রবিবার ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৩১ ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৫ মুহাররম, ১৪৪১ হিজরি

বিজ্ঞাপন

বিরতির আগে সৌদির জালে রাশিয়ানদের ২ গোল

জুন ১৪, ২০১৮ | ৯:৫৩ অপরাহ্ণ

সারাবাংলা ডেস্ক ।।

বিজ্ঞাপন

শুরু হয়ে গেছে বিশ্ব ফুটবলের মহাযজ্ঞ। ২১তম বিশ্বকাপের আসরে স্বাগতিক রাশিয়ার মুখোমুখি হয়েছে সৌদি আরব। মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচটি বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় শুরু হয়। ম্যাচের বিরতির আগে ২-০ গোলে এগিয়ে রাশানরা। একটি করে গোল করেন উইরি গাসিস্কিয়ি এবং ডেনিস চেরিশেভ।

শুরু থেকেই সৌদিকে চেপে ধরে রাশিয়ানরা। খুব দ্রুত লিডও নেয় তারা। স্বাগতিকরা ম্যাচের ১২ মিনিটের মাথায় ১-০ গোলে এগিয়ে যায়। রাশিয়ানদের তারকা উইরি গাসিস্কিয়ি গোল করে দলকে এগিয়ে নেন। ২২ বছর বসয়ী সিএসকেএ মস্কোতে খেলা আলেকজান্ডার গোলভিনের অ্যাসিস্ট থেকে গোল করেন ২৮ বছর বয়সী তারকা মিডফিল্ডার গাসিক্সিয়ি। ১৫ মিনিটের মাথায় আবারো গোলের সুযোগ পেয়েছিল স্বাগতিকরা। জাগোভ আর স্মোলোভের দারুণ কম্বিনেশন সৌদির জালে বল জড়াতে পারেনি।

২১ মিনিটের মাথায় সুযোগ তৈরি করেছিল সৌদি। ৩১ বছর বয়সী অভিজ্ঞ স্ট্রাইকার আল সালাউয়ি গোলবারের বাইরে বল পাঠিয়ে দেন। ৩৭ মিনিটের মাথায় আবারো আক্রমণে যায় রাশিয়া। নিজেদের ডি-বক্সে ঝুঁকিয়ে নিয়ে বল ক্লিয়ার করেন ওসামা হাসাউয়ি। পেনাল্টির আবেদন করেও হতাশ হতে হয় রাশানদের। ম্যাচের ৪৩তম মিনিটে সৌদির রক্ষণকে চূর্ণ করে দ্বিতীয় গোল করেন ডেনিস চেরিশেভ (২-০)। ২৭ বছর বয়সী ভিয়ারিয়ালে খেলা এই তারকা মিডফিল্ডার পাঁচ ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে সৌদির বক্স থেকেই গোল করেন। চেরিশেভকে বল বানিয়ে দেন ২৪ বছর বয়সী তরুণ মিডফিল্ডার রোমান জোবনিন।

বিশ্বকাপের স্বাগতিক হিসেবে বাজির ঘোড়া হতে পারে রাশিয়া। কিন্তু খোদ নিজেদের দেশেই রাশিয়ার পক্ষে বাজি ধরার লোক কম। এই মুহূর্তে রাশিয়ার ফিফা র‌্যাংকিং ৬৬। বিশ্বকাপের দলগুলোর মধ্যে তাদের চেয়ে র‌্যাংকিংয়ে নিচের দিকে আছে হাতেগোণা কয়েকটি দল। তবে যে গ্রুপে পড়েছে, সেখান থেকে পরের পর্বে না উঠলে রাশিয়া ভীষণ হতাশই হবে।

বিজ্ঞাপন

অপরদিকে, সৌদি আরব ১৯৯৪ থেকে টানা চার বিশ্বকাপে ছিল নিয়মিত। এরপর এক যুগেরও বিরতির পর সৌদি আরব আবার ফিরছে বিশ্বকাপে। তবে বিশ্বকাপে কতটুকু কী করতে পারবে সেই প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। মাত্র গত ডিসেম্বরে দায়িত্ব নিয়েছেন নতুন কোচ হুয়ান আন্তোনিও পিজ্জি, এই সময়ে কতটা কী করতে পারেন সেটা নিয়ে আছে সংশয়।

বেশ কয়েকজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড় অবসর নেওয়ায় রাশিয়া একটা ধাক্কা খেয়েছে। ফর্মও ভালো নয় খুব একটা। ২০১৬ ইউরোর পর রাশিয়া ১৯টি প্রীতি ম্যাচ খেলে জিতেছে মাত্র ছয়টিতে (সেই জয়গুলো এসেছে ঘানা, রোমানিয়া, হাঙ্গেরি, নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া ও ক্লাব দল ডায়নামো মস্কোর বিপক্ষে)।২০১৭ অক্টোবরের পর থেকে কোনো জয় নেই। তবে স্মোলোভ, জাগোয়েভদের আক্রমণ নিজেদের দিনে যে কোনো কিছু করে ফেলতে পারে।

বিশ্বকাপে ১০ বার অংশ নিয়েছে রাশিয়া। একবার সেমিফাইনাল খেলা দেশটি কোনোবারই ফাইনাল খেলতে পারেনি। রাশিয়া প্রথম অংশ নেয় ১৯৫৮ সালে, শেষ অংশ নিয়েছিল ২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে। দেশটির সেরা অর্জন চতুর্থ স্থান (১৯৬৬ সাল)

গ্রপে সেই অর্থে অবশ্য খুব বেশি কঠিন পরীক্ষা দিতে হচ্ছে না সৌদি আরবকে। তবে সমস্যা হতে পারে খেলোয়াড়দের বাইরের লিগে খেলার অভিজ্ঞতার অভাব। কমবেশি সবাই খেলেন ঘরোয়া লিগে। সেই ঘাটতি মেটাতে গত জানুয়ারিতে বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়কে লা লিগার বিভিন্ন ক্লাবের হয়ে খেলানোর ব্যবস্থা করেছিল সৌদি ফেডারেশন। কিন্তু কেউই তেমন একটা মাঠে নামার সুযোগ পাননি।

বিশ্বকাপে সৌদি ৪ বার অংশগ্রহণ করে। সেমিফাইনাল কিংবা ফাইনালে খেলা হয়নি কোনোবারই। প্রথম অংশগ্রহণ ১৯৯৪ সালে আর সর্বশেষ অংশগ্রহণ ২০০৬ সালে। বিশ্বমঞ্চে সৌদির সেরা সাফল্য শেষ ষোলো (১৯৯৪)।

সারাবাংলা/এমআরপি

Advertisement
বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন