বিজ্ঞাপন

বিশ্বকাপের দল পরিচিতি: সৌদি আরব

November 12, 2022 | 5:33 pm

মো. সাইফুল আলম তালুকদার

দরজায় কড়া নাড়ছে কাতার বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ খেলতে যাওয়া দলগুলোকে নিয়ে বিশ্লেষণে আমাদের আজকের আয়োজন সৌদি আরবকে নিয়ে। লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা, রবার্ট লেভান্ডোস্কির পোল্যান্ড এবং বিশ্বকাপের নিয়মিত ডার্ক হর্স মেক্সিকোর বিরুদ্ধে 'গ্রুপ-সি' থেকে মুখোমুখি হওয়ার লড়াইয়ে সৌদি আরবের প্রস্তুতি কেমন তা আমরা জানবো আজ।

বিজ্ঞাপন

'গ্রিন ফ্যালকন' দলের মূল তারকা হচ্ছে, তাদের কোচ হার্ভে রেনার্ড। যিনি পরপর দুটি বিশ্বকাপে দুটি ভিন্ন দলকে নিয়ে বিশ্বকাপে হাজির হচ্ছেন। ২০১৮ এর বিশ্বকাপে মরক্কোকে কোচিং করানো রেনার্ড আসছে এবার সৌদি আরবকে নিয়ে।

সৌদি আরব থেকে কাতারের দূরত্ব মাত্র ১ ঘন্টার পথ। তাই বিশ্বকাপে ফলাফল যাই হোক না কেন, টিকিট বিক্রির পরিসংখ্যান অনুসারে তারা বিশ্বকাপে তৃতীয় বৃহত্তম ভক্ত দল‌ হিসেবে আবির্ভূত হবে।

বিজ্ঞাপন

১) কোচ হার্ভে রেনার্ড: 

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
ফরাসি কোচ হার্ভ রেনার্ড, যিনি জাম্বিয়া এবং আইভরি কোস্টকে যথাক্রমে ২০১২ এবং ২০১৫ সালে আফ্রিকান কাপ অফ নেশনস শিরোপা জিতেছিলেন। তিনি ২০১৯ সাল থেকে সৌদি আরবের দায়িত্ব নেন।
বিশ্বকাপের গ্রুপিং সম্পর্কে ৫৪ বছরের এই কোচ জানিয়েছেন, যদিও আমরা একটি কঠিন গ্রুপে পড়েছি, কিন্তু আপনাকে বিশ্বাস করতে হবে এবং উচ্চাভিলাষী হতে হবে। আকাঙ্ক্ষা ছাড়া বিশ্বকাপে যাওয়া অর্থহীন। আমাদের বিশ্বাস করতে হবে যে আমাদের একটি সুযোগ আছে এবং নিজেদেরকে সীমাবদ্ধতা সীমা ছাড়িয়ে যেতে হবে।
আফ্রিকা মহাদেশে ৯ বছর কাজ করা এই কোচ এখন এশিয়ার সৌদি আরবের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছেন। পূর্বে ছিল স্প্যানিশ কোচ হুয়ান আন্তোনিও জুয়ান আন্তোনিও পিজ্জি। ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে প্রথম রাউন্ডে বাদ পড়ার পর এবং পরবর্তী বছরে এশিয়ান কাপ থেকে দ্রুত বিদায় নিলে দলের সঙ্গে তার বিচ্ছেদ ঘটে।
ফ্রেঞ্চম্যান দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে স্কোয়াডে অভিজ্ঞতা ও তরুণ খেলোয়াড়দের সংমিশ্রণ ঘটিয়েছেন। অনূর্ধ্ব-২৩ দল থেকে বাছাই করা বেশ কয়েক জনকে জাতীয় দলে স্থান দিয়েছেন। যেমন, ফিরাস আল-বুরাইকানের ১৯ বছর বয়সে তার সিনিয়র দলে অভিষেক হয়েছিল।
তাছাড়া তিনি নিয়মিত সৌদি আরবের ঘরোয়া 'রোশন লীগ' প্রত্যক্ষ করেছেন এবং সেখান থেকে দল বাছাই করেছেন। তার দল গত কয়েক বছর ধারাবাহিক ভাবে উন্নতি করছে।
তথাপি শুরুর দিকে তার যাত্রা ছিল বেশ ধীরগতিতে। ইয়েমেনের মত দলের সাথে ২-২ গোলের ড্র করা দলটি পরবর্তীতে জাপান ও অস্ট্রেলিয়াকে পেছনে ফেলে বাছাই-পর্বে 'গ্রুপ-বি' থেকে চ্যাম্পিয়ন হয়ে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে উঠে আসে।
২) কিভাবে উঠে এলো কাতার বিশ্বকাপে: 
আব্দুললাহ আল-আমরি, আব্দুলেলাহ আল-মালকি, ফিরাস আল-বুরাইকান এবং সামি আল-নাজেইয়ের মতো তরুণদের কঠিন পরিশ্রমের ফলে বাছাই-পর্বে এশিয়ান অঞ্চল থেকে 'গ্রুপ-বি'র চ্যাম্পিয়ন হতে কোন সমস্যা হয়নি। ‌
৩) বিগত বিশ্বকাপের পারফরম্যান্স: 
তাদের সেরা সাফল্য হচ্ছে মাত্র দ্বিতীয় রাউন্ড পর্যন্ত পৌঁছানো, যেটা তারা ১৯৯৪ সালের প্রথম বিশ্বকাপেই অর্জন করেছিল। ২০০২ বিশ্বকাপে এশিয়াতে অনুষ্ঠিত হলেও তারা সেবার জার্মানির কাছে ০-৮ গোলে পরাজিত হয়। ২০১৮ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই তারা ০-৫ গোলে হেরে গিয়েছিল রাশিয়ার কাছে।
১৯৯৪ সালে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচটি তারা খেলেছিল বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে।‌ ওই ম্যাচের ৫ মিনিটের মাথায় সৌদি ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত গোলটি করেন, সাঈদ আল-ওয়াইরান। আক্রমণাত্মক এই মিডফিল্ডারটি তার নিজ অর্ধ থেকে দৌড় শুরু করেছিলেন এবং গোলের পথে ৫ জন বেলজিয়ানকে কাটিয়েছিলেন এবং ইতিহাসের বইতে নিজের নাম লেখানোর জন্য গোলরক্ষককে ঠাণ্ডা মাথায় পরাস্ত করেছিলেন।
বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত তারা ১৬টি ম্যাচ খেলে ৩টি ম্যাচ জিতেছে, ড্র করেছে মাত্র ২টি ম্যাচে আর পরাজিত হয়েছে ১১টি ম্যাচে। তারা গোল করতে পেরেছিল ১১টি আর তাদের বিপক্ষে গোল হয়েছে ৩৯টি।
৪) সৌদিদের খেলার সময় সূচি: 
এই বিশ্বকাপে তাদের প্রথম ম্যাচ শুরু হবে শক্তিশালী আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ২২শে নভেম্বর। ‌ তার চার দিন পরে অর্থাৎ ২৬শে নভেম্বর দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে হবে পোল্যান্ডের বিরুদ্ধে। গ্রুপের সর্বশেষ ম্যাচের‌ প্রতিপক্ষ হচ্ছে মেক্সিকো, যাদের বিরুদ্ধে লড়তে হবে আরো ৪ দিন পর ৩০শে নভেম্বর তারিখে। গ্রুপের প্রথম ও তৃতীয় ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে লুসাইল স্টেডিয়ামে এবং দ্বিতীয় ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে এডুকেশন সিটি স্টেডিয়ামে। ‌
৫) দলের প্রস্তুতি কেমন?
সৌদিরা স্পেন এবং আরব আমিরাতে প্রশিক্ষণ নিয়েছে। বিশ্বকাপ বাছাই-পর্বের ম্যাচ গুলো শেষ হবার পরে আরো ৭টি প্রীতি ম্যাচ খেলেছে, যার মধ্যে ৪টি খেলেছে স্পেনে এবং বাকি ৩টি খেলেছে আরব আমিরাতে। বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার সঙ্গে প্রথম ম্যাচ খেলার আগে আগামী বুধবার নিজেদের মাটিতে ক্রোয়েশিয়ার সাথে সর্বশেষ প্রীতি ম্যাচ খেলবে। ‌
৬) দলের ফর্মেশন:
কোচ হার্ভে রেনার্ড বর্তমানে দলকে পুরনো ও প্রতিষ্ঠিত ৪-২-৩-১ পদ্ধতির পরিবর্তে ৪-৩-৩ পদ্ধতিতে দলকে খেলাচ্ছেন।
৭) দলের মূল তারকা: 
যদি অ্যাপেনডিক্স সার্জারি থেকে সালেম আল দাওসারি সুস্থ হয়ে ওঠেন তবে 'দ্য টর্নেডো' খ্যাত দাওসারী গ্রুপ পর্বের ম্যাচে নিশ্চয়ই প্রতিপক্ষের ঘাম ঝড়াবেন। ‌‌২০১৮ বিশ্বকাপে মিশরের বিরুদ্ধে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে জয়লাভ করার পথে তিনি গোল বানিয়ে দিয়েছিলেন। ৩১ বছর বয়সী, বাম পায়ে খেলা উইংগারটি বৈশ্বিক এবং মহাদেশীয় টুর্নামেন্টগুলোতে নিয়মিত গোল করে যাচ্ছেন। তার আল হিলাল ক্লাবের সহযোগী, ফ্রান্সের আন্তর্জাতিক খেলোয়াড় বাতের গোমিস গত বছরের এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন্স লিগে আল নাসেরের বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে ভালো খেলায় এই বলে টুইট করেছিলেন যে তিনি হচ্ছেন 'এশিয়ার সেরা খেলোয়াড়'।
৮) অন্য যাদের দিকে চোখ রাখতে হবে: 
প্রীতি ম্যাচে কাঁধে চোট পাওয়া সত্ত্বেও আল-হিলাল মিডফিল্ডার এবং দলের অধিনায়ক সালমান আল-ফারাজকে কোচ মনোনীত করেছেন। ফারাজ সৌদি মিডফিল্ডের চাবিকাঠি। তার নির্ভুল পাস দিয়ে আক্রমণে সাহায্য করা থেকে শুরু করে প্রতিপক্ষের আক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখা ও সঠিক নেতৃত্ব দেশের জন্য ভাল ফল আনতে পারে।
৯) নেপথ্যের নায়ক: 
২০১৮ বিশ্বকাপের ব্যর্থতা পিছনে ফেলে এ বছরের বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করলেও তাদের দলের স্ট্রাইকিং লাইনআপে এখনো দুর্বলতা রয়েছে। আর এই জায়গায় কাজ করবেন সালেহ আল-শেহরি।‌ স্ট্রাইকার হিসেবে তিনি একজন নিঃস্বার্থ পারফর্মার এবং আন্ডাররেটেড ফিনিশার। এশিয়ান অঞ্চলের বাছাইপর্বে ১৩টি গোলের মধ্যে ৭টি গোলই তিনি করেন। তিনি তার ১০টি গোলের ভেতরে ৯টি গোলই করেছেন ২০২১ সালের পর থেকে। ‌
১০) বিশ্বকাপে কারা কারা আছেন ২৬ জনের মূল দলে:
একটি অদ্ভুত ব্যাপার হলো সৌদিরা সালাফি মতবাদের কট্টর অনুসারী হওয়ায় তাদের খেলোয়াড়দের ওপর বিদেশি লীগে খেলার নিষেধাজ্ঞা বলবৎ আছে, ফলে এই দলের কেউই সৌদি আরব ছাড়া বাহিরের কোন দেশে লিগ খেলার অভিজ্ঞতা নেই।
 
তাদের ঘোষিত দলের গড় বয়স মাত্র ২৩ বছর। ‌
 
গোলরক্ষক: মোহাম্মদ আল-ওয়াইস (আল-হিলাল), নাওয়াফ আল-আকিদি (আল-নাসর), মোহাম্মদ আল-ইয়ামি (আল-আহলি)
ডিফেন্ডার: ইয়াসির আল-শাহরানি (আল-হিলাল), আলী আল-বুলাইহি (আল-হিলাল), আবদুল্লাহ আল-আমরি (আল-নাসর), আবদুল্লাহ মাদু (আল-নাসর), হাসান তাম্বকতি (আল-শাবাব), সুলতান আল -ঘানম (আল-নাসর), মোহাম্মদ আল-ব্রেক (আল-হিলাল), সৌদ আবদুলহামিদ (আল-হিলাল)
মিডফিল্ডার: সালমান আল-ফারাজ (আল-হিলাল), রিয়াদ শারাহিলি (আভা), আলী আল-হাসান (আল-নাসর), মোহাম্মদ কান্নো (আল-হিলাল), আবদুল্লাহ আল-মালকি (আল-হিলাল), সামি আল-নাজেই (আল-নাসর), আবদুল্লাহ ওতাইফ (আল-হিলাল), নাসের আল-দাওসারী (আল-হিলাল), আবদুল রহমান আল-আবউদ (ইত্তিহাদ), সালেম আল-দাওসারী (আল-হিলাল), হাতান বাহেবরি (আল-শাবাব)
ফরোয়ার্ড: ফাহাদ আল-মুওয়াল্লাদ (আল-শাবাব), হাইথাম আসিরি (আল-আহলি), সালেহ আল-শেহরি (আল-হিলাল) এবং ফিরাস আল-বুরাইকান (আল-ফাতেহ)।
১১) উপরের এই খেলোয়াড়রা কে কোথায় খেলবেন:
দলের গোলরক্ষক হিসেবে খেলবেন ৩১ বছর বয়সী মোহাম্মদ আল-ওয়াইস। যিনি গোলরক্ষক হিসেবে সবচেয়ে অভিজ্ঞ এবং কাতারেও প্রথম পছন্দের কিপার হিসেবে থাকবেন।
৩০ বছর বয়সের লেফট-ব্যাক, আল-শাহরানি যথেষ্ট অভিজ্ঞতা সম্পন্ন যিনি ইতিমধ্যে জাতীয় দলের হয়ে ৭১টি ম্যাচ খেলে ফেলেছেন।
৬ ফুট ৪ ইঞ্চি উচ্চতার মিডফিল্ড যোদ্ধা মোহাম্মদ কান্নোর দিকেও নজর রাখা উচিত। ২৮ বছর বয়সী তার ক্লাব আল-হিলালের সাথে ৫টি ঘরোয়া চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে।
ফাহাদ আল-মুওয়াল্লাদ এবং সালেম আল-দাওসারি মিডফিল্ডে সৌদি আরবের প্রধান আকর্ষণ। তারা দুজনেই যৌথ-সর্বোচ্চ গোলদাতা হবার পথে ১৭টি গোল করেছেন।
১২) দলের শক্তিমত্তা ও দুর্বলতা:
সৌদিদের মূল শক্তির জায়গা হল তাদের ডিফেন্স। ‌‌ বাছাই-পর্বের ১২টি ম্যাচে তারা ক্লিন শীট বজায় রেখেছিল। ‌‌তবে যেহেতু তাদের ইউরোপে খেলার অভিজ্ঞতা নেই, সেহেতু ডিফেন্স কার্যকরী ভূমিকা রাখবে কিনা সে ব্যাপারে সন্দেহ আছে।
গোল করার ক্ষেত্রেও তাদের যথেষ্ট দুর্বলতা আছে, ফলে তারা শেষ ১৬টি ম্যাচে ২টির বেশি গোল করতে পারেনি কোন দলের বিপক্ষে। আর বাছাই-পর্বে কিছুটা দুর্বল দলের সঙ্গে ১০টি ম্যাচে ১২টি গোল করতে পেরেছিল।
শক্তি ও আঘাতকে পাত্তা না দেয়ার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ফুল-ব্যাক ইয়াসির আল-শাহরানি। আল হিলাল আইকন সালমান আল-ফারাজের কাজ হবে মিডফিল্ডকে নিয়ন্ত্রণ করা। ব্যতিক্রমী উইঙ্গার সালেম আল-দাওসারির সৌদিদের অনুপ্রেরণার নাম। তবে দাওসারীর ও আল-ফারাজের ইনজুরি তাদের অনেক চিন্তায় ফেলে দিয়েছে।
সাধারণত, নিখুঁত মিডফিল্ড তৈরি করতে সিল্ক এবং স্টিলের মিশ্রণের প্রয়োজন হয় এবং সৌদি আরবকে মাঠের মাঝখানে দক্ষতার মিশ্রণ আনতে হবে।
১৩) তাদের সম্ভাবনা: 
সৌদি আরব হল কাতারে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী দ্বিতীয় সর্বনিম্ন র‌্যাঙ্কের দল এবং তারা প্রতিযোগিতার অন্যতম দুর্বল দল হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। তাদের টুর্নামেন্ট জেতার সম্ভাবনা তো দূরের কথা তাদের দ্বিতীয় রাউন্ডে যাবার সম্ভাবনা প্রায় শূন্য।
১৪) আমার দেখা সৌদিদের সেরা-১৪ ফুটবলার (পূর্বেকার বিশ্বকাপসহ): 
সৌদিরা ২০১০ এবং ২০১৪ বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করতে ব্যর্থ হওয়ায় তাদের অধিকাংশ খেলোয়াড় তাদের আগের বিশ্বকাপের।
ক) গোল-রক্ষক:- মোহাম্মাদ আল-দাইয়া (ম্যাচ:‌ ১৭৮। ৬ ফুট ৪ ইঞ্চি উচ্চতার এই গোলরক্ষক সৌদিদের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলেছেন। বিশ্বকাপ খেলেছেন ৪টি)
খ) রক্ষণ-ভাগ:-
রাইট-ব্যাক: মোহাম্মদআল-জাহানি (ম্যাচ: ১০৪। বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি)
সেন্ট্রাল-ডিফেন্ডার: মোহাম্মদ আল-খিলাইউই (ম্যাচ: ১৬৩। বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি। তিনি মাত্র ৪২ বছর বয়সে মারা যান)
আবদুল্লাহ জুবরোমাবী (ম্যাচ: ১৪২ & গোল: ৩। বিশ্বকাপ খেলেছেন ৩টি)
লেফট-ব্যাক: হুসাইন আব্দুলগানি (ম্যাচ: ১৩৮ & গোল: ৫। বিশ্বকাপ খেলেছেন ৩টি)
) মধ্য-মাঠ:-
ডিফেন্সিভ-মিডিও: ফুয়াদ আনোয়ার (ম্যাচ: ৯৫ & গোল: ১২। বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি)
অ্যাটাকিং-মিডিও: ইব্রাহিম আল-শাহরানী (ম্যাচ: ৮৬ & গোল: ২৪। বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি)
সাইদ আল-ওয়াইরান: (ম্যাচ: ৭৫ & গোল: ২৪। বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি। ১৯৯৪ সালের গ্রুপ পর্যায়ের ম্যাচে ৬জন খেলোয়াড়কে কাটিয়ে বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে করা তার গোলটি বিশ্বকাপের ইতিহাসে সেরা ৬ষ্ঠ গোল হিসাবে বিবেচিত হয়ে আসছে)
খালিদ আল-মুওয়ালিদ (ম্যাচ: ১১৪ & গোল: ২৮। বাম পায়ের এই খেলোয়াড়টি বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি)
ঘ) স্ট্রাইকার:- মাজেদ আবদুল্লাহ (ম্যাচ: ১১৭ & গোল: ৭২। তিনি সৌদি আরবের পক্ষে সবচেয়ে বেশি গোল করা খেলোয়াড়, ফলে মাত্র ১টি বিশ্বকাপ খেললেও তিনিই সৌদিদের কাছে সর্বসেরা খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচিত। তিনি কিছুটা আগের প্রজন্মের খেলোয়াড় হওয়ায় ৯৪ বিশ্বকাপের পরই তিনি অবসর নেন)
সামি আল-জাবের (ম্যাচ: ১৫৬ & গোল: ৪৬। তিনি ৪টি বিশ্বকাপ খেলেছেন কিন্তু কিছুটা নিচের দিকে নেমে খেলতেন বিধায় তার গোল সংখ্যা কম)।
৫) অতিরিক্ত:- ডিফেন্ডার, আহমদ মাদানী (ম্যাচ: ১১৭ & গোল: ৫। বিশ্বকাপ খেলেছেন ২টি)
উইঙ্গার, সালেম আল-দাওসারি (ম্যাচ: ৬৬ & গোল: ১৭। ৩১ বছর বয়সী এই খেলোয়াড়টি এখনো সৌদি জাতীয় দলে আছেন এবং ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ খেলেছেন)
স্ট্রাইকার, ওবায়েদ আল-দোসারি (ম্যাচ: ৯৪ & গোল: ৪১। তিনি বিশ্বকাপ ২টি খেললেও, বিশ্বকাপে ম্যাচ খেলেছিলেন মাত্র ২টি তাও কোনটিতে পূর্ণ ৯০ মিনিট খেলেননি)

সারাবাংলা/এসআইটি/এসএইচএস

বিজ্ঞাপন

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন