বিজ্ঞাপন

এফটিপির বাইরে ইংল্যান্ডে টেস্ট খেলার চেষ্টা বিসিবির

August 17, 2022 | 10:19 pm

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট

২০২৩ সাল থেকে ২০২৭ সাল পর্যন্ত এই চার বছরের নতুন ফিউচার টুরস প্রোগ্রাম বা ভবিষ্যৎ সফরসূচি (এফটিপি) প্রকাশ করেছে ক্রিকেটর সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি। তাতে বাংলাদেশের জন্য বড় সুসংবাদ। এফটিপির আগামী চক্রে তিন ফরম্যাট মিলিয়ে ১৬৭ ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ, দলগুলোর মধ্যে যা সবচেয়ে বেশি। তবে একটা আক্ষেপও আছে। ইংল্যান্ডের মাটিতে কোনো টেস্ট নেই বাংলাদেশের। বিসিবির চিন্তা, এফটিপির বাইরে গিয়েও ইংল্যান্ডে গিয়ে টেস্ট সিরিজ খেলা।

বিজ্ঞাপন

২০০৩ সালের পর থেকে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট খেলেনি বাংলাদেশ। আসন্ন এফটিপিতে সেই আক্ষেপ ঘুচতে যাচ্ছে। ২০২৭ সালে অস্ট্রেলিয়ায় টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। তবে ইংল্যান্ডের মাটিতে টেস্ট নেই এবারের এফটিপিতেও। ২০১০ সালে সর্বশেষ ইংল্যান্ডে টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন বললেন, এফটিপির বাইরেও সিরিজ আয়োজনের যে সুযোগ আছে সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ইংল্যান্ডে গিয়ে টেস্ট খেলার লক্ষ্য থাকবে তাদের।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১৭ আগস্ট) বিসিবির প্রধান নির্বাহী সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত এফটিপিতে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডে কোনো খেলা ছিল না। এবার অস্ট্রেলিয়ায় একটা সিরিজ নিশ্চিত করেছি। এরপর আমাদের লক্ষ্য থাকবে, যে দেশগুলাতে সফর নেই, পরের এফটিপিতে বা এই এফটিপির মধ্যেও সেই দেশগুলোতে সফর করা যায় কিনা।’

এফটিপির আগামী চক্রে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি ম্যাচ পাচ্ছে, বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য সেটা নিশ্চয় দারুণ কিছু। তৃপ্তি প্রকাশ পেল নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজনের কথাতেও, ‘একটা সময় বিষয় ছিল যে আমরা বেশি ক্রিকেট খেলার দাবি জানাতাম। সেখান থেকে আমরা বের হয়ে এসেছি। গত এফটিপিতেও আমাদের বেশ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ম্যাচ ছিল দেশের ভেতরে ও বাইরে। আগে যেমন একটা টেস্ট সিরিজের পর আরেকটা সিরিজের আগে অনেক বিরতি থাকত, এখন কিন্তু বিষয়গুলোর অনেক ব্যালান্সড হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘আমরা আস্তে আস্তে এগোচ্ছি। আমাদের চেষ্টা থাকবে যে দেশগুলোতে আগে সফর ছিল না, সেগুলোতে করা। প্রায় সব দেশের সঙ্গেও আমাদের খেলা আছে দেশের ভেতরে-বাইরে, কেবল ইংল্যান্ড ছাড়া। সেটাও আমরা চেষ্টা করছি। একটা ব্যাপার আমাদের মনে রাখতে হবে, সবাই বড় দলগুলির সঙ্গে খেলতে চায়, কেবল বাংলাদেশই নয়। একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সবার সঙ্গে খেলা সম্ভব নয়। যতটুকু সম্ভব হয়েছে, আমরা চেষ্টা করেছি।’

সারাবাংলা/এসএইচএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন