বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী হলেন টিউলিপ, ব্রিটেনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূতদের মধ্যে প্রথম

July 10, 2024 | 1:17 am

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রাজনীতিবিদ হিসেবে ব্রিটেনে মন্ত্রিত্ব পেলেন টিউলিপ সিদ্দিক। নবগঠিত কিয়ের স্টারমারের মন্ত্রিসভায় তাকে দেওয়া হয়েছে ‘সিটি মিনিস্টারে’র দায়িত্ব। এই পদে থেকে তিনি মূলত আর্থিক সেবা খাত দেখভাল করবেন।

বিজ্ঞাপন

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার (৯ জুলাই) ব্রিটিশ সরকারের এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। টিউলিপ সাবেক কনজারভেটিভ সরকারের অধীনে এইচএসবিসির সাবেক ব্যাংকার বিম আফোলামির স্থলাভিষিক্ত হবেন।

টিউলিপ সিদ্দিককে আগে থেকেই লেবার পার্টির সম্ভাবনাময় তরুণ নেতা মনে করা হচ্ছে। ৯ বছর ধরে তিনি তার আসনের সংসদ সদস্য। এরই ধারাবাহিকতায় এবার মন্ত্রিত্ব পেলেন তিনি।

যুক্তরাজ্যের সদ্যসমাপ্ত সাধারণ নির্বাচনে ২৩ হাজার ৪৩২ ভোট পেয়ে লন্ডনের হ্যামস্টেড ও হাইগেট আসনে জয় পান টিউলিপ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ পার্টির ডন উইলিয়ামস পেয়েছেন আট হাজার ৪৬২ ভোট। টিউলিপ এ নিয়ে টানা চতুর্থবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেন। তার দল লেবার পার্টিও এ নির্বাচনে ভূমিধস জয় পেয়েছে।

বিজ্ঞাপন

কনজারভেটিভ পার্টি সরকারে থাকাকালে টিউলিপের দল লেবার পার্টি ছিল বিরোধী দলে। ওই সময় দলের ছায়া মন্ত্রিসভায় ‘সিটি মিনিস্টার’ পদেই ছিলেন টিউলিপ। এবার দল সরকার গঠন করায় ওই পদেরই দায়িত্ব পেলেন তিনি।

৪১ বছর বয়সী টিউলিপ লেবার পার্টির আর্থিক সেবা খাতের নীতিমালা প্রণয়নের কাজে নেতৃত্ব দিয়েছেন। গত মে মাসে তিনি ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসকে বলেছিলেন, এই খাতে প্রতিযোগিতা ও প্রবৃদ্ধি বাড়াতে লেবার পার্টি বাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফাইন্যান্সিয়াল কনডাক্ট অথোরিটিকেআরও বেশি চাপ প্রয়োগ করবে।

স্টারমারের মন্ত্রিসভায় অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন র‌্যাচেল রিভস। গত সোমবার তিনি যুক্তরাজ্যের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গতি বাড়ানে নতুন ‘জাতীয় মিশনে’র ঘোষণা দিয়েছেন। এর আওতায় অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি বেসরকারি বিনিয়োগ উৎসাহিত করেছেন তিনি। টিউলিপকেও আর্থিক সেবা খাত নিয়ে ব্রিটিশ অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করতে হবে।

বিজ্ঞাপন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট মেয়ে ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে টিউলিপের জন্ম ১৯৮২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর লন্ডনে। ১৬ বছর বয়সে তিনি রাজনীতি শুরু করেন লেবার পার্টির সদস্য হওয়ার মাধ্যমে। ক্যামডেন কাউন্সিলের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন হন। সেখানেও তিনি প্রথম বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নারী কাউন্সিলর।

সারাবাংলা/টিআর

Tags: , , , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন