বিজ্ঞাপন

লটারির মাধ্যমে স্টল ও প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ বাংলা একাডেমি’র

January 22, 2023 | 8:05 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: প্রকাশক ও তাদের প্রতিনিধিদের উপস্থিতে লটারি ড্র’র মাধ্যমে অমর একুশে বইমেলা ২০২৩-এর স্টল ও প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ চূড়ান্ত করল বাংলা একাডেমি।

বিজ্ঞাপন

রোববার (২২ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বাংলা একাডেমির ‘আব্দুল করিম সাহিত্য বিশারদ’ মিলনায়তনে এ লটারি ড্র অনুষ্ঠিত হয়।

ডিজিটাল পদ্ধতিতে অনুষ্ঠিত এ লটারিতে শিশু প্রকাশনীর জন্য ১, ২, ৩ ও ৪ ইউনিট স্টল, সাধারণ প্রকাশনীর জন্য ১, ২, ৩ ও ৪ ইউনিট স্টল এবং প্যাভিলিয়নের জন্য ২০/২০ ও ২৪/২৪ ফুট পরিমাপের ইউনিটের জন্য আলাদা আলাদা সেগমেন্টে ড্র সম্পন্ন করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এ লটারি ড্র’র মাধ্যমে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশের স্টল ও প্যাভিলিয়নগুলো হস্তান্তর করল অমর একুশে বইমেলা কর্তৃপক্ষ। একাডেমি প্রাঙ্গণের স্টল ও প্যাভিলিয়নের জন্য আলাদা ড্র অনুষ্ঠিত হবে।

লটারি ড্র’র আগে স্বাগত বক্তব্যে বাংলা একাডেমির সচিব এ এইচ এম লোকমান বলেন, ‘অমর একুশে বইমেলায় এবার অনেক মানুষের সমাগম হবে, এটা আমরা বিশ্বাস ও প্রতীতি। আমাদের বইমেলা পরিচালনা কমিটির যে নিয়ম নীতিগুলো আছে, সেই নিয়ম নীতির প্রতি যদি আমরা শ্রদ্ধাশীল হই, তাহলে কোনো অসুবিধা হবে না।’

বিজ্ঞাপন

প্রকাশকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আজকে কিছুক্ষণ আগে দু’টো স্টল সম্পর্কে অভিযোগ এসেছে, এটা মেইল করে পাঠিয়ে দিয়েছে। স্টলের নাম আমরা এখন বলছি না। বিশেষ বিশেষ কিছু বইয়ের নাম এসেছে, সেই বইয়ের ভেতরে কী কী কনটেন্ট আছে, নেতিবাচক কনটেন্ট। এগুলো যদি কারও থেকে থাকে, তাহলে বিনীতভাবে আপনাদের কাছে অনুরোধ করব, তারা এই বইগুলো স্টলে উঠাবেন না।’

‘সহজ কথা হচ্ছে- আমরা শুদ্ধাচার জাতি, বাঙালি জাতি। আমরা চাই একটা সুন্দর, সুখময় শান্তির স্বদেশ। আমরা চাই দূষণমুক্ত, মাদকমুক্ত, বাল্যবিবাহমুক্ত, জঙ্গিমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত, মিথ্যমুক্ত এবং অন্যায় অপরাধমুক্ত বাংলাদেশ। সেই রকম বইগুলোই ওঠাবেন, যা নান্দনিক হবে। মানুষ পড়ে শিখবে, জানবে। অযথা কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলে বা বিতর্ক সৃষ্টি করে- এ রকম বই দয়া করে নিজেরা নিজেদের দায়িত্বে সরিয়ে রাখবেন’- বলেন এ এইচ এম লোকমান।

বিজ্ঞাপন

লটারির মাধ্যমে স্টল ও প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ বাংলা একাডেমি’র

প্রকাশকদের উদ্দেশে মেলার সদস্য সচিব কে এম মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আপনারা শুধু অভিযোগ নিয়ে আসবেন না। অভিযোগ নিয়ে এলে তার প্রতিকারটাও নিয়ে আসবেন। তাহলে মেলা পরিচালনা সুবিধা হবে। আমরা এবার অনেক পরে মাঠ পেয়েছি। ১২ তারিখে (১২ জানুয়ারি) আগে আমরা কাজ শুরু করতে পারিনি। আমরা সন্দিহান ছিলাম যে, নির্দিষ্ট সময়ের আগে স্টলগুলো ঠিক করে দিতে পারব কিনা। কিন্তু আমাদের যে সহকর্মীরা রয়েছেন, তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে মাত্র ১০ দিন কাজ করে আপনাদের স্টল বুঝিয়ে দিতে পারছি।’

বিজ্ঞাপন

‘সুতরাং আজ আপনারা যারা বরাদ্দ পেয়ে যাবেন, তারা আজ না হোক কাল সকাল থেকে সাজসজ্জার কাজ শুরু করে দিন। আমরা যেমন ১০ দিনে অনেক কিছু করে ফেলতে পারলাম, আপনারাও কিন্তু সাত/আট দিন সময় পাচ্ছেন। তবে কোনো ক্রমেই ৩১ তারিখে (৩১ জানুয়ারি) আমরা যখন মেলা ভিজিট করতে যাব, তখন এখানে ওখানে বিচ্ছিন্নভাবে সাজসজ্জার সরঞ্জাম পড়ে থাকাটা অ্যালাউ করব না। কারণ, এটা নিয়ে মিডিয়া অনেক আপত্তি তোলে। মেলার প্রথম দিনটা যদি সুন্দর হয় হয়, বাকি দিনগুলোও সুন্দর হবে’- বলেন কে এম মুজাহিদুল ইসলাম।

লটারি ড্র’র পর বাংলা একাডেমির প্রবেশপথসংগ্ন ভবনের দেয়ালে ফলাফল টাঙিয়ে দেওয়া হয়। উপস্থিত প্রাকশনী সংস্থার প্রতিনিধিরা নিজ নিজ স্টল নম্বর খুঁজে বের করেন এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গিয়ে নিজেদের স্টল ও প্যাভিলিয়নের জন্য বরাদ্দ করা ইউনিট চিহ্নিত করার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

অমর একুশে বেইমেলার উনচল্লিশতম আসর এবার ফেব্রুয়ারি মাসের ১ তারিখে শুরু হচ্ছে। বইমেলা চলবে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এবারের বইমেলার প্রতিপাদ্য ‘পড়ো বই গড়ো দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’।

সারাবাংলা/এজেড/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন