বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগের পেছনে এক সাংবাদিক দায়ী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

December 8, 2022 | 9:46 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানীতে বিএনপির সমাবেশ ঘিরে চলমান রাজনৈতিক উত্তেজনা নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তবে দেশটির এই উদ্বেগের পেছনে বাংলাদেশি এক সাংবাদিক দায়ী বলে অভিযোগ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) কক্সবাজারের ইনানী বিচে এক সেমিনার শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

তবে সেই সাংবাদিকের নাম বলতে না চাইলেও আব্দুল মোমেন বলেন, ‘লাশ পড়লে ওরা খুব খুশি হয়। কারণ, তখন পাবলিক সেন্টিমেন্ট পাওয়া যায়। ঘটনা ঢাকায় ঘটার আগেই তা ওয়াশিংটনে চলে যায়।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘এখানে কতগুলো বেসরকারি টেলিভিশন রয়েছে। তাদের ওপর কোনো চাপ নেই। অন্যান্য দেশে পরিস্থিতি ভিন্ন। কিছুদিন আগে কপ-২৭-এ যোগ দিতে মিশরে গিয়েছিলাম। শুনেছি ওখানে সরকারের কথা ছাড়া কেউ কোনো কথা বলতে পারে না। বাংলাদেশে তেমন না।’

তিনি বলেন, ‘ইউএস’র উদ্বেগের একটা কারণ হচ্ছে আমাদের সাংবাদিক, যিনি এটা উসকে দিচ্ছেন। যার হোয়াইট হাউজ ও ইউএন দুই জায়গাতেই যোগাযোগ আছে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশে কিছু হলেই তিনি সঙ্গে সঙ্গে প্রশ্ন করেন। প্রশ্ন করার ফলে উনি উত্তর দেন। উত্তরটা উনি (সাংবাদিক) লিখেও দেন। অনেক সময় উনি আগে-ভাগে লিখেও দেন, টেক্সট করেন। আমি এইটা প্রশ্ন করব, আর এই দুর্ঘটনা হয়েছে। সেই কারণেই বোধ হয় ইউএসএ এত উদ্বিগ্ন হচ্ছে।’

এ সময় সাংবাদিকেরা নাম জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সবাইকে সেটা খুঁজে বের করার পরামর্শ দেন। যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তারা (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) চায় কোনো সংঘাত না হোক, আমরাও চাই না। আমারও সর্বোচ্চ সংযম রক্ষা করি। তবে আমেরিকার রাস্তায় ও হোয়াইট হাউজের সামনে বড় জনসভার জন্য দেশটির সরকারও রাজি হবে না। নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের রাস্তায় সভা করার ক্ষেত্রে তারা অনুমতি দেবে না, এটাই নিয়ম।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘পথচারীদের বাধা দিতে চাই না, বিঘ্ন ঘটাতে চাই না। তারা (বিএনপি) শক্তি প্রদর্শন করতে চান, সম্মেলন করতে চান। সেক্ষেত্রে নিশ্চয়ই হলের ভেতরে করতে পারেন, মাঠের মধ্যেও করতে পারেন। সরকারও চায়। কারণ, বাংলাদেশের সব লোকের কথা বলার অধিকার আছে।’

সারাবাংলা/এসবি/এনএস/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন