বিজ্ঞাপন

ক্ষমতাসীন দলের ‘ভয়ে’ এগুলো বাম জোটের কর্মসূচি

August 13, 2022 | 1:16 pm

আজমল হক হেলাল, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: জ্বালানি তেল ও সারসহ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি এবং সমাবেশে পুলিশ ও সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলার প্রতিবাদে ১৭ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি দিয়েছিল বাম গণতান্ত্রিক জোট। কিন্তু ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ১৭ আগস্ট বিক্ষোভ ঘোষণার কারণে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি থেকে সরে এসেছে বাম নেতারা। সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ওইদিন রাজপথে বাম গণতান্ত্রিক জোট তাদের কর্মসূচি নিয়ে থাকলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিশ্চিত সংঘর্ষ হবে। সেই ভয়ে তারা তাদের কর্মসূচি একদিন এগিয়ে এনেছে।

বিজ্ঞাপন

জোটের শরিক দলগুলো জানিয়েছে, তাদের জনবল কম। এ অবস্থায় মাঠে টিকে থাকাও কঠিন। এর আগে একই দাবিতে গতকাল শুক্রবার (১২ আগস্ট) প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে সারাদেশে অর্ধ দিবস হরতাল কর্মসূচি ঘোষণার কথা ছিল। হঠাৎ করে এই কর্মসূচি থেকে সরে গিয়ে সারাদেশে লিফলেট বিতরণ কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়। সে হিসাবে আজ শনিবার (১৩ আগস্ট) বাহাদুর শাহ পার্ক ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন স্থানে লিফলেট বিতরণ করা হবে।

কর্মসূচির তারিখ বদল করার বিষয়ে বামজোটের অধ্যাপক আব্দুস সাত্তার বলেন, ‘আমরা মনে করি সরকারকে আগে জানানো দরকার। তাই আমরা কর্মসূচির তারিখ একদিন এগিয়ে এনেছি।’

বিজ্ঞাপন

এ সময় সারাবাংলার পক্ষ থেকে তার কাছে জানতে চাওয়া হয় যে, আওয়ামী লীগের কর্মসূচি থাকার কারণে রাজপথে সংঘর্ষ হতে পারে। এই ভয়ে একদিন এগিয়ে আনা হয়েছে বলে আপনাদের দল থেকে অনেকেই বক্তব্য দিয়েছে। এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘না না না। আচ্ছা ঠিক আছে, এখন রাখছি।’

২৫ তারিখ কি হরতাল কর্মসূচি থাকবে— এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটি নিয়ে পরে আলোচনা হবে।’

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে বাম গণতান্ত্রিক জোটের সাবেক সমন্বয়ক আবদুল্লাহ আল কাফী বলেন, ‘১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলা নিয়ে আওয়ামী লীগের আগে থেকেই প্রোগ্রাম ছিল। সেটি মাথায় ছিল না। এখন আওয়ামী লীগ বিক্ষোভ কর্মসূচি দিয়েছে দেশব্যাপী, আমাদেরও দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচির প্ল্যান। রাজধানীতে কিছু না হলেও ঢাকার বাইরে একই জায়গায় ধরেন প্রোগ্রাম হয়ে গেল, তখন তো একটু সমস্যা। তারা ১০টা মাইক বাজাবে, আর আমরা একটা মাইক বাজাবো। এই বিষয়গুলো মাথায় রেখেই হয়ত তারিখ পরিবর্তন হয়েছে। যদিও আমি এই বিষয়ে জানি না যে কারণ আসলে কি, কারণ এই বিষয় নিয়ে বৈঠক করে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।’

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স বলেছিলেন, ‘হরতাল কর্মসূচিটি এ মুহূর্তে ঘেষাণা করলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচিটি হালকা হয়ে যায়। এ কারণে এ মুর্হূতে হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করা হচ্ছে না। আগামী ১৭ আগস্টের মধ্যে তেলের দাম না কমলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাওয়ের দিন হরতাল কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএইচএইচ/এসএসএ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন