বিজ্ঞাপন

মহিয়সী ফজিলাতুন্নেসা মুজিব

August 8, 2022 | 1:24 pm

মো. আসাদ উল্লাহ তুষার

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন মরণের সঙ্গী। তিনি মাত্র পঁয়তাল্লিশ বছর বেঁচেছিলেন । ছোটবেলাতেই বঙ্গবন্ধুর সাথে তার বিয়ে হয়েছিল পারিবারিক সিদ্ধান্তে। তারপর সংসার জীবন শুরু করে যতদিন বেঁচেছিলেন তিনি লড়াই সংগ্রাম করে বেঁচেছিলেন।

বিজ্ঞাপন

কতদিন আর সংসার জীবন ছিল তার? এর মধ্যে বিভিন্ন সময়ে তার প্রাণপ্রিয় স্বামীকে সাড়ে চৌদ্দ বছরের মতো জেলে থাকতে হয়। তৎকালীন পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীর নিপীড়ন নির্যাতন সহ্য করে বঙ্গবন্ধু বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন । কিন্তু পেছন থেকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন,সাহস জুগিয়েছেন বঙ্গমাতা। স্বামী দিনের পর দিন জেলে, তিনি তার ছোট ছোট সন্তানদেরকে নিয়ে সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে খুবই কষ্টে দিনযাপন করেছেন। এমনও সময় গেছে শেখ মুজিবের স্ত্রী হিসেবে তাকে অনেকেই বাসা পর্যন্ত ভাড়া দিতে চাননি। সন্তানদের নিয়ে তিনি অমানবিক কষ্ট করেছেন, পাশাপাশি বঙ্গবন্ধু জেলখানায় থাকার কারণে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে সমস্ত আন্দোলন সংগ্রাম নিয়ে শলা-পরামর্শ করেছেন, তাদের সাধ্যমতো সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। জেলে বঙ্গবন্ধুর নিকট খবর দেয়া নেয়া, কিভাবে আন্দোলনকে সফল করা যায় সেই বিষয়ে নেতৃবৃন্দকে পরামর্শ দেওয়া, বিশেষ করে ছাত্র নেতৃবৃন্দকে উদ্বুদ্ধ করা এ সবকিছুই তিনি একজন দেশপ্রেমিক, বিশ্বস্ত, সৎ, সর্বোপরি একজন সাহসী নারী হিসেবে কাজগুলো করেছেন। পাশাপাশি তার সংসারকে তিনি সামলেছেন এক হাতে। যার স্বামী দেশের জন্য দিনের পর দিন কারাগারে থাকেন, একজন স্ত্রীকে তার ছোট ছোট সন্তান নিয়ে কি অমানবিক জীবনযাপন করতে হয় তা শুধু ভুক্তভোগী ভালো জানেন। আর সেই স্বামী যদি হয় সরকারের প্রধান ‘শত্রু’।

বঙ্গবন্ধু তার রাজনৈতিক জীবনে বিশেষ করে স্বাধীনতা সংগ্রামের সংগ্রামমুখর দিনগুলোতে যে সব ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তার নেপথ্যে ছিলেন বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। বঙ্গবন্ধুর লেখা বইগুলোতে এর কিছু বর্ণনা পাওয়া যায়। এ ছাড়াও তার সাথে যারা মিশেছেন আন্দোলন সংগ্রামে পরামর্শ নিয়েছেন, জেলখানায় বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করে যেসব বিষয়ে কথা বলেছেন তা থেকে বোঝা যায় শত অন্যায় অত্যাচারের হুমকির মুখেও বঙ্গবন্ধুকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে তিনি উদ্বুদ্ধ করেছেন। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় জেলে থাকতে যখন আইয়ুব খান প্যারোলে মুক্তি দিয়ে গোল টেবিল বৈঠকে বসার আমন্ত্রণ জানায় তখন অনেক নেতার সায় থাকলেও বঙ্গবন্ধুর মতই বঙ্গমাতা প্যারোল না নেয়ার ব্যাপারে খুবই শক্ত অবস্থানে ছিলেন। গোল টেবিল বৈঠকে বঙ্গবন্ধু যোগদান করলে একজন মুক্ত মানুষ হিসেবেই যোগদান করবেন, কোনও প্যারোলে না। স্বামীর ফাঁসির দড়ি যার গলার সামনে সেই সময়ে স্বামীকে তার রাজনৈতিক অবস্থানে দৃঢ় থাকতে এমন মর্যাদাপূর্ণ কঠোর অবস্থানে কয়জন স্ত্রী থাকতে পারবেন, যা বেগম মুজিব পেরেছিলেন। শেষ পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু একজন মুক্ত মানুষ হিসেবেই গোল টেবিল বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন। বাঙালি তার অবিসংবাদিত নেতাকে আন্দোলনের মাধ্যমেই মুক্ত করেছিলেন সেদিন। একইভাবে সাতই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে কি বলবেন, নানা জনের নানা মতের পরামর্শের মধ্যে বঙ্গমাতার পরামর্শ ‘তোমার অন্তর থেকে যা আসে তা-ই বলবে’ সেই সময়ে সেই সুপরামর্শ বেগম মুজিবই দিয়েছিলেন। এমন আরো অনেক উদাহরণ তার পক্ষে দেয়া যাবে। এমনই ছিলেন বঙ্গমাতা।

বিজ্ঞাপন

একজন প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতির স্ত্রী হিসেবে ক্ষমতার খুব নিকটে অবস্থান করেও যে সহজ-সরল আটপৌরে জীবনযাপন করা যায় তার শ্রেষ্ঠ উদাহরণ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। মূলত তিনি ছিলেন বৃহৎ একটি পরিবারের মধ্যমণি। তাকে কেন্দ্র করেই পরিচালিত হত এই বাংলাদেশের আবেগ অনুভূতি, লড়াই সংগ্রাম ও শ্রদ্ধা ভালোবাসার শেষ আশ্রয়স্থল ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বরের ঐতিহাসিক বাড়িটি। যেখানে বাঙালির অধিকার আদায়ের আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী সব নেতারা কোন না কোন সময়ের ঐ বাড়ির আতিথিয়তা গ্রহণ করেছেন। তিনি যেমন বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির প্রধান প্রেরণাশক্তি ছিলেন, তেমনি স্বাধীনতা সংগ্রামের আন্দোলনে নিয়োজিত সকল মতপথের নেতাকর্মীদেরও প্রেরণা যোগাতেন বঙ্গমাতা। আর এসব করতে গিয়ে তাকে নিদারুণ কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে। তিনি শুধু জাতির পিতার স্ত্রী হিসেবে নয় একজন দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে স্বাধীনতা সংগ্রামে তিনি ছিলেন নেপথ্যের একজন শ্রেষ্ঠ ও প্ৰধান কারিগর। তিনি ছিলেন একজন শ্রেষ্ঠ মুক্তিযোদ্ধা, যিনি তার সন্তানসম্ভবা কন্যা ও শিশু পুত্রকে নিয়ে পাকিস্তানী দখলদার বাহিনীর হাতে মৃত্যুকূপে নয় মাস বন্দি ছিলেন।

শুধু বঙ্গবন্ধু বললেই শেখ মুজিবকে যেমন দেশ-বিদেশের মানুষ বাংলাদেশের জাতির পিতা হিসেবে চেনে। ঠিক তেমনি বঙ্গমাতা বললেই শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে বোঝে। বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গমাতা বাঙালির এই প্রাণ নিঃসরণ করা উপাধি, হৃদয় নিংড়ানো ভালোবাসা তাদের নিজেদের নামকে ছাড়িয়ে গেছেন। বঙ্গবন্ধুই যে শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের জনক, তেমনি বঙ্গমাতা বললে শেখ ফজিলাতুন্নেছাকে বোঝানো হয়, যিনি বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রিয়তমা স্ত্রী। যিনি অত্যন্ত ছোট বয়স থেকে বঙ্গবন্ধুর সব সময়ে পাশে থেকেছেন। ঠিক শেষ বিদায়েও বঙ্গমাতা ঘাতকের বুলেটের সামনে নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে মরণের সাথী হয়েছেন, শহীদ হয়েছেন। কিভাবে হত্যা করেছিল খুনিরা বঙ্গমাতাকে? তার চোখের সামনেই কি তার সন্তানদের হত্যা করা হয়েছিল? শিশু পুত্র রাসেলকে কি তার সামনেই ব্রাশফায়ার করে ঝাঁজরা করে দেওয়া হয়েছিল? বঙ্গমাতার সামনেই কি তার প্রিয়তম স্বামী; এই বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্য যিনি জীবন যৌবন বিসর্জন দিয়েছিলেন সেই বঙ্গবন্ধুকে কি তার সামনেই বুলেট বিদ্ধ করে হত্যা করা হয়েছিল? নাকি খুনিরা আগেই বঙ্গমাতাকে হত্যা করেছিল। কেন হত্যা করেছিল বঙ্গমাতাকে? এমন একজন মহীয়সী নারীকে, বাংলাদেশ সৃষ্টির অকৃত্রিম যোদ্ধা, বাঙালির মাকে, বোনকে যিনি কিনা নির্লোভ, নিরহংকারী, সাদামাটা জীবনযাপন করতেন। ক্ষমতার দম্ভ যার শরীরকে একবিন্দু স্পর্শ করতে পারেনি। শান্ত, স্নিগ্ধ, সৌম্য চেহারার বাঙালি নারীদের এক পবিত্র প্রতিচ্ছবি বঙ্গমাতাকে, রক্তাক্ত করেছিলো খুনিরা পঁচাত্তরের পনেরই আগস্টের সুবেহ সাদেকের সময়। ছোটবেলায় যিনি পিতামাতা হারিয়েছিলেন, খুবই অল্প বয়সে বিয়ে হওয়ায় শশুর শাশুড়িই ছিলেন যার সবকিছু। তারপর বয়স একটু বাড়তেই স্বামীর ভালোবাসা স্নেহ মমতায় যিনি বেড়ে উঠেছিলেন। তিনিই কি-না একদিন হয়ে উঠেছিলেন একটি রাষ্ট্রের নির্ভরতার প্রতীক হয়ে, বাংলার মা হয়ে। স্বামীর জীবনেও যেমন পরম সঙ্গী ছিলেন মরণেও তেমনই সঙ্গী হলেন।

বিজ্ঞাপন

এই দেশের জন্য তার যে ত্যাগ, স্বাধীনতার জন্য তার যে সংগ্রাম তার যথাযথ মূল্যায়ন হয়নি। বেঁচে থাকতে তিনি কোন মূল্যায়নের আশায় কিছু করেননি। তিনি সবকিছু নেপথ্যে থেকে করেছেন। এই নেপথ্যে থেকে করতে গিয়েও তাকে অনেক মানসিক নিপীড়নের মধ্যে থাকতে হয়েছে। স্বাধীনতা সংগ্রামের দিনগুলিতে তো বটেই, মুক্তিযুদ্ধের পুরো নয় মাস তাকে থাকতে হয়েছে মৃত্যুকূপে। দুই সন্তান মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনে। স্বামী শেখ মুজিবকে পঁচিশে মার্চের গভীর রাতে ধানমন্ডির নিজ বাসা থেকে গ্রেফতার করে কোথায় রেখেছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী, যা আল্লাহতাআলা ছাড়া কেউ জানতেন না। তিনি বেঁচে আছেন না তাকে মেরে ফেলা হয়েছে, তা স্ত্রী হিসেবে বঙ্গমাতাসহ বাংলার মুক্তিকামী মানুষ জানতেন না। এমন অবস্থায় কী নিদারুণ মানসিক যন্ত্রনায় বন্দিশালায় থাকতে হয়েছিল বঙ্গমাতাকে তা কল্পনাও করা যায় না! তিনি শুধু জাতির পিতা বা রাষ্ট্রপতির স্ত্রী নন। একজন নির্ভীক আদর্শ মা। তার দুই সন্তান রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা। তিনি নিজেও সারাজীবন সংগ্রাম করেছেন, যুদ্ধের সময়ে দখলদার পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে বন্দি ছিলেন। তিনি তো শ্রেষ্ঠ নারী মুক্তিযোদ্ধা। তাকে মুক্তিযোদ্ধা না বললে অন্যায় করা হবে।

এমন একজন মহীয়সী নারীর জন্মদিনকে জাতীয় দিবস হিসেবে পালন করে দেশ তার কিছু ঋণ শোধ করার সুযোগ পেলো। তার জীবন ও কর্ম ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে পাঠ্যপুস্তকে স্থান করে দেয়া দরকার। তার সাহস, শক্তি, দেশপ্রেম,সততা ও নিষ্ঠা আগামী প্রজন্মের জন্য বিরাট এক শিক্ষণীয় বিষয় হিসেবে থাকবে। যিনি তার স্বল্প সময়ের জীবন মানুষের কল্যাণে উৎসর্গ করে গেছেন, কোন কিছুর বিনিময় ছাড়াই। জন্মদিনে মহীয়সী, প্রেরণাদায়ি বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রতি অতল শ্রদ্ধা।

বিজ্ঞাপন

লেখক: কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ

সারাবাংলা/এসবিডিই/এএসজি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন