বিজ্ঞাপন

ডলারের শক্তিবৃদ্ধির প্রভাব জ্বালানি তেলের বাজারে, কমছে দর

September 26, 2022 | 3:01 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ঢাকা: মার্কিন ডলারের শক্তিবৃদ্ধির ফলে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার আশঙ্কায় বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের চাহিদা হ্রাস পেয়েছে। এর ফলে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম কমেছে। সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) একপর্যায়ে বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দর গত জানুয়ারির দরের সমান হয়ে যায়। সোমবার ব্রেন্ট ক্রুড ব্যারেল প্রতি ৮৫ মার্কিন ডলারের কাছাকাছি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

আসন্ন নভেম্বরের জন্য ব্রেন্ট ক্রুডের ফিউচারের দর সোমবার ব্যারেল প্রতি ১.৩৫ মার্কিন ডলার বা ১.৫৭ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। নভেম্বরের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ওয়েস্ট টেক্সাস ব্রেন্ট ক্রুডের ফিউচারও কমেছে ১.১৫ মার্কিন ডলার বা ১.৪৬ শতাংশ। এই দুই বেঞ্চমার্কেরই ফিউচার ব্যারেল প্রতি ৭৭ থেকে ৭৮ মার্কিন ডলারে নেমে এসেছে।

বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কায় ভোক্তা দেশগুলো তেলের ব্যবহার কমানোর পথে হাটছে। চীনের মতো শীর্ষ ভোক্তা দেশে ইতিমধ্যে তেলের ব্যবহার হ্রাস পেয়েছে। ফলে বাজারে তেলের চাহিদা আরও হ্রাস পেয়েছে। বিশেষ করে সোমবার পাউন্ডের মান কমে যাওয়া একটি আশনিসংকেত মনে করছেন বিশ্লেষকরা। এতে অন্যান্য দেশগুলোও সাবধানতা অবলম্বন করছে বলে মনে করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

এনার্জি অ্যাসপেক্টস-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও গবেষণা পরিচালক অমৃতা সেনের মতে, তেলের দামের পতনের মুখ্য কারণ হলো ডলারের শক্তিবৃদ্ধি। এ মুদ্রাটি যত শক্তিশালী হচ্ছে, বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কা ততো বাড়ছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বজুড়ে প্রধান অর্থনীতির দেশগুলোর কেন্দ্রীয় ব্যাংক মুদ্রাস্ফীতি মোকাবেলার প্রচেষ্টা হিসেবে সুদের হার বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছে। এমন সিদ্ধান্তও ব্যবসার জন্য ভালো নয়—এতে মন্দার আশঙ্কার পালে আরও হাওয়া লেগেছে।

বিজ্ঞাপন

ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক স্যাক্সোর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাজার ক্রমাগত অবনতির দিকে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি কমোডিটি স্ট্র্যাটেজির প্রধান ওলে হ্যানসেন বলেছেন, শুক্রবার থেকে অপরিশোধিত তেল পেট্রলিয়াম পণ্যের উপর লাগামহীন চাপ অব্যাহত রয়েছে। ডলারের শক্তিবৃদ্ধিতে অন্যান্য অর্থনীতি যে হতাশার সৃষ্টি হয়েছে, সেটাই তেলের দর হ্রাসের কারণ।

তবে ডলারের মূল্যবৃদ্ধির ফলে বৈশ্বিক মন্দার আশঙ্কা থেকে তেলের দর হ্রাসের প্রভাবে ছোট অর্থনীতির ভোক্তা দেশগুলো লাভবান হবে। গত ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর তেলের লাগামহীন দরবৃদ্ধির ফলে এসব ছোট অর্থনীতির ভোক্তা দেশগুলো নাজেহাল। এবার তেলের দর হ্রাসের ফলে এসব দেশের অর্থনীতিতে কিছুটা স্বস্তি ফিরবে।

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন

এখন তেলের দরপতন ঠেকাতে তেল উত্তোলনকারী দেশগুলোর জোট ওপেক বা ওপেক প্লাস কোনো সিদ্ধান্ত নেয় কি না— সেটাই দেখার বিষয়।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আইই

বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন