বিজ্ঞাপন

নতুন তুর্কি ধারাবাহিক ‘‌সূর্যকন্যা’

December 7, 2022 | 3:12 pm

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপনডেন্ট

গুনেশ আর তার তিন মেয়ের গল্পকে ঘিরে নির্মিত তুরস্কের আলোচিত সিরিয়াল 'গুনেশিন কিযলারি'। গুনেশের শাব্দিক অর্থ সূর্য আর সেখান থেকেই এই সিরিয়ালের নামকরণ করা হয় 'সূর্যকন্যা'। এটি দেখা যাচ্ছে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম দীপ্ত প্লে-তে।

বিজ্ঞাপন

গল্পে দেখা যায় ৩৫ বছর বয়সী সুন্দরী, দৃঢ়চেতা, স্কুল শিক্ষিকা গুনেশ তার তিন মেয়েকে নিয়ে ইযমিরে থাকে। কোনো এক অজানা কারণে তার স্বামী তাকে ছেড়ে গেলেও ১৭ বছর বয়সী দুই যমজ মেয়ে নাযলি, সেলিন আর সবার ছোট পেরিকে নিয়েই তার সাজানো সুখের সংসার। সুখের সংসারে তখনই চিড় ধরে যখন তাদের জীবনে ইস্তাম্বুলের প্রভাবশালী ব্যবসায়ী হালুক মের্তওলুর আবির্ভাব ঘটে। হালুকের সাথে গুনেশের অল্পদিনের পরিচয়, পরিণয় থেকে বিয়েতে রূপ নেয়। গুনেশ তার তিন মেয়েকে নিয়ে চলে আসে ইস্তাম্বুলে, মের্তওলু পরিবারের অনাকাঙ্খিত অতিথি হয়ে।

হালুকের বড় বোন রানা আর আগের ঘরের ছেলে আলি, শুরুতেই তাদের আচরণে বুঝিয়ে দেয় তাদের মাঝের এই দূরত্ব ঘুঁচবার নয়। অন্যদিকে রানার পালক ছেলে সাভাশ যেন কোনো এক অজানা কারণে সবার কাছ থেকে দূরে থাকে স্বেচ্ছায়। একদিকে নাযলি আর সাভাশের খুনসুটি, অন্যদিকে আলি আর সেলিনের ঘৃণা থেকে ভালোবাসায় রূপ নেয়া গল্প এগোতে থাকে নানান চমক নিয়ে। সেই সাথে ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসে হালুকের অতীত কালো অধ্যায় যার সাথে জড়িয়ে আছে গুনেশের দু:সহ অতীত। এভাবেই রহস্যে ঘেরা এই গল্প ধীরে ধীরে দর্শকদের টেনে নেয় শেষ পর্যন্ত। যার প্রতি পদে একটা প্রশ্নই সবার মনে উঁকি দেয়- গুনেশ কি আদৌ সুখী হবে নাকি হালুকের অন্ধ ভালোবাসাই তার কাল হয়ে দাঁড়াবে? দেখতে হলে চোখ রাখুন দীপ্ত টিভির পর্দায়।

বিজ্ঞাপন

চরিত্র ও কন্ঠাভিনেতার তালিকা: গুনেশ (রুবাইয়া মতিন গীতি), হালুক (রাজু আহমেদ), নাযলি (তানিয়া পাটোয়ারী), সেলিন (নাহিদ আখতার ইমু), রানা (জয়শ্রী মজুমদার লতা), পেরি (নাদিয়া ইকবাল), সাভাশ (মরু ভাস্কর), আলি (শোভন দাস), সেভিলায় (মেরিনা মিতু), ইন্জি (শারমিন মৃত্তিকা), এমরে (শাহরিয়ার রানা), তুইচে (ফারিয়া আকতার সোমা), মেলিসা (সাদিয়া খান মৌরি), আহমেদ (রহমত উল্লাহ), জেন (খায়রুল আলম হিমু), যাফের (সজিব রায়) ও অন্যান্য।

ধারাবাহিকটির অনূদিত সংলাপ রচনা ও সম্পাদনায় কাজ করেছেন দীপ্ত টিভির নিজস্ব সংলাপ রচয়িতার দল। 'সূর্যকন্যা' ধারাবাহিকটির ডাবিং প্রজেক্ট ডিরেক্টর মেরিনা মিতু এবং প্রযোজনা করেছেন রোমানা হোসেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেডএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন