বিজ্ঞাপন

ইউনিলিভারসহ ৪৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিসিসি’র মামলা

September 22, 2022 | 7:52 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: চাল, আটা-ময়দা, ডিম, বয়লার মুরগির মাংস, সাবান, গুঁড়া সাবান ও টয়লেট্রিজ পণ্যের অস্বাভাবিক দাম বৃদ্ধি এবং কৃত্রিম সংকটের মাধ্যমে অস্থিরতা তৈরির অভিযোগে ৪৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ৪৪টি মামলা করেছে বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশন (বিসিসি)।

বিজ্ঞাপন

এসব মামলার শুনানিতে অংশ নেয়ার জন্য আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর থেকে কোম্পানিগুলোকে ধারাবাহিকভাবে শুনানির জন্য ডাকা হয়েছে। প্রতিযোগিতা কমিশন আইনের ১৫ ও ১৬ ধারায় মামলাগুলো করা হয়েছে। এই ধারায় বাজারে প্রভাব বিস্তার করে অস্বাভাবিক দাম বাড়ানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় প্রতিযোগিতা কমিশন সূত্র সারাবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বিজ্ঞাপন

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রতিযোগিতা কমিশন থেকে ৪৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সিটি গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ, বাংলাদেশ এডিবল অয়েল লিমিটেড, আটা-ময়দার জন্য সিটি গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ, রশিদ অ্যাগ্রো ফুড প্রোডাক্টস, বেলকন গ্রুপ, ডিমের জন্য প্যারাগন পোলট্রি বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

অন্যদিকে মুরগির জন্য কাজী ফার্মস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল ইসলাম, ডিম ব্যবসায়ী-আড়তদার বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি আমানউল্লাহ্, কাজী ফার্মস গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী জাহেদুল ইসলাম, টয়লেট্রিজ পণ্যের জন্য ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ মোট ৪৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

জানা গেছে, ৪৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভিন্ন ভিন্ন অপরাধের কারণে মোট ৪৪ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলার মধ্যে চাল নিয়ে কারসাজির কারণে ১৯টি মামলা, আটা বা ময়দা নিয়ে কারসাজির অভিযোগে ৮টি, ব্রয়লার মুরগির দাম নিয়ে কারসাজি ৬টি, ডিম নিয়ে কারসাজির কারণে ৬টি, সাবান ও গুঁড়া সাবান নিয়ে কারসাজির অভিযোগ ৫টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। কমিশনের নিজস্ব কার্যালয়ে এসব মামলার শুনানি  হবে।

উল্লেখ্য, গত কয়েক মাস ধরে দেশের বাজারে চাল, তেল, আটা, ডিম, মুরগি, সাবান, ডিটারজেন্ট ও টুথপেস্টের বাজারে অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি করে এক শ্রেণির ব্যবসায়ীরা বাজার থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় ভোক্তা অধিদফতর থেকে ডিমের বাজারে কারসাজিতে জড়িত সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জিএস/এনইউ

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন