বিজ্ঞাপন

রংপুরে চাকরির নামে ঘুষ লেনদেনের ভিডিও ভাইরাল

August 10, 2022 | 12:00 am

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

রংপুর: ভূমি মন্ত্রণালয়ে কম্পিউটার অপারেটর কাম অফিস সহকারী হিসেবে চাকরি দেওয়ার কথা বলে রংপুরে এক যুবক প্রতারিত হয়েছেন। চাকরি দেওয়ার নামে তার কাছ থেকে নেয়া হয় ১৩ লাখ টাকা। সচিবের সই জাল করে দেওয়া হয় নিয়োগপত্র। পরে প্রার্থী বুঝতে পারেন তিনি প্রতারিত হয়েছেন। ততদিনে প্রতারক লাপাত্তা। ঘুষ নেয়ার সেই ভিডিও ভাইরালের পর তোলপাড় হয়েছে রংপুরে।

বিজ্ঞাপন

রংপুর নগরীর দখিগঞ্জ এলাকার আব্দুল হান্নান ও তার স্ত্রী স্বপ্না বেগমের কাছ থেকে ১৩ লাখ টাকা নেন একই এলাকার আনোয়ার হোসেন। পরে চাকরি না পেয়ে করেছেন থানায় অভিযোগ।

প্রতারণার শিকার সোহাগ মিয়া বলেন, ‘ভূমি মন্ত্রণালয়ে কম্পিউটার অপারেটর কাম অফিস সহকারী হিসেবে আমাকে চাকরি দেয়ার কথা বলে ১৩ লাখ টাকা নেন আনোয়ার। কিছুদিনের মধ্যে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরের পরিচালকের সই করা একটি নিয়োগপত্র এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের উপসচিব তাজুল ইসলাম মিয়ার সই করা যোগদানপত্র হাতে দিয়ে ঢাকায় একটি কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারে আমাকে রেখে বলা হয়, চাকরিতে যোগদান হয়ে গেছে। তবে তিন মাসের ট্রেনিং শেষে হবে পোস্টিং।’

বিজ্ঞাপন

সোহাগ বলেন, ‘বেতন হিসেবে দুই মাসে ২২ হাজার টাকাও দেওয়া হয়। বেতন বিল, ভ্রমণ ভাতাসহ সরকারি দফতরের বেশকিছু ফরম, ভাউচারও দেওয়া হয়। কিন্তু তিন মাস পেরিয়ে গেলেও পোস্টিং না হওয়ায় আমি বুঝতে পারি প্রতারণার শিকার হয়েছি। ফিরে এসে ঘুষের টাকা ফেরত চাইলে কিছুদিন টালবাহানা করে আনোয়ার ও তার পরিবার। পরে আমার মা স্বপ্না বেগম বিষয়টি লিখিতভাবে থানায় অভিযোগ দিলে ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান আনোয়ার ও তার পরিবার।’

তবে অভিযোগ তুলে নিতে এখন ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগী পরিবার। পুলিশ জানিয়েছে, আনোয়ার নামের ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একই রকম প্রতারণার আরও অভিযোগ রয়েছে। তবে এ ব্যাপারে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত মন্তব্য করতে রাজি হননি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

বিজ্ঞাপন

তবে অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা রংপুরের কোতোয়ালি থানার এসআই মোহেরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘অভিযোগকারী মামলা করার জন্য এগোচ্ছে না। তারা মামলাও করতে পারছে না, আবার টাকাও তুলতে পারছে না। এই দুই অবস্থার মাঝামাঝি আছেন তারা।’

সারাবাংলা/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন