বিজ্ঞাপন

বিপিসি’র লাভের ৩৬ হাজার কোটি টাকা কোথায়— প্রশ্ন সিপিডি’র

August 10, 2022 | 5:04 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট 

ঢাকা: বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) ২০১৫ থেকে ২১ সাল পর্যন্ত জ্বালানি তেল বিক্রি করে ৪৬ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকা লাভ করেছে। এর মধ্যে ১০ হাজার কোটি টাকা সরকারকে দিয়েছে। বাকি ৩৬ হাজার কোটি টাকা গেল কোথায়— বলে প্রশ্ন রেখেছেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম।

বিজ্ঞাপন

সিপিডি মনে করে, বিভিন্ন ত্রুটিপূর্ণ তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। বিপিসির আয়-ব্যয়ের হিসাব জনগণের সামনে আসা উচিত। প্রতিষ্ঠানটি ভোক্তার ওপরে দায় না চাপিয়ে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করা যেত সিপিডি মত প্রকাশ করেছেন।

বুধবার (১০ আগস্ট) রাজধানীর ধানমন্ডিতে সিপিডি'র কার্যালয়ে ‘জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এখন এড়ানো যেত কি?’ শীর্ষক আলোচনায় তিনি এ সব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বুয়েটের সাবেক অধ্যাপক, জ্বালানি ও টেকসই উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ ড. ইজাজ হোসেন, বিকেএমইএ’র সহ-সভাপতি ফজলে শামীম এহসান, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব আনোয়ার ফারুক, যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী প্রমুখ।

গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘ত্রুটিপূর্ণ তথ্য-উপাত্তের ওপর জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। আমি বিপিসির পুরাতন হিসাবের খতিয়ান জানতে চাই। বিপিসি গত ৬/৭ বছরে বিপিসি ৪৬ হাজার কোটি টাকা লাভ করেছে। যার মধ্য থেকে সরকার নিয়েছে ১০ হাজার কোটি টাকা। বাকি ৩৬ হাজার কোটি টাকা কোথায়? বলা হয়েছে, ওই টাকার মধ্যে ৩৩ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। কিন্তু সেই হিসাব আমরা খুঁজে পাই না।’

বিজ্ঞাপন

খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘২০১৫ সালে ৪ হাজার ১২৬ কোটি টাকা, ২০১৬ সালে ৯ হাজার ৪০ কেটি, ২০১৭ সালে ৮ হাজার ৬৫৩ কোটি ও ২০১৮ সালে ৫ হাজার ৬৪৪ কোটি টাকা লাভ করেছে বিপিসি। পরবর্তী সময়ে ২০১৯ সালে ৪ হাজার ৭৬৮ টাকা, ২০২০ সালে ৫ হাজার ৬৭ কোটি এবং ২০২১ সালে বিপিসি জ্বালানি তেল বিক্রি করে ৯ হাজার ৫৫৯ কোটি টাকা লাভ করেছে।’

তিনি বলেন, ‘অর্থ মন্ত্রণালয়সহ সরকারের বিভিন্ন সূত্রে যে খতিয়ান পাওয়া যায়, তাতে নিজস্ব অর্থায়নে ১১টি প্রকল্পের তথ্য পেয়েছি। সেখানে ব্যয় হবে ৮ হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি। এর মধ্যে মাত্র ৫টি প্রকল্প চলমান রয়েছে। বাকিগুলো বন্ধ রয়েছে। তাহলে বিপিসির টাকা কোথায় গেল? আমরা জানতে পেরেছি বিভিন্ন ব্যাংকে বিপিসির ২৫ হাজার ২৬৪ কোটি টাকা জমা রয়েছে। তাহলে ওই টাকা কোন টাকা? এ ছাড়াও বাকি টাকা কোথায়? আমার ধারণা বাকি টাকাও বিপিসির হিসাবেই রয়েছে। তাহলে কেন লোকসান দেখিয়ে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করা হলো।’

বিজ্ঞাপন

বিপিসি চাইলে এই সংকট সময়ে জ্বালানি তেলের ভর্তুকি অব্যাহত রাখতে পারত বলেও ‍তিনি মত প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘চলতি অর্থবছরেও ৫ হাজার ৯০৩ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে বিপিসি। আমি অবাক হয়ে যাচ্ছি, এ বছরেও বিপিসি বিনিয়োগ করবে! জনগণের মাথায় বোঝা চাপিয়ে বিপিসি কোথায় বিনিয়োগ করবে? সরকার চাইলে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি এড়ানো যেত। এ সংকট এড়ানো যেত, মূল্য বৃদ্ধির প্রয়োজন পড়ত না। বিপিসি যদি তার হিসাবে স্বচ্ছতা রাখত, তাহলে বাড়তি এ ব্যয়ের হিসাব সমন্বয় করা যেত।’

বিজ্ঞাপন

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনায় ফাহমিদা বলেন, ‘অর্থ মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুসারে— ২০১৫ সাল থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত বিপিসি ৪৬ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকা লাভ করেছে। বর্তমানে জ্বালানি তেলের দাম বাংলাদেশের চেয়ে নেপাল ও পাকিস্তানের বেশি। এখানে মনে রাখতে হবে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বিশেষ করে তৈরি পোশাক খাতে বাংলাদেশের প্রধান প্রতিযোগী ভিয়েতনাম। নীতি নির্ধারকদের এ বিষয়টি মাথায় রাখতেই হবে।’

তিনি বলেন, ‘জ্বালানির দাম কাদের চেয়ে বেশি, সিঙ্গাপুর, হংকং ও জার্মানির চেয়ে বেশি আছে। যাদের মাথাপিছু আয় ৫০ হাজার ডলারের কাছাকাছি তাদের সঙ্গে তুলনা করা হয়। যখন তুলনা করব তখন সে দেশের অর্থ সামাজিক অবস্থান ও প্রেক্ষাপট মাথায় রাখাটাও জরুরি।’

তিনি বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে প্রথমেই পরিবহন সেক্টরের ভাড়া বৃদ্ধি পায়। ডিজেলে দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় কৃষি পণ্য উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি পাবে। অনেক কৃষক কৃষিকাজ ছেড়ে দেবে, ফলে আমদানি আবার বেড়ে যাবে। শিল্পের উৎপাদনেও খরচ বেড়ে যাবে। তাহলে ব্যবসার লভ্যাংশ কমে যাবে। তারপরও বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে। অর্থাৎ ধাপে ধাপে খরচ বৃদ্ধিতে মুদ্রাস্ফীতি বৃদ্ধি পাবে।’

তিনি বলেন, ‘মূল্যস্ফীতির প্রভাব পড়বে জীবনযাত্রায়। এর বড় ধাক্কা আসবে নিম্ন মধ্যবিত্ত ও গরিবদের ওপর। সঞ্চয় ভেঙে খাবে সাধারণ মানুষ। অন্যদিকে সুদের হার কম হওয়ায় সাধারণ মানুষ এখান থেকেও বঞ্চিত হচ্ছে।’

জ্বালানি তেলের মূল্য পুনর্বিবেচনা করার দাবি জানিয়ে সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা বলেন, ‘মূল্য পুনর্বিবেচনা করা প্রয়োজন। আমরা নিম্নমুখী সামঞ্জস্যতার কথা বলছি। এর পাশাপাশি নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য খোলা বাজারে পণ্য বিক্রি ও রেশনিং কার্ডের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে হবে। সামাজিক সুরক্ষায় খাতে আবার ব্যয় করার ক্ষেত্রে দুর্নীতি রুখতে হবে। পাশাপাশি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ঋণ দেওয়া হয়েছে, অনেকেই তা নিতে পারেনি। তাদের জন্য বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা করা যেতে পারে।’

সারাবাংলা/জিএস/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন