Ad

বিজ্ঞাপন

মজুত ৫০ হাজার ডোজ নিয়ে চট্টগ্রামে শুরু হচ্ছে করোনার দ্বিতীয় টিকা

April 7, 2021 | 7:31 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: মজুত থাকা ৫০ হাজার ডোজ নিয়ে সারাদেশের মতো বৃহস্পতিবার থেকে চট্টগ্রামেও শুরু হচ্ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে দ্বিতীয় পর্যায়ের টিকাদান কর্মসূচি। প্রথমবারের মতো এবারও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের টিকা গ্রহণের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামে এ কার্যক্রম শুরুর কথা রয়েছে।

Ad

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) সকালে দ্বিতীয় পর্যায়ের জন্য আরও তিন লাখ ছয় হাজার ডোজ টিকা চট্টগ্রামে এসে পৌঁছবে বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন মোহাম্মদ আসিফ খান।

এর আগে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামসহ সারাদেশে একযোগে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে প্রথম ডোজ টিকা কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। ওইদিনও চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর টিকা গ্রহণের মাধ্যমে এ কার্যক্রম শুরু হয়।

Ad

বিজ্ঞাপন

জানতে চাইলে উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সারাবাংলাকে বলেন, ‘হাসপাতালের সঙ্গে আমার যোগাযোগ হয়েছে। আমি দ্বিতীয় ডোজ নিতে আগ্রহী। শারীরিক কোনো সমস্যা না থাকলে আগামীকালই (বৃহস্পতিবার) নিয়ে ফেলব।’

প্রথম দফায় চট্টগ্রামে তিন লাখ ৫৬ হাজার ডোজ টিকা আসে। এরপর নতুন করে আরও ৯০ হাজার ডোজ টিকা পাওয়া যায়। বুধবার (০৭ এপ্রিল) পর্যন্ত চট্টগ্রামে চার লাখ ৩৩ হাজার ৯৬৫ ডোজ টিকা দেওয়া হয়। দ্বিতীয় ডোজের জন্য ৭০ শতাংশ হারে তিন লাখ ছয় হাজার নতুন করে পাঠানো হচ্ছে।

চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন মোহাম্মদ আসিফ খান সারাবাংলাকে বলেন, ‘দ্বিতীয় পর্যায়ের জন্য আমাদের কাছে এখন ৫০ হাজার ১৩০ ডোজ মজুত আছে। সেটা দিয়েই আগামীকালের (বৃহস্পতিবার) কার্যক্রম শুরু হয়ে যাবে। শুক্রবার সকালে আরও তিন লাখ ছয় হাজার ডোজ টিকা আমরা পাচ্ছি। সেগুলো সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ইপিআই স্টোর রুমে রাখা হবে। সেখান থেকে নগরী ও উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে বিতরণ করা হবে।’

সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে বলা হয়েছে, দ্বিতীয় ডোজের জন্য মোবাইলে ক্ষুদেবার্তা পাঠানো হয়েছে। কেউ সেটি না পেলে প্রথম ডোজ দেওয়ার কার্ড নিয়ে হাজির হলে তাকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। তবে প্রথম ডোজের তারিখের আট সপ্তাহ পূর্ণ হওয়া বা পার হওয়ার তারিখ হতে হবে। প্রথম ডোজ যিনি যে কেন্দ্রে নিয়েছেন তাকে দ্বিতীয় ডোজ একই কেন্দ্রে নিতে হবে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সেলিম আকতার চৌধুরী বলেন, ‘কেউ মোবাইলে এসএমএস না পেলেও সমস্যা নেই। প্রথম ডোজের সময় দেওয়া কার্ড নিয়ে আট সপ্তাহ পরের তারিখে হাজির হলে হবে।’

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad