বিজ্ঞাপন

উর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরেছে রেমিট্যান্স প্রবাহ

December 1, 2022 | 8:38 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা : টানা তিন মাস নিম্নমুখী প্রবণতার পর উর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরেছে রেমিট্যান্স প্রবাহ। সদ্যবিদায়ী নভেম্বর মাসে প্রবাসীরা ১৫৯ কোটি ৪৭ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় (প্রতি ডলার ১০৮ টাকা ধরে) ১৭ হাজার ২২২ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।

বিজ্ঞাপন

রেমিট্যান্সের এই প্রবাহ আগের মাস অক্টোবর মাসের তুলনায় ৬ কোটি ৯৩ লাখ এবং গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ৪ কোটি ডলার বেশি। উল্লেখ্য গত অক্টোবরে ১৫২ কোটি ৫৪ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন প্রবাসীরা। আর ২০২১ সালের নভেম্বরের ১৫৫ কোটি ৩৭ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের রেমিট্যান্সের সবশেষ হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে (জুলাই-আগস্ট) টানা ২ বিলিয়ন ডলার করে রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে। তবে জুলাইয়ের তুলনায় আগস্টে রেমিট্যান্স প্রবাহ কিছুটা কমে যায়। এরপর সেপ্টেম্বর, অক্টোবর মাসেও রেমিট্যান্স প্রবাহ আরও কমে দেড় বিলিয়ন ডলারে কোটায় নেমে আসে। তবে টানা তিন পর নিম্নমুখী থাকার পর সদ্য বিদায়ী নভেম্বর মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ উর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরায় দেশের অর্থনীতিতে স্বস্তির বাতাস ফিরে আসতে শুরু করেছে।

জানা গেছে, সদ্য বিদায়ী নভেম্বরে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে ২৬ কোটি ৮০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে। বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১২৮ কোটি ৯৩ লাখ ডলার। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ৫২ লাখ ডলার এবং বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৩ কোটি ২১ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স।

বিজ্ঞাপন

এদিকে বরাবরের মতো নভেম্বর মাসেও সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে বেসরকারি খাতের ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। এ ব্যাংকটির মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ডলার। আর রাষ্ট্রায়ত্ত অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে ১০ কোটি ৫৭ লাখ ডলার, ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকের মাধ্যমে ৯ কোটি ৫৮ লাখ ডলার, সোনালী ব্যাংকে ৯ কোটি ৯৪ লাখ ডলার, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৮ কোটি ডলার রেমিট্যান্স।

অর্থবছরে পাঁচ মাসে রেমিট্যান্স: চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন ৮৭৯ কোটি ২৯ লাখ মার্কিন ডলার। এর মধ্যে চলতি অর্থবছরের জুলাই মাসে ২০৯ কোটি ৬৩ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল। এরপর আগস্টে এসেছিল ২০৩ কোটি ৬৯ লাখ ডলার, সেপ্টেম্বরে ১৫৩ কোটি ৯৬ লাখ ডলার, অক্টোবর ১৫২ কোটি ৪৭ লাখ ডলার এবং নভেম্বরে এসেছে ১৫৯ কোটি ৪৭ লাখ ডলার। এটি গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১৮ কোটি ৮৮ লাখ ডলার বেশি।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে, ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ৮৬০ কোটি ৮৮ লাখ মার্কিন ডলার। এর মধ্যে জুলাই মাসে ১৮৭ কোটি ১৫ লাখ ডলার, আগস্টে ১৮১ কোটি ডলার, সেপ্টেম্বরে ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ, অক্টোবরে ১৬৪ কোটি ৬৯ লাখ নভেম্বরে ১৫৫ কোটি ৩৭ লাখ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে প্রবাসীরা।

অর্থবছরভিত্তিক রেমিট্যান্স: কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রবাসীরা দুই হাজার ১০৩ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন।এর আগে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবাসীরা রেকর্ড পরিমাণ দুই হাজার ৪৭৭ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠান। ২০১৯-২০ অর্থবছরে এক হাজার ৮২০ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার, ২০১৮-১৯ অর্থবছরের এক হাজার ৬৩১ কোটি ডলার,২০১৭-১৮ অর্থবছরে এক হাজার ৪৯৮ কোটি ডলার, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এক হাজার ২৭৬ কোটি ৯৪ লাখ ডলার,২০১৫-১৬ অর্থবছরে এক হাজার ৪৯৩ কোটি ডলার এবং ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রেমিট্যান্স এক হাজার ৫৩১ কোটি ৬৯ লাখ ডলার রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা।

বিজ্ঞাপন

পঞ্জিকাবর্ষ হিসাবে রেমিট্যান্স: বিদায়ী ২০২১ সালে প্রবাসীরা রেকর্ড পরিমাণ দুই হাজার ২০৭ কোটি ৮৫ লাখ মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। এর আগে ২০২০ সালে দুই হাজার ১৭৪ কোটি ১৮ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। ২০১৯ সালে এক হাজার ৮৩৩ কোটি মার্কিন ডলার,২০১৮ সালে এক হাজার ৫৫৩ কোটি ৭৮ লাখ ডলার, ২০১৭ সালে এক হাজার ৩৫৩ কোটি ডলার,২০১৬ সালে এক হাজার ৩৬১ কোটি ডলার এবং ২০১৫ সালে এক হাজার ৫৩১ কোটি মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স আসে দেশে।

সারাবাংলা/জিএস/ এনইউ

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন