বিজ্ঞাপন

জাবির ভর্তি পরীক্ষা: ২য় শিফটে বাজিমাত, ৬ষ্ঠ শিফটেই দুর্দশা

August 4, 2022 | 3:24 pm

জাবি করেসপন্ডেন্ট

জাবি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের গাণিতিক ও পদার্থ বিষয়ক অনুষদ ভুক্ত ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ফল পর্যালোচনায় দেখা যায়, সাতটি শিফটে গড়ে ১৪ শতাংশের মতো চান্স পাওয়ার কথা সেখানে ৬ষ্ঠ শিফটে মাত্র দেড় শতাংশ (১.৫%) শিক্ষার্থী জায়গা করে নিতে পেরেছেন। প্রতি শিফটে প্রায় ১০ থেকে ১১ হাজার শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। তার মধ্যে ৬ষ্ঠ শিফটে চান্সপ্রাপ্তদের তালিকায় জায়গা করে নেয় মাত্র সাতজন পরীক্ষার্থী।

এতে দেখা যায়, শিফট বৈষম্য তার মাত্রা ছাড়িয়েছে। এই পদ্ধতিতে পরীক্ষা হওয়ায় মেধার অবমূল্যায়ন হচ্ছে বলে বারবার অভিযোগ করেছেন পরীক্ষার্থীরা। এছাড়াও ২য় শিফটে প্রায় একই পরিমাণ শিক্ষার্থী থেকে ১৪৫ জন চান্স পায়, যা মোট চান্সপ্রাপ্তদের ৩১ শতাংশেরও বেশি। এছাড়া ১ম, ৩য়, ৪র্থ, ৫ম ও ৭ম শিফটে যথাক্রমে ৯২ জন (১৯.৭%), ৩৮ জন (৮.২%), ৩০ জন (৬.৪%), ১১৮ জন (২৫.৩%) ও ৩৬ জন (৭.৭%)।

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, শুধুমাত্র 'এ' ইউনিটেই ৪১ হাজার ৫০ জন ছাত্র ও ২০ হাজার ৩৫১ জন ছাত্রী ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। এক্ষেত্রে ছাত্রীদের তুলনায় দ্বিগুনেরও বেশি ছাত্র ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। ওই ইউনিটে ছাত্রদের মধ্যে পাওয়া সর্বোচ্চ নম্বর ৮৭.৪০, আর ভর্তিচ্ছুক ছাত্রীদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বর ৮৪.৪০।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক বলেন, ‘একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল উদ্দেশ্য জ্ঞান উৎপাদন করা। যার প্রধান শর্ত মেধাতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা। যেখানে সকল কিছুর উর্ধ্বে মেধার গুরুত্ব স্থান পাবে। কিন্তু পরিতাপের বিষয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো জায়গায় কোটার নামে মেধাকে অবদমন করা হচ্ছে।’

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, ‘এ’ ইউনিটে পাসের হার ৫০ শতাংশেরও বেশি। এই ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার জন্য চূড়ান্ত আবেদন করেছিলেন ৭৬ হাজার ৩০৯ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে উপস্থিতির হার ছিল প্রায় ৮০ দশমিক ৬৪ শতাংশ। পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রায় ৫০ শতাংশ ফেল করেছেন। সর্বোমোট ৩৩ হাজার ৯২০ জনের মধ্যে ছেলে ২২ হাজার ৯২৭ ও মেয়ে ১০ হাজার ৯৯৩ জন পাস করতে পেরেছেন।

এর আগে সমাজবিজ্ঞান অনুষদ ও আইন অনুষদ ভুক্ত ‘বি’ ইউনিটের প্রথম শিফট থেকে মাত্র ৩৪ জন জন চান্স পেয়েছে, যা ওই ইউনিটের মোট চান্সপ্রাপ্তদের মাত্র ৮ দশমিক ৮১ শতাংশ। এছাড়া পঞ্চম বা শেষ শিফট থেকে চান্স পেয়েছে ১৭৫ জন, যা ওই ইউনিটে মোট চান্সপ্রাপ্তির ৪৫ দশমিক ৩৪ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

এদিকে গত মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুর ১২ টায় ‘একক প্রশ্নপত্রে মূল্যায়ন চাই’ প্ল্যাকার্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশের পাদদেশে অনশন শুরু করেন শোভন রায় নামের এক ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী। তিনি এবার ‘বি’ ইউনিটে দ্বিতীয় ও ‘সি’ ইউনিটে চতুর্থ শিফটে পরীক্ষা দিয়েছেন। ‘বি’ ইউনিটের ফলাফল প্রকাশর পর শোভন অকৃতকার্য হয়েছে শুনে এই অনশনের সিদ্ধান্ত নেয়।

শোভন বলেন, ‘জাবিতে ভর্তি পরীক্ষার ‘শিফট’ পদ্ধতিতে প্রতিবছর একধরনের বৈষম্যের শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। কোনো শিফটের পরীক্ষা সবচেয়ে সহজ হয় আবার কোনো শিফটে পরীক্ষা একদম কঠিন হয়। এতে কোনো শিফট থেকে অনেক বেশি শিক্ষার্থী চান্স পায় আবার কোনো শিফট থেকে কম চান্স পায়। এতে কোনোভাবেই শিক্ষার্থীর মেধার সঠিক মূল্যায়ন হয় না। আমি চাই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিফট ভিত্তিক পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল করা হোক।’

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, ভর্তি পরীক্ষার প্রথম দিন পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন করে সার্বিক বিষয়ে মন্তব্য করার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. নূরুল আলম বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা চিন্তা করে এবার ইউনিট সংখ্যা কমিয়েছি, পরবর্তীতে শিফট পদ্ধতি নিয়ে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহণ করব।’

সারাবাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন