরের অভিজ্ঞতা বলে জানালেন তিনি।

২০১৬ সালে শাকিব খানকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়াতে শুটিং শুরু করেছিলেন ‘অপারেশন অগ্নিপথ’। ছবিটি এখন পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি। কেন, কী কারণে আলোর মুখ দেখলো না ছবিটি? এমন প্রশ্নে শুধু উত্তর ‘আপনারা তো সবই জানেন’।

বিজ্ঞাপন

তবে ছবিটি আর হবে না এমনটাও বলতে চান না। ‘আমি আমার সময়, সুযোগ মতো যেভাবেই পারি ছবিটা শেষ করবো,’—বলেন আশিকুর রহমান।

অস্ট্রেলিয়ায় আছেন সাত বছর ধরে। পেয়েছেন সে দেশের নাগরিকত্ব। সেখানকার পরিচালক ও ইঞ্জিনিয়ারদের সংগঠনের সদস্যও তিনি। প্রথম দিকে প্রায়ই বাংলাদেশে আসতেন। এখন খুব একটা আসা হয় না তার। জানালেন, তিন সপ্তাহ আগে মাত্র ৫ দিনের জন্য দেশে এসেছিলেন। তাছাড়া তার পুরো পরিবার ওখানে থাকে।

বিজ্ঞাপন

প্রবাসে বাংলাদেশী কমিউনিটিগুলো বেশ সক্রিয়। তারা নিয়মিতই বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সে অনুষ্ঠানগুলোতে সময় সুযোগ পেলে অংশ নেন। তবে নিজে কোনো সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত না।

গেল কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের বিভিন্ন ছবি অস্ট্রেলিয়াতে মুক্তি পাচ্ছে। তবে আশিকুর রহমান সবশেষ রায়হান রাফির ‘পোড়ামন ২’ দেখেছিলেন সিডনির সিনেমা হলে। ‘আমি ছবিটা বেশ উপভোগ করেছিলাম’,— বলেন আশিকুর রহমান।

বিজ্ঞাপন

অনেকদিন বাংলাদেশি নিয়মিত ছবি দেখা না হলেও নিয়মিত দেশি ওয়েব সিরিজ দেখেন। সবশেষ দেখেছেন কাইজার, সিন্ডিকেট। আর সময় পেলে নাটকও দেখেন। আশিকুর রহমান বলেন, এ মুহুর্তে বাংলাদেশের তরুণ নির্মাতারা অনেক ভালো কাজ করছে। আমি খুব আশাবাদী তাদেরকে নিয়ে।

সারাবাংলা/এজেডএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন