বিজ্ঞাপন

তাসফিয়ার রহস্যজনক মৃত্যু, খুনের মামলা বাবার

May 3, 2018 | 3:42 pm

।। স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট ।।

বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রামে স্কুলছাত্রী তাসফিয়া আমিনের (১৬) রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় তার বন্ধু আদনান মির্জাসহ সাতজনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (০৩ মে) দুপুরে তাসফিয়ার বাবা মো. আমিন বাদী হয়ে পতেঙ্গা থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে পতেঙ্গা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী ফৌজুল আমিন চৌধুরী সারাবাংলাকে বলেন, দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় তাসফিয়ার বাবার দেওয়া মামলা আমরা রেকর্ড করেছি। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, তাসফিয়ার বন্ধু আদনান ও তার ছয় সহযোগী তাকে পতেঙ্গার নেভাল এলাকায় নিয়ে হত্যা করেছে।

তিনি বলেন, তাসফিয়ার বিষয়টি হত্যাকাণ্ড কি-না আমরা নিশ্চিত নয়। এরপরও যেহেতু তার বাবা মামলা দিয়েছেন, আমরা গ্রহণ করেছি।

বিজ্ঞাপন

এর আগের রাতে তাসফিয়ার চাচা বাদী হয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ওই মামলার আর কোনো ভিত্তি নেই। এখন হত্যা মামলার তদন্ত হবে।

এদিকে আটক হওয়া আদনানকে হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছে পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

রোববার (৬ মে) ওই আবেদনের উপর শুনানি হবে বলেও জানিয়েছেন চট্টগ্রাম নগর পুলিশের সহাকারী কমিশনার (এসি-কর্ণফুলী জোন) জাহেদুল ইসলাম।

এ ছাড়া তাসফিয়ার মরদেহ ময়নাতদন্তের পর দুপুরে তার পরিবারকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

তাসফিয়ার বন্ধু এলিমেন্টারি স্কুলের নবম শ্রেণীর ছাত্র আদনান (১৬)-কে বুধবার সন্ধ্যায় নগরীর নাসিরাবাদ থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছিল, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আদনান জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে তাসফিয়া, আদনান এবং তাদের এক বন্ধু সোহেল নগরীর গোলপাহাড় এলাকায় চায়না গ্রিল রেস্টুরেন্টে বসেন। কিছুক্ষণ পর তাসফিয়ার আম্মা সোহেলকে ফোন করেন। তাসফিয়াকে দ্রুত বাসায় যেতে বলেন। এ সময় তাসফিয়া আদনানের কাছ থেকে ১০০ টাকা নিয়ে রেস্টুরেন্ট থেকে বের হয়ে সিএনজি অটোরিকশায় উঠেন।

সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাসফিয়ার মা আবারও আদনানকে ফোন করেন। তাসফিয়া কোথায় সেটা জানতে চান। আদনান তার কথামতো তাসফিয়ার বাসায় যান। রাত ১২টা পর্যন্ত আদনান এবং তাসফিয়ার পরিবারের সদস্যরা তাকে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি শুরু করেন। এরপর বুধবার সকালে তাসফিয়ার মরদেহ পাওয়া যায়।

বুধবার (০২ মে) সকালে নগরীর পতেঙ্গায় নেভাল একাডেমির কাছে ১৮ নম্বর ঘাট এলাকায় চোখ, নাক-মুখ থ্যাতলানো অবস্থায় তাসফিয়ার মরদেহ পায় পুলিশ।

প্রথমে পরিচয় নিশ্চিত না হলেও দুপুরে পরিবারের লোকজন থানায় গিয়ে মরদেহ শনাক্ত করেন।
তাসফিয়া কক্সবাজার জেলা সদরের ডেইলপাড়া এলাকার মো. আমিনের মেয়ে। চট্টগ্রাম নগরীর ও আর নিজাম রোডে তাদের বাসা। তাসফিয়া সানশাইন গ্রামার স্কুলের নবম শ্রেণীর ছাত্রী।

সারাবাংলা/আরডি/এমআই

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন