বিজ্ঞাপন

চবিতে ছাত্রীকে ‘যৌন নিপীড়নের পর ভিডিও ধারণ’র অভিযোগ

July 18, 2022 | 9:30 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের পর আপত্তিকর ভিডিও ধারণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ছাত্রী প্রক্টর কার্যালয়ে এ বিষয়ে অভিযোগ দিতে গেলে চবি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল বাধা দেন বলেও অভিযোগ এসেছে।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১৭ জুলাই) রাত সাড়ে ১০টার দিকে চবি ক্যাম্পাসে প্রীতিলতা হলের মূল ফটকের কাছাকাছি পাহাড়ের পাদদেশে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী চবি’র একটি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ওই ছাত্রীর মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়া সারাবাংলাকে জানান, রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই ছাত্রী তার এক বন্ধুসহ প্রীতিলতা হলের সামনে দিয়ে হেঁটে বেগম খালেদা জিয়া হলের দিকে যাচ্ছিলেন। ওই বন্ধু অবশ্য চবি’র ছাত্র নন। এ সময় দু’টি মোটর সাইকেলে করে পাঁচজন এসে তাদের পথরোধ করে। বন্ধুকে মারধরের পাশাপাশি ওই ছাত্রীকে উত্যক্ত শুরু করে।

বিজ্ঞাপন

এক পর্যায়ে ছাত্রীকে পাহাড়ের পাদদেশে টেনে নিয়ে যৌন নির্যাতন করে আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে। এর পর তাদের কাছ থেকে দু’টি মোবাইল ও ৩ হাজার ৭০০ টাকা কেড়ে নিয়ে তারা চলে যায়।

প্রক্টর রবিউল হাসান বলেন, ‘সেক্সুয়াল হ্যারাসমেন্টের পর ভিডিও ধারণের বিষয়ে আমরা মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। এরপর আমরা প্রীতিলতা হল থেকে খালেদা জিয়া হল পর্যন্ত আশপাশের সব সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। সেখানে অনেক মোটরসাইকেল দেখা গেছে। চেষ্টা করছি, অভিযুক্ত কারও চেহারা শনাক্ত করতে পারি কি না। আগামীকাল (মঙ্গলবার) ওই ছাত্রী লিখিত অভিযোগ দেবেন বলে জানিয়েছেন। তখন আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

বিজ্ঞাপন

এদিকে, সোমবার দুপুরে ওই ছাত্রী প্রক্টরের কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দিতে যান। অভিযোগ পাওয়া গেছে, প্রক্টরের কার্যালয়ে আগে থেকে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগ নেতা রেজাউল হক রুবেল। তিনি সম্মানহানির দোহাই দিয়ে অভিযোগ জমা দিতে মেয়েটিকে বাধা দেন। এ সময় তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়।

জানতে চাইলে প্রক্টর রবিউল হাসান বলেন, ‘আমি ভিসি অফিসে মিটিংয়ে ছিলাম। সহকারী প্রক্টর ছিলেন। ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা সেখানে অন্য কাজে আগে থেকে ছিলেন। তখন ওই ছাত্রী অভিযোগ নিয়ে যান। কেউ বাধা দেয়ার বিষয় আমরা জানি না। তবে ওই ছাত্রী নিজেই আবার অভিযোগ জমা না দিয়ে কাল দেবে জানিয়ে চলে যান। তার মানসিক অবস্থা ভালো ছিল না।’

বিজ্ঞাপন

বাধা দেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে রেজাউল হক রুবেল সারাবাংলাকে বলেন, ‘আক্রান্ত ছাত্রী আমার ছোট বোনের মতো। আমি যখন ঘটনাটা শুনি নিজেই প্রক্টর অফিসে ফোন করে জানাই এবং এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে বলি। আজ (সোমবার) প্রক্টর অফিসে তার সাথে আমার দেখা হয়েছে। আমি বাধা দিইনি, তার সঙ্গে আমার কোনো বাকবিতণ্ডাও হয়নি। আমি বরং তাকে মানসিকভাবে সাপোর্ট দিয়েছি। কেউ আমার নামে মিথ্যা তথ্য ছড়াচ্ছে।’

উল্লেখ্য, চবি ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক রুবেল চুজ ফ্রেন্ডস উইথ কেয়ার (সিএফসি) নামের একটি উপদলেরও নেতৃত্ব দেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন