বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩ আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৮ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বিরিয়ানি মামলা, খাসির বদলে মুরগি খাইয়ে জরিমানা

এপ্রিল ৩০, ২০১৮ | ৩:৫২ অপরাহ্ণ

।। ফিচার ডেস্ক।।

বিজ্ঞাপন

দেখায় মুরগি... খাওয়ায় ডাল, বাংলাদেশে খুব প্রচলিত একটি কথা। তবে মুরগি দেখিয়ে অনেক কম দামি খাবার ডাল খাওয়ানো কখনো কোথাও হয়েছে কি না জানা নেই, এটি ভাবার্থের ব্যবহার। পাশের ভারতে এবার ঘটে গেছে এমনই এক কাণ্ড। সেখানে খাসির বিরিয়ানি ঘোষণা করে মুরগীর বিরিয়ানি খাওয়ানো হয়েছে। দামের খুব একটা ফারাক না হলেও সে ঘটনা আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। তাতে মালিককে জরিমানা পর্যন্ত গুনতে হয়েছে। সংবাদমাধ্যমে সে ঘটনার খবর এসেছে ‘বিরিয়ানি মামলা’ তকমায়।

মাত্র ৬২০টাকার বিরিয়ানির জন্য মালিককে জরিমানা করা হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। সাথে বিরিয়ানির দামও ফেরত দিতে বলা হয়েছে।

ঘটনাটি কলকাতার। রূপালি চক্রবর্তী নামে এক নারী বন্ধু-পরিজন নিয়ে রেস্তোরাঁয় গিয়েছিলেন খাসির মাংসের বিরিয়ানি খাওয়াবেন বলে। তো সবাই বসলেন আর রেস্তোরাঁর ওয়েটার বেশ আগ্রহ ভরেই গরম গরম বিরিয়ানি পরিবেশন করলেন। তবে মুখে তুলতেই সকলে টের পেয়ে গেলেন খাসির নয় তাদের খাওয়ানো হচ্ছে মুরগির মাংসের বিরিয়ানি।

এ নিয়ে শুরু হল ওয়েটারের সঙ্গে রূপালি চক্রবর্তীদের কথাকাটাকাটি। ক্রেতারা চাইলেন মুরগির মাংসের বিরিয়ানি বদলিয়ে খাসির মাংসের বিরিয়ানি দেওয়া হোক। কিন্তু তাতে কান দিলেন না ওয়েটার। শেষ পর্যন্ত মুরগির মাংসের বিরিয়ানিই খেতে বাধ্য হলেন আর ভ্যাট ও সার্ভিস ট্যাক্স বাবদ ৭৪৭ টাকা মিটিয়ে তারা বেরিয়েও গেলেন।

বিজ্ঞাপন


কিন্তু ঘটনা সেখানেই শেষ হলো না। খাওয়া শেষে রূপালি চক্রবর্তী গেলেন জেলা ক্রেতা সুরক্ষা আদালতে।

রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষকে ১০ হাজার টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দিলেন কলকাতা জেলা ক্রেতা সুরক্ষা আদালত (ইউনিট ২)। সেই নির্দেশ চ্যালেঞ্জ করে রাজ্য আদালতের দ্বারস্থ হলেন রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ। তাতে উল্টো ফল এলো। রাজ্য আদালতের বিচারক রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষকে আরও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা জমা দেওয়ার নির্দেশ দিলেন।

বিরিয়ানির দাম বাবদ দেওয়া ৬২০টাকা, ক্ষতিপূরণ হিসেবে ১০ হাজার, এবং মামলার খরচ বাবদ আরও পাঁচ হাজার, সব মিলিয়ে ১৫ হাজার ৬২০ টাকা দিতে হলো তাদের। বলা হলো, এক মাসের মধ্যে রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। তা না হলে ওই অঙ্কের ওপর আট শতাংশ হারে সুদ গুণতে হবে।

তবে রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষের আইনজীবী রবিউদ্দীন আহমদ রোববার (২৯ এপ্রিল) বলেন, আদালতের রায়ের প্রতিলিপি হাতে আসলেই তারা উচ্চতর ফোরামে আবেদন করবেন।

এক বছর আগে কলকাতার পার্ক সার্কাসের ওই রেস্তোরাঁয় খেতে গিয়েছিলেন রুপালিরা।

সারাবাংলা/আইএ

Advertisement
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন