Ad

বিজ্ঞাপন

‘প্রস্তাবিত বাজেট সাধারণের জন্য নয়, আমলাদের জন্য’

June 10, 2021 | 6:29 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট সাধারণ মানুষের জন্য নয়, এই বাজেট আমলাদের জন্য। তাদেরকেই ‘খাতির’ করা হয়েছে বাজেটে।

Ad

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) রাজধানীর গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালে মেজর হায়দার আলী মিলনায়তনে আয়োজিত ‘সচেতন নাগরিকদের দৃষ্টিতে ২০২১-২০২২ অর্থবছরের জাতীয় বাজেট’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

অর্থনীতিবিদ ডা. রেজা কিবরিয়ার সভাপতিত্বে ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের গণমাধ্যম উপদেষ্টা জাহাঙ্গীর আলম মিন্টুর সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন অর্থনীতিবিদ ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, গণস্বাস্থের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ্ চৌধুরী, বাসদের সাধারণ সম্পাদক কমরেড খালেকুজ্জামান, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন প্রমুখ।

Ad

বিজ্ঞাপন

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘বাজেট হওয়া উচিত নাগরিকদের জন্য। আমি বাজেটটি দেখার চেষ্টা করেছি অর্থমন্ত্রীর শ্রেণি চরিত্রের আলোকে। বাজেটের প্রতিটি ক্ষেত্রে তার পেশা ও শ্রেণির প্রভাব পড়েছে। বাজেটে দুর্নীতিকে বহাল রাখার ফাঁক রয়ে গেছে। অথচ এটার উল্টোটা হওয়া উচিত ছিল। তাদের সংসদে আসার আগে সবার সঙ্গে আলোচনা করা উচিত ছিল। জনগণের মতামত নেওয়া উচিত ছিল।’

তিনি বলেন, ‘বাজেটের ব্যাপারে আমলাদের খাতির করা হয়েছে। কারণ হলো- উনার পেশা। চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট হিসেবে উনি একটি শ্রেণিকে অনেক সুবিধা দিয়েছেন। আমলাদের বেতন অনেক বাড়ানো হয়েছে। গাড়ি কেনার জন্য ত্রিশ লাখ টাকা দেওয়া হয়। পঞ্চাশ হাজার টাকা দেওয়া হয় তা মেইনটেন্যান্স করার জন্য। উপকার পেয়েছে উচ্চ শ্রেণি। আমরা মধ্যম আয়ের দেশ। কিন্তু মনোবৃত্তিটা পরিবর্তন হয়নি।’

জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘যার আয় বছরে ৫ লাখ টাকা সেই ট্যাক্সের আওতায় আসা উচিত৷ আমার প্রস্তাব পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত ফ্রি করে দেন। তার পর থেকে ক্রমবর্ধমান হারে ট্যাক্স নিতে থাকেন। তাহলে বেশি সংখ্যক মানুষকে ট্যক্সের আওতায় আনা যাবে। মনে রাখা দরকার সকারের মূল আয় আসে ভ্যাট থেকে। ওষুধের কাচামালের ওপর কর কমিয়েছেন। কিন্তু সেটা ব্যবসায়ীদের হাতে ছেড়ে দেওয়া যাবে না। নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।’

‘খালেদা জিয়ার আমলে ভুলের কারণে জনগণের এখানে ভোগান্তি হয়েছে। অগ্রিম ইনকাম ট্যাক্স দুর্নীতির একটি বড় কারণ। স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়িয়ে লাভ হবে না, যদি না কিছু মৌলিক পরিবর্তন আনা যায়’— বলেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

সাবেক তত্ত্বাধায়ক সরকারে উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘নানা পর্যায়ে আলোচনা হওয়া উচিত। প্রথম কথা বাজেটের তিনিটি দিক— বরাদ্দ, ক্ষমতাসীন দলের অর্থনৈতিক কৌশল, চলমান বাস্তবতার সঠিক প্রতিফলন। কৌশলের পেছনে অর্থনৈতিক দর্শনও কাজ করে। ক্ষমতাসীন দলের অর্থনীতির কৌশল থাকে চুইয়ে পড়া অর্থনীতির দিকে। অর্থমন্ত্রী এটার উপরেই গুরুত্ব দিয়েছে। শিল্পকারখানা, ব্যবসা বাণিজ্য উন্নতি হলে সকল স্তরের মানুষ আস্তে আস্তে সুবিধা পাবে। এটাই এই নীতির মূল দর্শন।’

তিনি বলেন, ‘জিডিপির বৃদ্ধি চুইয়ে পড়া অর্থনীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। এটার অসাড়তা নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে। বাস্তবতার সঙ্গে সেটা অনেকাংশেই মেলে না। আমাদের অর্থনীতিতে অবদান রাখছে কৃষি, ক্ষুদ্র ব্যবসা। সেখানে কত বরাদ্দ দেওয়া হলো, তা নিয়ে আলোচনা হওয়া উচিত।’

সভাপতির বক্তব্যে ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী বড় শ্রেণির স্বার্থ রক্ষা করেছেন। কিন্তু দুঃখজনক, উনার শ্রেণির খুব বেশি মানুষ নেই। ক্যাপাসিটির তুলনায় আমরা ৪০ শতাংশ বিদ্যুৎ ব্যবহার করি। অথচ বিদ্যুৎ উৎপাদন কোম্পানিকে ৯ হাজার কোটি টাকা দেওয়া হয়।’

তিনি বলেন, ‘চায়না থেকে আমরা ১০ ডলারে ভ্যাকসিন কিনেছি। ভ্যক্সিনেশনের জন্য অনেক বরাদ্দ দরকার। কিন্তু তা দেওয়া হয়নি। এই ক্রিটিক্যাল সময়ে অর্থখাতে, স্বাস্থ্য খাতে অযোগ্য, বিলো এভারেজ মানুষকে দায়িত্ব দিয়ে প্রধানমন্ত্রী অপরাধ করেছেন।’

কমরেড খালেকুজ্জামান বলেন, ‘প্রশ্ন আসে বিশাল বাজেটে বড় অংকের টাকা কীভাবে ব্যয় হবে। এক্ষেত্রেও জনগণের সামনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার বালাই থাকবে না। বাংলাদেশের গ্রামে, ইউনিয়নে সাধারণ মানুষকে যদি জিজ্ঞাসা করা হয় তারা কীভাবে এই বাজেট দ্বারা উপকৃত হবে বা তাদের জন্য কী বরাদ্দ রয়েছে। শতকরা ৯২ ভাগ মানুষ জবাব দিতে পারবে না।’

তিনি বলেন, ‘মাথাপিছু আয় বাড়লেও সেটা কতিপয় ধনিক শ্রেণির বেড়েছে। প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষের আয় আরও কমেছে। ধনী ও দরিদ্রের বৈষম্য বাড়ছে। কাজেই এই প্রবৃদ্ধি বেড়ে লাভ নেই। দুর্নীতি রোধ করা না গেলে প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভব নয়।’

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad

বিজ্ঞাপন

Ad