Ad

বিজ্ঞাপন

নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশের বড় দুশ্চিন্তা ‘নতুন বল’

March 3, 2021 | 7:05 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের মাঠে এখন পর্যন্ত ২৬ ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। কিন্তু একটা ম্যাচও জিততে পারেনি টাইগাররা। তাসমান সাগর ঘেঁষে অবস্থিত দেশটির উইকেট বরাবরই পেস বান্ধব। নতুন বলে দুই দিকেই সুইং পান পেসাররা। এই নতুন বলই বারবার ভুগিয়েছে বাংলাদেশকে।

Ad

বিজ্ঞাপন

নতুন বলের সুইংয়ের জবাব দিতে না পেরে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় বাংলাদেশ। পরে আর ধাক্কা কাটিয়ে উঠা হয় না, হেরে মাঠ ছাড়তে হয়। নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশের এতোদিনের হারের চিত্রনাট্য এটা। এবারও নিশ্চয় নতুন বল নিয়ে চিন্তিত বাংলাদেশ। মোহাম্মদ মিঠুন বললেন, নতুন বলের চ্যালেঞ্জ যদি কাটিয়ে উঠা যায় তবে নিউজিল্যান্ডে ইতিবাচক ফল পাওয়া সম্ভব। বাংলাদেশ সেই লক্ষ্যে এগুচ্ছে বলেও জানালেন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

বুধবার (৩ মার্চ) নিউজিল্যান্ড থেকে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় মিঠুন বলছিলেন, 'এখানে খেলাটা চ্যালেঞ্জিং। কারণ এখানকার কন্ডিশন অনেক ভিন্ন আমাদের থেকে। এই ধরণের কন্ডিশনে সব সময় খেলার সুযোগ হয় না। সবাই জানে নিউজিল্যান্ডে নতুন বলটা খুব বেশি চ্যালেঞ্জিং হয়। নতুন বলটা যদি ভাল করে সামলাতে পারি তাহলে আশা করছি আগের চেয়ে অনেক ইতিবাচক ফল আসবে। আগে কী হয়ে গেছে সেটার চেয়ে সামনে কী করব সেটা নিয়ে ভাবছি, আর যেহেতু এবার অনেকদিন আগে এসেছি। অনেক অনুশীলন সুবিধা পাব। দলের সবাই চেষ্টা করব।'

Ad

বিজ্ঞাপন

নিউজিল্যান্ডে কঠিন কোয়ারেন্টাইনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের। প্রথম কয়েকটা দিন ঘর থেকে বেরুনোর সাধ্য হয়নি। তবে কোয়ারেন্টাইন এখন শিথিল হয়েছে। তৃতীয় দফা করোনা পরীক্ষায় দলের সবার নেগেটিভ এসেছে আজ। ফলে আগামীকাল থেকে অনুশীল করার সুযোগও পাবেন ক্রিকেটাররা। ঘর থেকে সকাল দুপুর রাতে বেরুনোর অনুমতি ও জিম করার অনুমতি পেয়ে গেছেন আজ থেকেই। এতে বড় স্বস্তি মিঠুনের। যেন হাফ ছেড়ে বাচঁলেন!

বলছিলেন, 'প্রথম দিকে তো অনেক সীমাবদ্ধতা ছিল। আস্তে আস্তে হালকা হচ্ছে। আজ আমরা জিম করার অনুমতি পেয়েছি। এক সপ্তাহ পর জিম সুবিধা ব্যবহার করতে পেরে ভাল লাগছে খুব। ঘরের মধ্যে থাকা অনেক কষ্টকর। কাল থেমে মাঠে যেতে পারব এই ব্যাপারটা ভাবতে ভাল লাগছে। কাল থেকে অনুশীলন শুরু হলে আশা করি সবই মানিয়ে নিতে পারব।'

মিঠুন বলেন, 'এখনকার আবহাওয়া খুবই ভাল। এরকম আবহাওয়া থাকলে সমস্যা হবে না। আর ১৪ দিন পর আমাদের যে স্বাভাবিক চলাফেরা শুরু হবে এটা অবশ্যই ইতিবাচক দিক। সবাই এটা উপভোগ করবে। কারণ গত এক বছর ধরে আমরা এই কোভিটের মধ্যে আছি। বাংলাদেশেও যতগুলো টুর্নামেন্ট হয়েছে হোটেল থেকে বের হওয়ার সুযোগ হয়নি। এখানে ভিন্ন, ১৪ দিন পরে আমরা একদম ফ্রি চলাচল করতে পারব। সেটা ভেবে ভাল লাগছে। ১৪ দিন কষ্ট হলেও তারপরে আমরা বেশ মুক্তভাবে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারব।’

উল্লেখ্য, নিউজিল্যান্ডে তিনটি করে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। সিরিজ শুরু হবে চলতি মার্চ মাসের ২০ তারিখে।

সারাবাংলা/এমআরএফ/এসএইচএস

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad