বিজ্ঞাপন

খাবারেই সারবে শিশুর শীতকালীন অসুখ

January 18, 2023 | 3:21 pm

লাইফস্টাইল ডেস্ক

শীতকাল- অনেকেরই পছন্দের ঋতু। কিন্তু এই সময়ে শিশু ও বৃদ্ধদের নানা অসুখবিসুখেও আক্রান্ত হতে দেখো যায়। মৌসুম পরিবর্তনের সময় শিশুদের জ্বর-ঠান্ডা হলেও শীতকালে শিশুদের রোগব্যাধিতে বেশি আক্রান্ত হতে দেখা যায়। এ সময় সাধারনত জ্বর, সর্দি, কাশি, ডায়রিয়াতে বেশি ভোগে শিশুরা। তাই এই সময়ে বাবা-মায়েরাও একটু বেশি দুশ্চিন্তায় থাকেন।

বিজ্ঞাপন

শিশুদের এই সময়ে প্রয়োজন একটু বাড়তি যত্ন। চিকিৎসকরা বলছেন, শীতকালে ভাইরাস বেশি কার্যকর হয়ে যায়। শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় এসময় তাদের অনেক বেশি রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হতে দেখা যায়। এসব রোগের সঙ্গে লড়াই করার জন্য শিশুদের পুষ্টিকর খাবার প্রয়োজন। তাই এসময় শিশুদের এমন কিছু খাবার দিতে হবে যা তাদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াবে এবং শরীরে শক্তি যোগাবে।

খাবারেই সারবে শিশুর শীতকালীন অসুখ

বিজ্ঞাপন

শীতকালীন শাকসবজি

শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে শীতের শাকসবজি। এসব খাবারে থাকে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান যা শিশুকে সর্দি-কাশি ও ফ্লু থেকে বাঁচায় ও শরীরকে গরম রাখে। গাজর, বীট, মূলা, সিম, মসুর ডাল ইত্যাদি শাক-সবজি শীতে শিশুর জন্য খুবই উপকারী।

বিজ্ঞাপন

ভিটামিন-সি জাতীয় খাবার

শীতকালীন শাকসবজি ও ফলমূলে অনেক বেশি ভিটামিন সি থাকে। কমলালেবু, ব্রকলি, পালং শাক ইত্যাদি খাবারগুলো শিশুর ভিটামিন সি এর চাহিদা পূরণ করে। শীতকালে শিশুকে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার বেশি দিতে পারলে তার অ্যালার্জি, অ্যাজমাজনিত সমস্যা দূর হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

খাবারেই সারবে শিশুর শীতকালীন অসুখ

ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাবার

বিজ্ঞাপন

শীতকালে শিশুকে অবশ্যই ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াবেন। এ ধরনের খাবার শিশুর চুল পড়া, সর্দি-কাশির সমস্যা দূর করে। এ ধরনের খাবারের মধ্যে রয়েছে, সামুদ্রিক মাছ, চিয়া সিড, ফ্ল্যাক্সসিড ইত্যাদি।

বাদাম

বাদাম শিশুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে অনেক বেশি সাহায্য করে। এটি শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশে, কোষ্ঠকাঠিন্য কমাতে এবং শিশুর হাড় ও দাঁতের বিকাশে খুবই কার্যকর। এসব খাবারের মধ্যে রয়েছে-কাজুবাদাম, আখরোট, আমন্ড ইত্যাদি। দেশী বাদামও শিশুর জন্য খুবই উপকারী। তবে অনেক শিশুর বাদামে এলার্জি থাকতে পারে।

খাবারেই সারবে শিশুর শীতকালীন অসুখ

আঁশযুক্ত খাবার

শিশুর খাদ্যে আঁশ বা ফাইবারযুক্ত খাবার রাখা খুবই জরুরি। এর অভাবে শিশুর কোষ্ঠকাঠিন্য হতে পারে। ফাইবার শিশুর শরীরে ক্যালরির ভারসাম্য রক্ষা করে ও রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এ ধরনের খাবারগুলো হলো-নাশপাতি, কলা, আপেল, গাজর, ওটস, মটরশুঁটি ইত্যাদি।

সারাবাংলা/এসবিডিই/এএসজি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন