Ad

বিজ্ঞাপন

‘ঢাকা-১৮ উপনির্বাচন একাদশ সংসদ নির্বাচনের চেয়েও নিচে নেমে গেছে’

November 12, 2020 | 4:59 pm

স্পেশাল করেসপরেন্ডন্ট

ঢাকা: ঢাকা-১৮ উপনির্বাচন মানের দিক থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়েও নিচে নেমে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

Ad

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘নির্বাচনকে আমি কেবল প্রার্থীর বা দলের জয়-পরাজয় নির্ধারণের মাধ্যম বলে মনে করি না। নির্বাচন হচ্ছে গণতন্ত্রে উত্তরণের একমাত্র অবলম্বন। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, অংশীদারমূলক ও গ্রহণযোগ্য না হলে ক্ষমতার হস্তান্তর স্বাভাবিক হতে পারে না।

বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) ঢাকা-১৮ আসনের ১৪টি ভোটকেন্দ্রের ৭০টি বুথ কক্ষ পরিদর্শন শেষে আগারগাঁও নির্বাচন কমিশন ভবনে নিজ কার্যালয়ে লিখিত বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

Ad

বিজ্ঞাপন

আরও পড়ুন- বাংলাদেশের নির্বাচন থেকে আমেরিকারও শেখার আছে: সিইসি 

মাহবুব তালুকদার বলেন, ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচন মোটেই অংশগ্রহণমূলক হয়নি। আমি বিরোধী দলের কোনো পোলিং এজেন্ট কোনো কেন্দ্রে দেখিনি। কেবল কুর্মিটোলা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খিলক্ষেতের ভোটকেন্দ্রে একটি বুথে মহিলা পোলিং এজেন্টের উপস্থিতি দেখতে পাই।

তিনি বলেন, ঢাকা-১৮ পুরো নির্বাচনি এলাকায় একটি দলের পোস্টার, প্ল্যাকার্ড ও বিলবোর্ড দেখা যায়, যা আচরণ-বিধি অনুযায়ী নির্বাচনের আগে তুলে ফেলা উচিত ছিল।

লিখিত বক্তব্যে মাহবুব তালুকদার বলেন, আজ সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত ঢাকা-১৮ নির্বাচনি এলাকার উপনির্বাচনে নিকুঞ্জ, খিলক্ষেত ও উত্তরার ১৪টি ভোটকেন্দ্রের ৭০টি বুথ পরিদর্শন করি। নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে আমার ধারণা হয়েছে, বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়েও এই নির্বাচন (ঢাকা-১৮) আরও নিচে নেমে গেছে। নির্বাচন মোটেই অংশগ্রহণমূলক হয়নি।

এই নির্বাচন কমিশনার আরও বলেন, নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য না হলে দেশের স্থিতিশীলতা, সামাজিক অস্থিরতা ও ব্যক্তির নৈরাশ্য বৃদ্ধি পায়। এর ফলে নৈরাশ্য থেকে নৈরাজ্য তৈরি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। নৈরাজ্য প্রবণতা কোনো গণতান্ত্রিক দেশের জন্য মোটেই কাম্য নয়। আমি নির্বাচন প্রক্রিয়ার সংস্কার প্রত্যাশা করি। তা না হলে দেশ অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে অগ্রসর হতে পারে।

ফাইল ছবি

সারাবাংলা/জিএস/টিআর

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad