বিজ্ঞাপন

৬ মাসের দণ্ড এড়াতে ৭ বছর আত্মগোপন

September 22, 2022 | 8:30 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: মাদক আইনের মামলায় ছয় মাসের সাজা হয়েছিল ঢাকার বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ এক কর্মকর্তার, যার বাড়ি চট্টগ্রাম নগরীতে। ছয় মাসের সেই সাজা এড়াতে ওই ব্যক্তি সাড়ে সাত বছর আত্মগোপন ছিল। কিন্তু অবশেষে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে সে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) রাতে নগরীর আকবর শাহ থানার পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতার মো. জিয়া তৌহিদের (৫৭) বাসা পূর্ব ফিরোজ শাহ কলোনিতে। সেখানে তার স্ত্রী ও এক ছেলে থাকে। উচ্চশিক্ষিত জিয়া ঢাকায় মেডিকেল সরঞ্জাম সরবরাহকারী একটি প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপক পদে কর্মরত আছেন।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানায় ২০১৩ সালের ৯ সেপ্টেম্বর জিয়া তৌহিদের বিরুদ্ধে মাদক আইনে একটি মামলা দায়ের হয়। গ্রেফতার জিয়া জামিনে গিয়ে পলাতক হয়ে যান। ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারি আদালত তাকে ওই মামলায় ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের কারাদণ্ড দেন।

আকবর শাহ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ওয়ালী উদ্দিন আকবর সারাবাংলাকে বলেন, ‘যেহেতু আসামির স্থায়ী ঠিকানা আমার থানা এলাকায়, ২০১৫ সালেই সাজামূলে পরোয়ানা আসে আকবর শাহ থানায়। কিন্তু গত আটবছর ধরে এটা পেন্ডিং ছিল। জিয়া তৌহিদ ঢাকায় অবস্থান করত। সেভাবে চট্টগ্রামে আসত না। কোনো সময় চট্টগ্রামে এলেও খুবই গোপনে স্ত্রী-সন্তানের সঙ্গে দেখা করে চলে যেত। বাসায় যেত না। আমরা তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তার অবস্থান শনাক্তের চেষ্টা করছিলাম। গত (বুধবার) রাতে ফিরোজ শাহ কলোনি এলাকায় অবস্থান শনাক্ত হওয়ার পর আমরা গ্রেফতার করি।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন