বিজ্ঞাপন

এক নারীর ভালোবাসা আর মুজিবের মহানায়ক হয়ে ওঠা

August 8, 2022 | 2:19 pm

ফিচার ডেস্ক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে বাঙালি জাতির হাজার বছরের দাসত্বের মুক্তি ঘটে। কণ্টাকাকীর্ণ দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে মহানায়ক হয়ে ওঠেন তিনি। এই পথে ছিল কখনো তুমুল মুখর জনতা, আবার কখনো ছিল জেলখানার তীব্র নিঃসঙ্গতা। উত্তাল সাগরের মতো অস্থির জীবনে উত্থান-পতনের ঝাপটা। সময়ের আবর্তে কখনো কখনো দূরে চলে গেছে কাছের মানুষেরা। কিন্তু এই পথে তাকে নিঃস্বার্থভাবে সঙ্গ দিয়েছেন এক মহীয়সী নারী, তার নাম বেগম ফজিলাতুন নেছা (রেণু)। আমৃত্যু বঙ্গবন্ধুর জীবনসঙ্গী ছিলেন তিনি। দুঃসময়ে ভালোবেসে আগলে রেখেছেন পুরো পরিবারকে। গৃহিণী হয়েও তিনি বাংলাদেশের ইতিহাসের সন্ধিক্ষণে রেখেছেন বড় ভূমিকা। এমনকি বিভিন্ন সময় বিচক্ষণতার সঙ্গে পরামর্শ দিয়েছেন রাজনৈতিক বিষয়ে। সর্বোপরি একজন বাঙালি গৃহিণী থেকে ক্রমেই তিনি হয়ে উঠেছিলেন বঙ্গবন্ধুর বিশ্বস্ত রাজনৈতিক উপদেষ্টা। এই দেশের স্বাধীনতার পেছনে ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ত্যাগ ও ভূমিকা অনবদ্য।

বিজ্ঞাপন

বাস্তবে আন্দোলন, সংগ্রাম, জনগণ, দেশ ছাড়া বঙ্গবন্ধুর ভাবনার জগতে আর কিছু ছিল না। এমন যোগ্য সহধর্মিণী পেয়েছিলেন বলে বঙ্গবন্ধু অখণ্ড মনোযোগ দিতে পেরেছিলেন দেশ ও জাতির জন্য।

 এক নারীর ভালোবাসা আর মুজিবের মহানায়ক হয়ে ওঠা

বিজ্ঞাপন

‘কারাগারের রোজনামচা’য় স্ত্রী শেখ ফজিলাতুন নেছাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন বঙ্গবন্ধু। পরিবারের বিরহে কাতর হয়ে তিনি লিখেছেন:

“৮ ফেব্রুয়ারি ২ বৎসরের ছেলেটা এসে বলে, 'আব্বা বালি চলো। কী উত্তর ওকে আমি দিবো। ওকে ভোলাতে চেষ্টা করলাম, ও তো বোঝে না আমি কারাবন্দি। ওকে বললামা, ‘তোমার মার বাড়ি তুমি যাও। আমি আমার বাড়ি থাকি। আবার আমাকে দেখতে এসো।‘ ও কি বুঝতে চায়!... দুঃখ আমার লেগেছে। শত হলেও আমি তো মানুষ আর ওর জন্মদাতা। অন্য ছেলেমেয়েরা বুঝতে শিখেছে। কিন্তু রাসেল এখনও বুঝতে শিখে নাই। তাই মাঝে মাঝে আমাকে নিয়ে যেতে চায় বাড়িতে।”

বিজ্ঞাপন

শেখ মুজিব আরো লিখেছেন:

“জেল গেটে যখন উপস্থিত হলাম ছোট ছেলেটা আজ আর বাইরে এসে দাঁড়াইয়া নাই দেখে একটু আশ্চর্যই হলাম। আমি যখন রুমের ভেতর যেয়ে ওকে কোলে নিলাম, আমার গলা ধরে ‘আব্বা আব্বা’ করে কয়েকবার ডাক দিয়ে ওর মার কোলে যেয়ে আব্বা-আব্বা করে ডাকতে শুরু করল। ওর মাকে আব্বা বলে। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, ব্যাপার কি? ওর মা বলল- বাড়িতে আব্বা আব্বা করে কাঁদে, তাই ওকে বলেছি আমাকে আব্বা বলে ডাকতে। রাসেল আব্বা আব্বা ডাকতে লাগল। যেই আমি জবাব দেই সেই ওর মার গলা ধরে বলে, তুমি আমার আব্বা। আমার উপর অভিমান করেছে বলে মনে হয়। এখন আর বিদায়ের সময় আমাকে নিয়ে যেতে চায় না।”

বিজ্ঞাপন

নিজের পরিবারের অর্থকষ্টের কথাও ফুটে উঠেছে বঙ্গবন্ধুর লেখায়। জীবনসঙ্গী বেগম ফজিলাতুন নেছা (রেণু) মুজিবের আত্মত্যাগের কথা বলতেও বঙ্গবন্ধু ভোলেননি। এ ব্যাপারে তিনি লিখেছেন:

“কোম্পানি আজও আমার প্রভিডেন্ট ফান্ডের টাকা দেয় নাই, তাই একটু অসুবিধা হতে চলেছে বলে রেণু বলল। ডিসেম্বর মাসে আছি চাকরি ছেড়ে দিয়েছি- চার মাস হয়ে গেল, আজও টাকা দিলো না! আমি বললাম, জেল থেকে টেলিগ্রাম করব। প্রথম যদি না দেয়, তবে অন্য পন্থা অবলম্বন করব। আমার টাকা তাদের দিতেই হবে। কোনোমতে চালাইয়া নিয়ে যাও, বাড়ির থেকে চাউল আসবে, নিজের বাড়ি, ব্যাঙ্কেও কিছু টাকা আছে, বছর খানেক ভালভাবেই চলবে, তারপর দেখা যাবে। আমার যথেষ্ট বন্ধু আছে, যারা কিছু টাকা ধার দিতে কৃপণতা করবে না। ‘যদি বেশি অসুবিধা হয়, নিজের বাড়ি ভাড়া দিয়ে ছােট বাড়ি একটা ভাড়া করে নিব’, রেণু বলল। সরকার যদি ব্যবসা করতে না দেয় তবে বাড়িতে যে সম্পত্তি আমি পেয়েছি আব্বার, মায়ের ও রেণুর তাতে আমার সংসার ভালভাবে চলে যাবে। রেণু বলল, ‘চিন্তা তােমার করতে হবে না।’ সত্যই আমি কোনােদিন চিন্তা বাইরেও করতাম না, সংসারের ধার আমি খুব কমই ধারি।”

বিজ্ঞাপন

এক নারীর ভালোবাসা আর মুজিবের মহানায়ক হয়ে ওঠা

বন্দিরা সপ্তাহে একটি চিঠি আর ১৫ দিনে একবার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারত। কিন্তু সেখানেও বাধা-নিষেধ ছিল। গোয়েন্দা দফতরের কর্মচারীদের পড়ার পর চিঠি হাতে পাওয়া যেত, সাক্ষাতের সময় গোয়েন্দা ও জেলের কর্মচারীরা উপস্থিত থাকত। বঙ্গবন্ধু দুঃখ করে লিখেছেন :

“নিষ্ঠুর কর্মচারীরা বোঝে না যে স্ত্রীর সাথে দেখা হলে আর কিছু না হউক একটা চুমু দিতে অনেকেরই ইচ্ছে হয়, কিন্তু উপায় কী? আমরা তো পশ্চিমা সভ্যতায় মানুষ হই নাই। তারা তাে চুমুটাকে দোষণীয় মনে করে না। স্ত্রীর সাথে স্বামীর অনেক কথা থাকে কিন্তু বলার উপায় নাই।”

বঙ্গবন্ধু তার কারাগারের রোজনামচা বইয়ের অগণিত স্থানে সহধর্মিণীর প্রতি গভীর ভালোবাসা, আস্থা, বিশ্বাস ও পরম নির্ভরতার কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি অকুষ্ঠচিত্তে বেগম মুজিবের ধৈৰ্য্য, ত্যাগ ও অবদানের বিবরণ দিয়েছেন। প্রায় ৪০ বছরের দাম্পত্য জীবনে বেগম মুজিব ভালোবেসে তার স্বামীর সংগ্রামমুখর, ঝুঁকিপূর্ণ জীবনে সঙ্গী ছিলেন। তবে বেগম মুজিব সবসময় তার স্বামীর শারীরিক অবস্থা নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকতেন। শুধু পারিবারিক জীবন নয়; বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী রাজনৈতিক জীবনে ঝুঁকি ও সংকটকালীন মুহূর্তে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে বেগম মুজিব নিয়ামক ভূমিকা পালন করেছেন। বেগম মুজিবের রাজনেতিক পরামর্শ বঙ্গবন্ধু গ্রহণ করেছেন এমন দৃষ্টান্ত কম নয়।

এক নারীর ভালোবাসা আর মুজিবের মহানায়ক হয়ে ওঠা

বঙ্গবন্ধু প্রায়ই মাথা ব্যথায় আক্রান্ত হতেন। তাই ব্যথা হলেই ব্যথানাশক স্যারিডন সেবন করতেন। বেশি ব্যথা করলে ২-৩টা একসঙ্গে খেয়ে নিতেন। বেগম মুজিব ব্যথানাশক ওষুধ খেতে নিষেধ করতেন, কিন্তু বঙ্গবন্ধু খুব একটা আমল দিতেন না। কারাগারে তীব্র মাথা ব্যথায় আক্রান্ত হওয়ার পর তার প্রিয় সহধর্মিণীর কথা মনে পড়েছে। লিখেছেন:

“রেণু স্যারিডন খেতে দিতে চাইত না। ভীষণ আপত্তি করত। বলত, হার্ট দুর্বল হয়ে যাবে। আমি বলতাম আমার হার্ট নাই। অনেক পূর্বেই শেষ হয়ে গেছে। বাইরে তার কথা শুনি নাই, কিন্তু জেলের ভিতর তার নিষেধ না শুনে পারলাম না।”

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ যেমন একই সূত্রে গাঁথা, তেমনি বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গমাতা- দুই শরীরে যেন একই আত্মা। শেখ মুজিবের বয়স যখন ১১, তখন শিশু রেণুর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। রেণু গোপালগঞ্জ মিশন স্কুলে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়েছিলেন। তিনি তার মা-বাবাকে হারিয়েছিলেন শৈশবে, শাশুড়ির কাছে মানুষ হয়েছিলেন। পড়াশােনার প্রতি ঝোঁক ছিল। বাড়িতে শিক্ষক রেখে বাংলা, ইংরেজি, আরবি পড়েছেন; প্রচুর গল্পের বই পড়তেন আর গান শুনতেন।

ফজিলাতুন নেছা বঙ্গবন্ধুর স্কুল জীবনের সাথী হলেও সংসার শুরু করেছিলেন বঙ্গবন্ধুর এন্ট্রান্স পাস করার পর। শেখ মুজিবুর রহমান তখন কলকাতায় পড়তেন। রাজনীতি করতেন। মাঝেমধ্যে আসতেন টুঙ্গিপাড়ায়। ১৯৪৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তাদের বড় মেয়ে শেখ হাসিনার জন্ম হয়। তখন শেখ মুজিবের বয়স ২৭। বেগম মুজিবের বয়স ১৭ বা ১৮। বঙ্গবন্ধু রাজনীতি করতেন, জেলেই থাকতেন বেশিরভাগ সময়, ছেলেমেয়ে-সংসার সামলাতেন বেগম মুজিব। এককথায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অফুরান প্রেরণার উৎস হয়েছিলেন তিনি।

এক নারীর ভালোবাসা আর মুজিবের মহানায়ক হয়ে ওঠা

উত্তরাধিকার সূত্রে বেগম মুজিব যতটুকু অর্থ সম্পদের মালিক হয়েছিলেন, তার পুরােটাই তিনি ব্যয় করেছেন নিঃস্বার্থভাবে সংসার এবং বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত রাজনীতির পিছনে। কিছু কিছু টাকা জমিয়ে বসতবাড়ি নির্মাণের জন্য যে প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ দেওয়া হতো, সেই প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নিয়ে পরিবারের জন্য বঙ্গবন্ধু ভবন খ্যাত ৩২ নম্বর বাড়িটির কাজ সম্পন্ন করেন।

বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ ছয় দফা ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধু যখন পাকিস্তানি শাসকদের হাতে বন্দি জীবনযাপন করছিলেন, তখন দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা বঙ্গমাতার ফজিলাতুন নেছার কাছে ছুটে আসতেন। তিনি তাদের কাছে বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা পৌঁছে দিতেন।

বিশেষ করে আগরতলা যড়যন্ত্র মামলায় যখন বঙ্গবন্ধুর প্যারোলে মুক্তি নিয়ে কিছু মহল স্বাধীনতা সংগ্রামকে বিপন্ন করার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছিল, তখন প্যারোলে মুক্তির বিপক্ষে বেগম মুজিবের দৃঢ়চেতা অবস্থান বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামকে ত্বরান্বিত করে।

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের নেপথ্যেও বঙ্গমাতার সঠিক পরামর্শ ছিল। বঙ্গমাতা বঙ্গবন্ধুকে পরামর্শ দিয়েছিলেন, মন থেকে যা বলতে ইচ্ছে করে, তাই বলা উচিত। বঙ্গবন্ধু সেটি করেছিলেন। বাকিটা ইতিহাস।

স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ফজিলাতুন নেছা মুজিবকেও হত্যা করে ঘাতকরা। বঙ্গবন্ধুর জীবনে বঙ্গমাতা যেমন আলােকবর্তিতা, তেমনি আমাদের স্বাধীনতা ও দেশের মানুষের জন্য তার অবদান অনন্য অবিস্মরণীয়। বাংলাদেশের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর মতো বঙ্গমাতার নামও চিরস্মরণীয়।

সারাবাংলা/এসবিডিই/এএসজি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন